কলেজ সরকারি ঘোষণা : সাড়ে তিন বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি - কলেজ - দৈনিকশিক্ষা

কলেজ সরকারি ঘোষণা : সাড়ে তিন বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

কিশোরগঞ্জের ১০টি বেসরকারি কলেজ সরকারি ঘোষণার প্রায় সাড়ে তিন বছর পরও বাস্তবায়িত হয়নি। ফলে জেলার প্রায় ৫০০ শিক্ষক ও কর্মচারী বেসরকারি রয়ে গেছেন। এ সময়ের মধ্যে সরকারি সুবিধা ছাড়াই অবসরে গেছেন অর্ধশত শিক্ষক-কর্মচারী। সরকারি কলেজ শিক্ষক সমিতি (সকশিস) সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। শুক্রবার (৩ জানুয়ারি) কালের কণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে আরও জানা যায়, স্থানীয় সূত্র জানায়, ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ৩১ জুলাই সরকার ‘আত্তীকরণ বিধিমালা-২০১৮’ জারি করে। ১২ আগস্ট সরকারিকরণের প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। কলেজ সরকারি হলেও শিক্ষক ও কর্মচারীদের পদায়ন না করায় তাঁরা বেসরকারি রয়ে গেছেন।

সকশিস নেতারা অভিযোগ করেন, সরকারীকরণের কাজ চলছে ঢিমেতালে। এভাবে চললে মাউশি ও বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শেষ হতে আরো তিন-চার বছর লেগে যাবে। ২০২২ খ্রিষ্টাব্দে এ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হলে তত দিনে কিশোরগঞ্জের শতাধিক শিক্ষক ও কর্মচারী শূন্য হাতে অবসরে যাবেন।

সকশিস সূত্র জানায়, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সাংগঠনিক কাজে গত বছরের ১১ নভেম্বর কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর সরকারি কলেজে যান। ওই সময় কলেজের শিক্ষক ও সকশিস নেতারা উপমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন। তাঁর কাছে বিদ্যমান সংকট ও অভাব-অভিযোগ তুলে ধরেন তাঁরা। উপমন্ত্রী তাঁদের বলেছেন, সরকারীকরণের কাজ দ্রুত না হওয়ার নেপথ্যের বিষয়গুলো সম্পর্কে তিনি জানেন। বিষয়টি তিনি আন্তরিকভাবে দেখবেন বলে আশ্বাস দেন।

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর সরকারি কলেজের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক এ বি এম মহিব্বুল্লাহ অবসরে যান প্রায় এক বছর আগে। এরও আড়াই বছর আগে কলেজটি সরকারি হয়। তাঁর আক্ষেপ, ‘সারা জীবন শিক্ষা দান করে অবসরজীবনে আর্থিক চাপে পড়াটা দুঃখজনক।’

সকশিসের সহসভাপতি ও বাজিতপুর কলেজের শিক্ষক রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘মাউশিতে সমন্বিত পদ সৃজন প্রক্রিয়াটি একজন কর্মকর্তার কারণে বিলম্বিত হচ্ছে।’

সকশিস সভাপতি ও টাঙ্গাইলের মধুপুর সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘একটি মহল প্রতিপক্ষ হয়েছে। তাঁরা চাচ্ছে না যে সরকারিকরণের ঘোষণাটি দ্রুত বাস্তবায়ন হোক।’

মাউশির উপপরিচালক (কলেজ) ড. শাহ মো. আমীর আলী বলেন, ‘৩০৩টি কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের কাগজপত্র যাচাই করা হচ্ছে। কাজটি শেষের পথে। পরে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এগুলো ফের যাচাই করবে। এরপর জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয় এবং সচিব কমিটি হয়ে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে যাবে। সেখান থেকে এসব কাগজপত্র আবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ফেরত পাঠানোর পর পদ সৃজন ও পদায়ন করা হবে। এটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া।’ অবসরে যাওয়া শিক্ষক ও কর্মচারীদের বিষয়ে তাঁর ব্যাখ্যা, সরকারিকরণের প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার সময়ে যাদের বয়স ৫৯ হবে, শুধু তাঁরা এই সুবিধা পাবেন।

এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩১ মে - dainik shiksha এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ৩১ মে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১ হাজার ৫৩২ - dainik shiksha করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১ হাজার ৫৩২ এসএসসির ফল প্রকাশের দিন স্কুলে জমায়েত করা যাবে না - dainik shiksha এসএসসির ফল প্রকাশের দিন স্কুলে জমায়েত করা যাবে না দাখিলের ফল পেতে প্রি-রেজিস্ট্রেশন যেভাবে - dainik shiksha দাখিলের ফল পেতে প্রি-রেজিস্ট্রেশন যেভাবে এসএসসির ফল পেতে প্রি-রেজিস্ট্রেশন শুরু - dainik shiksha এসএসসির ফল পেতে প্রি-রেজিস্ট্রেশন শুরু দ্বিতীয়বার হয় না করোনা : গবেষণা - dainik shiksha দ্বিতীয়বার হয় না করোনা : গবেষণা বাদপড়া শিক্ষকদের এমপিওর আবেদন শুরু ২২ মে - dainik shiksha বাদপড়া শিক্ষকদের এমপিওর আবেদন শুরু ২২ মে সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি প্রকাশ - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি প্রকাশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন যেভাবে জাকাতের হিসাব করবেন - dainik shiksha যেভাবে জাকাতের হিসাব করবেন please click here to view dainikshiksha website