ইউজিসি উচ্চশিক্ষা কমিশন হচ্ছে, বাড়বে ক্ষমতা - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

ইউজিসি উচ্চশিক্ষা কমিশন হচ্ছে, বাড়বে ক্ষমতা

নিজস্ব প্রতিবেদক |

দীর্ঘদিনের আলোচনা শেষে কিছু ক্ষমতা ও কর্মপরিধি বাড়িয়ে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনকে (ইউজিসি) উচ্চশিক্ষা কমিশনে রূপান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এ জন্য ‘বাংলাদেশ উচ্চশিক্ষা কমিশন আইন-২০১৮’-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটি।

রোববার (২৬ আগস্ট) সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত সচিব কমিটির সভায় এই খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন সভায় উপস্থিত একজন সচিব।

এখন নির্ধারিত প্রক্রিয়ায় খসড়াটি অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে। মন্ত্রিসভার অনুমোদন পেলে সেটি সংসদে উপস্থাপন করা হবে। ইউজিসি বর্তমানে কেবল বিভিন্ন বিষয়ে সরকারের কাছে সুপারিশ করতে পারে, কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারে না। প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী, উচ্চশিক্ষা কমিশনের কোনো সুপারিশ যদি কোনো বিশ্ববিদ্যালয় যুক্তিসঙ্গত সময়ের মধ্যে প্রতিপালন না করে, তাহলে কমিশন প্রয়োজনে  ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের যেকোনো কোর্স বা প্রোগ্রামের অনুমোদন বাতিল বা স্থগিত করাসহ শিক্ষার্থী ভর্তি বন্ধ রাখার নির্দেশ দিতে পারবে।

এ ছাড়া কমিশন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে যেকোনো ব্যবস্থা নিতে পারবে। এমনকি যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুকূলে প্রস্তাবিত বা অনুমোদিত মঞ্জুরি স্থগিত করাসহ অন্যান্য ব্যবস্থা নিতে পারবে। এখন সাধারণত কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে থাকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও সরকার। অবশ্য কমিশনের কোনো ব্যবস্থার বিষয়ে আচার্যের (রাষ্ট্রপতি) কাছে প্রতিকার চাওয়ার সুযোগ পাবে সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়।

প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী, কমিশনে একজন চেয়ারম্যান ও রাষ্ট্রপতির নিয়োগ করা পাঁচজন পূর্ণকালীন সদস্য থাকবেন। এর বাইরে ১২ জন খণ্ডকালীন সদস্য থাকবেন। খণ্ডকালীন সদস্যদের মধ্যে সরকার মনোনীত তিনজন সদস্য হবেন পদাধিকার বলে। তাঁরা হলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব, পরিকল্পনা কমিশনের একজন সদস্য ও অর্থ বিভাগের সচিব।  খণ্ডকালীন বাকি সদস্যদের মধ্যে তিনজন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, তিনজন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং তিনজন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন। চেয়ারম্যান ও পূর্ণকালীন সদস্যের পদমর্যাদা, বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ সুবিধা রাষ্ট্রপতি ঠিক করবেন। তাঁরা চার বছরের জন্য নিয়োগ পাবেন। 

সুপ্রিম কোর্টের কোনো বিচারক যে পদ্ধতি ও কারণে অপসারিত হতে পারেন, সেই পদ্ধতি ও কারণ ছাড়া কমিশনের চেয়ারম্যান অপসারিত হবেন না। পূর্ণকালীন সদস্যরা রাষ্ট্রপতির সন্তোষ অনুযায়ী স্বপদে থাকবেন। কমিশনের জন্য একটি সচিবালয় থাকবে। এটি চেয়ারম্যানের অধিনে থাকবে। তবে এই সচিবালয়ের প্রধানের পদ হবে সচিব।

উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার মানোন্নয়ন এবং মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন প্রগতিশীল নাগরিক, বিশ্বমানের দক্ষ ও উদ্ভাবন ক্ষমতাসম্পন্ন মানবসম্পদ সৃষ্টির লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে কার্যকর পৃষ্টপোষকতা, সহায়তা, সেবা, তত্ত্বাবধানের জন্য এই স্বতন্ত্র কমিশন গঠন হচ্ছে। বর্তমানে দেশে ৪১টি সরকারি ও ১০৩টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

কমিশন দরিদ্র, মেধাবী ও আর্থিক সাহায্য প্রার্থীদের বৃত্তি বা শিক্ষা সহায়তা দেওয়ার জন্য এক বা একাধিক ট্রাষ্ট ফান্ড গঠন করতে পারবে। কমিশন অধিকতর দক্ষতা ও গতিশীলতার সঙ্গে কাজ করার জন্য প্রয়োজনে সময়ে সময়ে পরামর্শক ও উপদেষ্টা নিয়োগ করতে পারবে।

প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী, উচ্চশিক্ষা বিষয়ে কমিশন ১৮ ধরণের কাজ করবে। দেশে নতুন বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়তা, গুরুত্ব ও অগ্রাধিকারের বিষয়ে কমিশন সরকারের কাছে সুপারিশ করবে। কমিশন আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন উচ্চশিক্ষা দেওয়ার লক্ষ্যে পাঠদান ও মূল্যায়ন পদ্ধতির আধুনিকায়নে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে উদ্ধুদ্ধ করতে বিভিন্ন কর্মসূচি নেবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্রমতে, দীর্ঘদিন ধরেই ইউজিসিকে উচ্চশিক্ষা কমিশন করার বিষয়ে আলোচনা হচ্ছে।

 

নির্বাচনীতে অনুত্তীর্ণরা পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না - dainik shiksha নির্বাচনীতে অনুত্তীর্ণরা পাবলিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবে না শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল - dainik shiksha শূন্যপদের চাহিদা পাঠানোর সময় ফের বাড়ল জেএসসির জেলাভিত্তিক কেন্দ্র তালিকা প্রকাশ - dainik shiksha জেএসসির জেলাভিত্তিক কেন্দ্র তালিকা প্রকাশ সরকারিকরণ দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের মানববন্ধন (ভিডিও) - dainik shiksha সরকারিকরণ দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের মানববন্ধন (ভিডিও) কারিগরির সংশোধিত জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha কারিগরির সংশোধিত জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা প্রকাশ ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজে ভর্তি বিজ্ঞপ্তি নির্বাচনের আগেই স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করার পরিকল্পনা - dainik shiksha নির্বাচনের আগেই স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করার পরিকল্পনা সরকারিকরণের দাবিতে শিক্ষক সমাবেশ ৫ অক্টোবর - dainik shiksha সরকারিকরণের দাবিতে শিক্ষক সমাবেশ ৫ অক্টোবর দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া  - dainik shiksha please click here to view dainikshiksha website