এমপিওর আশায় অস্তিত্বহীন ইবতেদায়ি মাদরাসায় নতুন ঘর তোলার হিড়িক - মাদরাসা - দৈনিকশিক্ষা

এমপিওর আশায় অস্তিত্বহীন ইবতেদায়ি মাদরাসায় নতুন ঘর তোলার হিড়িক

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি |

এমপিওভুক্তির আশায় বরগুনার আমতলী ও তালতলী উপজেলার অস্তিত্বহীন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসায় নতুন ঘর তোলার হিড়িক পড়েছে। গত বছর অক্টোবর মাসে সরকার এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়ার পরেই রাতারাতি এসব ঘর তুলছে স্থানীয় অসাধু চক্র। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, আমতলী ও তালতলী উপজেলায় ১৯৯৫ খ্রিষ্টাব্দের দিকে ২০টি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা ছিল। তখন থেকেই ওই মাদরাসাগুলো স্থানীয় লোকজনের দান অনুদানে পরিচালিত হয়ে আসছিল। ২০০০ খ্রিষ্টাব্দে এসে ওই মাদরাসাগুলোকে সরকার নিবন্ধনের আওতায় এনে ৫শ’ টাকা ভাতা দেয়া শুরু  করে। ওই সময় থেকেই ওই ২০টি মাদরাসা কোনোমতে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলে আসছে। ওই স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসাগুলোর মধ্যে ১৬টি মাদরাসা ২০১৬ খ্রিষ্টাব্দ থেকে উপবৃত্তির আওতায় আনে প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ।

গত বছর অক্টোবর মাসে সরকার স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসাগুলোকে এমপিওভুক্তির আওতায় আনার ঘোষণা দেয়। এরপরই নড়েচড়ে বসে একটি অসাধু চক্র। তারা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসকে ম্যানেজ করে সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য মাদরাসার নাম অন্তর্ভুক্ত করে ভুয়া শিক্ষার্থী দেখিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে। গত নভেম্বর মাসে সমাপনী পরীক্ষায় আমতলী উপজেলায় ৬৪টি মাদরাসা থেকে ৬শ’ শিক্ষার্থী এবং তালতলী উপজেলায় ৩৯টি মাদরাসা থেকে ৪শ’ ২১ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেয়। ওই পরীক্ষার্থীরা অন্য মাদরাসা থেকে ভুয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে অংশগ্রহণ করেছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। অস্তিত্বহীন ওই মাদরাসাগুলোকে এমপিওভুক্তির আওতায় আনার জন্য এ কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে একটি কুচক্রী মহল। 

সমাপনী পরীক্ষা শেষে গত বছর ডিসেম্বর মাসে তড়িঘড়ি করে রাতারাতি ঘর তুলে ফেলেছে তারা। কিন্তু বার্ষিক পরীক্ষায় ওই মাদরাসাগুলো থেকে কেউ অংশ নেয়নি। দৈনিক শিক্ষাডটকমের কাছে একটি মহল বেকার যুবকদের বেকারত্বকে পুঁজি করে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা প্রতিষ্ঠার নামে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। 
 
টিয়াখালী গ্রামের আবদুল রাজ্জাক হাওলাদার দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘অস্তিত্বহীন উত্তর পুর্ব টিয়াখালী স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসায় চাকরি দেয়ার নাম করে প্রধান শিক্ষক আবু তালেব দুই জনের কাছ থেকে তিন লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।’

তবে মাদরাসার প্রধান শিক্ষক মো. আবু তালেব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘শাহীন গাজীকে মাদরাসায় চাকরি দেয়া হয়েছে কিন্তু তার কাছ থেকে কোনো টাকা নেইনি।’

১৫ জানুয়ারি বুধবার আমতলীর চাওড়া ইউনিয়নের চাওড়া চালিতাবুনিয়া এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, চালিতাবুনিয়া আদর্শ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা নামে একটি নতুন ভবন তোলা হয়েছে। ওই ভবনের মধ্যে চেয়ার, টেবিল ও বেঞ্চ নেই। ভবনটিতে তালা দেয়া। সমতল মাটিতে ঘর তোলা। 

চালিতাবুনিয়া গ্রামের গাজী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘এখানে কিছুই ছিল না। গত মাসের শেষের দিকে ঘুম থেকে উঠে দেখি একটি ঘর তোলা। পরে দেখি একটি মাদরাসার নামে সাইন বোর্ড টানানো।’

জমিয়াতুল মোদাররেসিন আমতলী উপজেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘অস্তিত্বহীন মাদরাসাগুলোর প্রায় ঘরই নতুন করে তোলা।’
 
আমতলী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. মজিবুর রহমান বলেন, ‘সরেজমিনে তদন্তে গিয়ে অনেক স্বতন্ত্র মাদরাসায় নতুন ঘর তুলতে দেখেছি।’ তিনি আরও বলেন, ‘গত বছর ডিসেম্বর মাসে অনেক মাদরাসায়, বার্ষিক পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেছে এরকম তথ্য প্রতিষ্ঠান প্রধানরা দেখাতে পারেননি।’

এ বিষয়ে আমতলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মনিরা পারভীন দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, ‘নতুর ঘর তোলার কথা শুনেছি। নতুন ঘর তুললেই এমপিওভুক্তির সুপারিশ করা হবে না। সরেজমিনে তদন্ত করে যেসব মাদরাসার অবকাঠামো, শিক্ষক ও শিক্ষার্থী রয়েছে সেসব মাদরাসা এমপিওভুক্তির জন্য সুপারিশ করা হবে।’

জেএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর আহ্বান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের - dainik shiksha জেএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর আহ্বান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের স্কুল খুললে সীমিত পরিসরে পিইসি, অটোপাস নয় : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha স্কুল খুললে সীমিত পরিসরে পিইসি, অটোপাস নয় : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাতীয়করণ: ফের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত সেলিম ভুইঁয়া, কর্মসূচির হুমকি - dainik shiksha জাতীয়করণ: ফের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত সেলিম ভুইঁয়া, কর্মসূচির হুমকি একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করবেন যেভাবে - dainik shiksha একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন করবেন যেভাবে please click here to view dainikshiksha website