এসএসসির ফল প্রকাশ ও কলেজে ভর্তি একসাথে করার পরামর্শ - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

এসএসসির ফল প্রকাশ ও কলেজে ভর্তি একসাথে করার পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক |

কলেজে ভর্তি ও এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের প্রক্রিয়া এক করে দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সাবেক শিক্ষা সচিব ও দৈনিক শিক্ষাডটকমের প্রধান উপদেষ্টা মো. নজরুল ইসলাম খান। তাঁর মতে ভর্তি এবং ফল প্রকাশের দুইটি পৃথক সফটওয়্যার ইন্টারফেসিং করার মাধ্যমে খুব সহজেই ফল প্রকাশ ও কলেজে ভর্তি প্রক্রিয়া একত্রিত করে দেয়া সম্ভব। এর ফলে শিক্ষার্থীরা একই সাথে এসএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট ও কোন কলেজে চান্স পেয়েছে সে তথ্য পেতে পারবে। ফলে, শিক্ষা জীবন থেকে ১ থেকে দেড় মাস কম সময়ে শিক্ষার্থীরা তাদের শিক্ষাজীবন শেষ করতে পারবে। 

একইসাথে শিক্ষার্থীদের অজান্তে ভর্তির আবেদনরোধে এসএমএসের মাধ্যমে কলেজ ভর্তির আবেদন গ্রহণ বন্ধ করার সরকারি সিদ্ধান্ত ভুল বলেও মন্তব্য করেছেন এন আই খান। একই সাথে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার করে জেল-জরিমানাসহ শিক্ষার্থীদের অজান্তে আবেদন করা কলেজগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সোমবার (১ জুন) দৈনিক শিক্ষা ডটকমের লাইভ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি। ফেসবুক লাইভটি সঞ্চালনা করেন দৈনিক শিক্ষাডটকমের সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান খান।  আরো অংশ নেন কবি নজরুল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার এবং ঢাকা শিক্ষাবোর্ড ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো: ফজর  আলী। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের প্রধান নেপথ্য কারিগর নজরুল ইসলাম খান বলেন, কলেজে ভর্তির কাজ একটি সফটওয়ারের মাধ্যমে করা হয়। আর একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে এসএসসির ফল প্রকাশ করা হয়। এই দুইটি সফটওয়্যার এক করে দিতে হবে। তাদের একত্রিত করে ইন্টারফেসিং করতে হবে। শিক্ষার্থীদের এসএসসির ফল ও কোন কলেজে চান্স পেয়েছে তা একই সাথে জানাতে হবে।  যদিও কেউ অসত্য তথ্য দেয় তাহলে পরে ধরা পড়লে তার ভর্তি বাতিল হওয়ারও বিধান রাখা উচিত। 

তিনি বলেন, এ দুইটি সফটওয়্যার ইন্টারফেসিং করা একদম সোজা। এটা এক সপ্তাহ, বেশি হলে এক মাস এর কাজ। এর কম সময়ে করা সম্ভব। 

তিনি আরও বলেন, ফল প্রকাশের আগেই শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ভর্তির মতামত (কলেজের পছন্দ তালিকা) নিতে হবে। এতে করে যেদিন ফল প্রকাশ করা হবে একই সাথে সে কোন কলেজে চান্স পেয়েছে তাও জানিয়ে দেয়া হবে  ফলে এক থেকে দেড় মাস সময় বেঁচে যাবে। এবার এ পদ্ধতিতে ভর্তি হলেই সবচেয়ে ভালো হতো। যেহেতু করোনার লকডাউনের কারণে অনেকটা সময় নষ্ট হয়ে গেছে। আবার কবে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে বোর্ডগুলো তা নিশ্চিত নয়। 

'আমি আবার বলছি, ভর্তি সফটওয়্যার ও ফল প্রকাশের সফটওয়্যার ইন্টারফেসিং করে দিতে হবে। এতে করে শিক্ষার্থীরা এসএসসি পরীক্ষার ফল এবং কোন কলেজে চান্স পেয়েছে তা একই সাথে জানতে পারবে।' যোগ করেন তিনি। আমি এর আগেও এই পরামর্শ দিয়েছি। যদি আগে শুনতো তাহলে এবারের এই করোনার সময় খুব কাজে লাগতো। যাহোক এখনও শুরু করা যায়।'

কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করা না করার বিষয়ে এন আই খান বলেন, এখনই ভর্তি কার্যক্রম শুরু না করার কোন কারণ আমি দেখি না। শিক্ষার্থীরা কিভাবে নিজেদের সুরক্ষিত রেখে কলেজে ভর্তির আবেদন করতে পারবে সে বিষয়ে তাদের নির্দেশনা দিতে হবে এবং তা তারা মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে। শিক্ষার্থীরা ঘরে বসে ভর্তির আবেদন করবেন। তারা মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন করবেন।

এ সময় ফেসবুক লাইভের সঞ্চালক ও দৈনিক শিক্ষা সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান খান জানান, কিছু দুষ্ট  স্কুল এন্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের অজান্তে এসএমএসের মাধ্যমে আবেদন করে নেয়ায় কারণে সরকার এবার ওই পদ্ধতি বাতিল করে দেয়ার বিষয়টি তুলে ধরেন। এ প্রেক্ষিতে নজরুল ইসলাম খান বলেন মাথা ব্যথার জন্য মাথা কেটে ফেলার কোনো কারণ আমি দেখি না। যারা এসব অনিয়ম করছে তাদের চিহ্নিত করা সহজ। কোন মোবাইল থেকে করা হয়েছে তা চিহ্নিত কর সম্ভব।  দায়ীদের শাস্তি দিতে হবে। তাদের জেল-জরিমানা করা যেতে পারে। এছাড়া দেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন রয়েছে। কিন্তু তা না করে সুন্দর একটি পদ্ধতি বন্ধ করে দিতে হবে এর কোন মানে হয় না। আমি মনে করি এটি একটি ভুল সিদ্ধান্ত। শিক্ষার্থীরা মোবাইলের মাধ্যমে আবেদন করবে এবং বিকাশে/নগদে/রকেটে ফি দেবে সেটি পলিসি ছিল। আমি মনে করি এটি পলিসি হওয়া উচিত। ঘরে বসে শিক্ষার্থীদের আবেদন গ্রহণের ব্যবস্থা করে এখনই কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করার পরামর্শ দেন তিনি।

মাদরাসা শিক্ষকদের জুনের এমপিওর জিও জারি - dainik shiksha মাদরাসা শিক্ষকদের জুনের এমপিওর জিও জারি করোনায় ৪৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৬৬৬ - dainik shiksha করোনায় ৪৭ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৬৬৬ শিক্ষার্থীর সংখ্যার ভিত্তিতে স্কুলের তথ্য চেয়েছে অধিদপ্তর - dainik shiksha শিক্ষার্থীর সংখ্যার ভিত্তিতে স্কুলের তথ্য চেয়েছে অধিদপ্তর আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে বন্যা দুর্গত এলাকায় স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha আশ্রয়কেন্দ্র হিসাবে বন্যা দুর্গত এলাকায় স্কুল-কলেজ খুলে দেয়ার নির্দেশ তিন শিক্ষকের ডাবল এমপিও : দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর অধ্যক্ষকে শোকজ - dainik shiksha তিন শিক্ষকের ডাবল এমপিও : দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর অধ্যক্ষকে শোকজ দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর : তথ্য গোপন করে নেয়া অনুদানের টাকা ফেরত - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর : তথ্য গোপন করে নেয়া অনুদানের টাকা ফেরত জটিলতার দ্রুত সমাধান চান এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকরা - dainik shiksha জটিলতার দ্রুত সমাধান চান এমপিওবঞ্চিত শিক্ষকরা প্রভাষকের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদে চাকরির অভিযোগ - dainik shiksha প্রভাষকের বিরুদ্ধে ভুয়া সনদে চাকরির অভিযোগ শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান - dainik shiksha শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক - dainik shiksha বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে - dainik shiksha শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website