কারিগরি বোর্ড চেয়ারম্যানকে বদলি - বিবিধ - Dainikshiksha

কারিগরি বোর্ড চেয়ারম্যানকে বদলি

নিজস্ব প্রতিবেদক |
ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডক্টরেট ডিগ্রিসহ নানা অভিযোগে অভিযুক্ত কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমানকে সরিয়ে দেয়া হয়েছে। তাকে ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষের শূন্যপদে বদলি করা হয়েছে। আজ রোববার(৩ ফেব্রুয়ারি) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। 
 
জানা গেছে, আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি তিনি বদলিকৃত কর্মস্থলে যোগদান করবেন সাবেক চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান। ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের ১০ মার্চ বোর্ডে চেয়ারম্যান হিসেবে যোগ দেন ড. মো. মোস্তাফিজুর রহমান।
 
অনিয়ম-দুর্নীতি, লুটপাট ও স্বেচ্ছাচারিতায় অনেকটাই অকার্যকর হয়ে পড়েছে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড। সংস্থাটির চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যোগদানের ৬ বছর আগের বিল ও সম্মানী ভুয়া ভাউচারে নেয়ার প্রমাণ মিললেও কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। একটি সংঘবদ্ধ চক্র ভুয়া শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন ও পাস করাচ্ছে। এছাড়া নিয়োগ-পদোন্নতিতে অনিয়ম, ঘুষ ছাড়া সেবা না দেয়া, সরকারি অর্থের যথেচ্ছা ব্যবহারসহ নানা ধরনের অপকর্ম ঘটছে প্রতিষ্ঠানটিতে। তবে এসব অপরাধের জন্য এখন পর্যন্ত কাউকে শাস্তির মুখোমুখি হতে হয়নি। আর রহস্যজনক কারণে জালিয়াতি করে সম্মানী নেয়া চেয়ারম্যানকে শুধু ‘সতর্ক’ করার মধ্যেই শাস্তি সীমিত রাখা হয়েছে।
 
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা দৈনিক শিক্ষাকে জানিয়েছেন, সরকার কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা বেপরোয়া হয়ে গেছেন। শীর্ষস্থানীয় অসাধু কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে গড়ে উঠেছে শক্তিশালী একাধিক সিন্ডিকেট। এ সিন্ডিকেট বোর্ডটিকে অনিয়ম ও দুর্নীতির দুর্গে পরিণত করেছে।
 
জালিয়াতির মাধ্যমে পাস : মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত ও একজন উপসচিব জানান, এ বোর্ডের নিয়ম হচ্ছে, এসএসসি ভোকেশনাল পাস করতে হলে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। অন্য বোর্ডে নবম শ্রেণীতে স্কুল পরীক্ষা নেয়। কিন্তু এ বোর্ডে কেন্দ্রীয়ভাবে বোর্ড ফাইনাল পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। একইভাবে দশম শ্রেণী বা এসএসসি চূড়ান্ত পরীক্ষায়ও অংশ নিতে হবে। কিন্তু এ বোর্ডের শুধু একটি ঘটনায়ই প্রমাণিত হয়েছে, নবম শ্রেণীতে ভর্তি দূরের কথা, নিজ নামে রেজিস্ট্রেশন করেনি, কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। এমনকি ফরম ফিলাপও করেনি। অথচ শিক্ষার্থী পাস করেছে। মন্ত্রণালয়ের তদন্তে জালিয়াতি ও দুর্নীতির আদ্যোপান্ত বেরিয়ে এসেছে। এতে দেখা যায়, পাবনার বেড়া উপজেলার বেড়া ফাজিল মহিলা (ডিগ্রি) মাদ্রাসা থেকে ২০১৬ সালের এসএসসি (ভোকেশনাল) পরীক্ষায় ৬ শিক্ষার্থী পাস করেছে। এসব শিক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন নবম শ্রেণীতে করানো হয়নি। শুধু এ প্রতিষ্ঠানেরই নয়, তদন্ত কমিটি গত বছরের পরীক্ষায় সর্বমোট এমন ১৫ জন ভুয়া শিক্ষার্থীর সন্ধান পেয়েছে। ওইসব শিক্ষার্থী পরীক্ষা না দিয়েই পাস করেছে। জানা গেছে, এমন জালিয়াতি করছে কারিগরি বোর্ডের কম্পিউটার সেলের একটি চক্র। তারা নবম শ্রেণীতেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নামে কিছু ভুয়া রেজিস্ট্রেশন খুলে রাখে। পরে ভুয়া ছাত্র পেলে ওইসব রেজিস্ট্রেশন নম্বরের বিপরীতে ছাত্র ‘রিপ্লেস’ করে। তদন্ত কমিটি এ জালিয়াতিকে ‘রিপ্লেস জালিয়াতি’ বলে চিহ্নিত করেছে। বেড়ার ওই মাদ্রাসা থেকে ২০১৬ সালের এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষায় এভাবে পাস করা ৬ জনের রোল হল- ৬৬২৮৪৭, ৭৫৮৭৫৮, ৬৬২৮৯০, ৭৫৮৭৫৭, ৭৫৮৭৬২ ও ৭৫৮৮০৭। 
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন উপসচিব জানান, অপরাধীরা অপরাধ করতে করতে এমনই অন্ধ হয়ে গিয়েছিল যে, উল্লিখিত পরীক্ষার্থীরা প্রত্যেকে ছাত্র হলেও তাদের মহিলা মাদ্রাসার নামে অন্তর্ভুক্ত করেছে। যে কারণে বিষয়টি সহজেই নজরে পড়েছে।
 
