অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তদন্ত শুরু - কলেজ - Dainikshiksha

অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তদন্ত শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক |

সিরাজগঞ্জ জেলার কাজিপুর বরশীভাঙ্গা বুজরক আলী বেগম ময়না উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কারিগরি কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে স্বজনপ্রীতির অভিযোগের তদন্ত শুরু করেছে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর। অভিযোগ তদন্তে কারিগরি অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিদর্শককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। একাধিক সূত্র দৈনিক শিক্ষাকে এ খবর নিশ্চিত করেছে।

জানা যায়,  বুজরক আলী বেগম ময়না উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কারিগরি কলেজের সেক্রেটারিয়াল সায়েন্স বিভাগের প্রভাষক মো: সোহরাব আলীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠানের জ্যেষ্ঠতার বিধি লঙ্ঘন করে ব্যবস্থাপনা বিভাগের প্রভাষক মো: আব্দুল মুন্নাফকে সহকারী অধ্যাপক স্কেলপ্রাপ্তিতে সুপারিশসহ তার আবেদন প্রেরণের সুস্পষ্ট প্রমাণসহ ব্যাখ্যা চেয়েছিল কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর। 

এ অভিযোগের ব্যাখ্যা দেন বরশীভাঙ্গা বুজরক আলী বেগম ময়না উচ্চ বিদ্যালয় অ্যান্ড কারিগরি কলেজের অধ্যক্ষ। অধ্যক্ষ তার ব্যাখায় বলেন, প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ স্বজনপ্রীতি ও জ্যেষ্ঠতার বিধি লঙ্ঘন করে প্রভাষক মো: আব্দুল মুন্নাফকে সহকারী অধ্যাপক স্কেলপ্রাপ্তির সুপারিশসহ কোন প্রকার আবেদন এই দপ্তরে পাঠাননি তিনি । তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা অসত্য, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন।

তিনি আরও বলেন, প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটি সহকারী অধ্যাপক পদে পদায়নের বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোন মিটিং বা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেননি। প্রভাষক মো: আব্দুল মুন্নাফকে তো নয়ই বরং প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছয়জন প্রভাষকের কাউকে পদন্নতি দেই নাই। তাই অভিযোগকারীর অভিযোগ ভিওিহীন, উদ্দেশ্য প্রণোদিত এবং অধ্যক্ষকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার প্রয়াস। 

তিনি আরও জানান, অভিযোগকারী  প্রভাষক মো: সোহরাব আলীর আবাসস্থল প্রতিষ্ঠানের কাছে হওয়ায় বিভিন্ন সময়ে তিনি অনিয়ম করে থাকেন। এ প্রভাষকের বিরুদ্ধে নিয়মিত সময়মত না আসা, অফিস সময় শেষ হওয়ার আগে চলে যাওয়া, শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে অসদাচারণ, ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদানে অনীহা ও ছাত্র-ছাত্রীদের  যেকোন প্রশ্ন জিজ্ঞাসাতে তাদের ওপর প্রচণ্ড রেগে যাওয়া ইত্যাদি অভিযোগ সম্পর্কে তার লিখিত জবাবে উল্লেখ আছে। 

চিঠিতে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষের দাখিলকৃত লিখিত জবাব যাচাই করলে দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানের ফাইল নথিতে সংরক্ষিত কাগজপত্রের সাথে সাংঘর্ষিক ও বিভ্রান্তিকর। কারণ তিনি(অধ্যক্ষ) প্রভাষক মো: আব্দুল মুন্নাফকে সহকারী অধ্যাপক স্কেলপ্রাপ্তির আবেদন দপ্তরে জমা করেননি বলে তার লিখিত জবাবে উল্লেখ করলেও প্রতিষ্ঠানের ফাইল নথি মোতাবেক প্রভাষক মো: আব্দুল মুন্নাফের সহকারী অধ্যাপক স্কেলপ্রাপ্তির আবেদন  এ দপ্তরে জমা রয়েছে। যেখানে প্রতিষ্ঠান প্রধানের অগ্রায়ন ও সহকারী অধ্যাপক পদে ম্যানেজিং কমিটির সুপারিশ সংক্রান্ত রেজুলেশন সংযুক্ত আছে। 
  
এ অবস্থায় এ বিষয়টি সরজমিনে তদন্ত করে বিধি মোতাবেক জৈষ্ঠ্যতা নির্ধারণ এবং দায়ী ব্যক্তিকে চিহ্নিত করে সুস্পষ্ট প্রতিবেদন কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের জমা দিতে বলা হয়েছে কারিগরি অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিদর্শককে।

ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় ঠেকাতে ১০ কমিটি - dainik shiksha ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় ঠেকাতে ১০ কমিটি এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ১১২৪ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ১১২৪ শিক্ষক নভেম্বরের এমপিওতেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি - dainik shiksha নভেম্বরের এমপিওতেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি মিলাদুন্নবী উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ওয়াজ মাহফিল আয়োজনের নির্দেশ - dainik shiksha মিলাদুন্নবী উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ওয়াজ মাহফিল আয়োজনের নির্দেশ ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর - dainik shiksha ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক সার্কুলেশন প্ল্যান তৈরির নির্দেশ - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক সার্কুলেশন প্ল্যান তৈরির নির্দেশ এমপিওভুক্ত হচ্ছেন মাদরাসার ২০৭ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন মাদরাসার ২০৭ শিক্ষক বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ ২৮৮ তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত - dainik shiksha ২৮৮ তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website