চেয়ারম্যানের সম্মানী লোপাট : ২০১৫ খ্রিস্টাব্দের ১০ মার্চ বোর্ডে যোগ দিয়েই তিনি ভাউচার দিয়ে সম্মানী হিসেবে ২৫ লাখ ১৪ হাজার ৪০০ টাকা তুলে নেন বলে অভিযোগ ওঠে। পরে এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবদুল্লাহ আল হাসান চৌধুরীর নেতৃত্বে তদন্ত পরিচালিত হয়। এতে যোগদানের আগের সময়ে দায়িত্ব পালন বাবদ সম্মানী নেয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হয়। পরে গত ২৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব সুবোধ চন্দ্র ঢালী স্বাক্ষরিত অফিস আদেশে চেয়ারম্যানকে সতর্ক করা হয়। এতে বলা হয়, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বোর্ড প্রশাসন পরিচালনায় বিচক্ষণতা ও দক্ষতার পরিচয় দিতে ব্যর্থ হয়েছেন এবং অনিয়মিত পন্থায় প্রাপ্যতাবিহীন অর্থ গ্রহণ করে অনৈতিক কাজ করেছেন, তার বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে। সার্বিক বিবেচনায় তাকে এ ধরনের কার্যকলাপের জন্য সতর্ক করা হল। ভবিষ্যতে তাকে এ ধরনের কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করা হল। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বোর্ড চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
 
আরও দুর্নীতি : বোর্ডের একাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী জানিয়েছেন, এ বোর্ডে এছাড়াও নিয়োগ, পদোন্নতি, পুরনো কাগজ বিক্রি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন ও অনুমোদনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ আছে। ২০১২ খ্রিস্টাব্দের ৫ এপ্রিল বিভিন্ন পদে ১১ জনকে এ বোর্ডে নিয়োগ দেয়া হয়। এ নিয়োগ নিয়ে অর্থ লেনদেনের অভিযোগ ওঠে। কিন্তু তখনও তা তদন্ত করা হয়নি। এর আগে ৩৩ জনকে বিভিন্ন পদে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়া হয়। তারা সবাই ৫ হাজার ৫২০ টাকা সাকুল্য বেতনে কর্মরত ছিলেন। সংবাদপত্রে কোনো ধরনের বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই ২০১০ খ্রিস্টাব্দের ২৩ ফেব্রুয়ারিতে এ ৩৩ জনের মধ্য থেকে শুধু মো. ফারুক নামের একজন ডেসপাস রাইটারকে সরাসরি রাজস্ব খাতে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আবার ২০১০ খ্রিস্টাব্দের ফারুককে নিয়োগ দিলেও তা কার্যকর করা হয় ২০০৭ খ্রিস্টাব্দের ১ জানুয়ারি থেকে। এভাবে বিভিন্ন নিয়োগে তুঘলকিকাণ্ড ঘটেছে। এ ধরনের আরেক ঘটনার দৃষ্টান্ত আছে পদোন্নতির ক্ষেত্রে। ডকুমেন্টেশন অফিসার এসএম শাহজাহান ৮ হাজার টাকা স্কেলে চাকরি করতেন। ২০১০ খ্রিস্টাব্দের ১৩ জানুয়ারি এক আদেশে সরকারি বেতন স্কেলের কয়েকটি ধাপ ডিঙিয়ে তাকে উপপরিদর্শক হিসেবে ২২ হাজার ১৫০ টাকার স্কেলে পদোন্নতি দেয়া হয়। একইভাবে এসএসসি পাস নিরাপত্তা কর্মকর্তা সৈয়দ এয়াকুব আলীকে ওই একই আদেশে ১১ হাজার টাকার স্কেলে সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক পদোন্নতি দেয়া হয়েছে।
 
একাদশে ভর্তি: ২য় দফার আবেদন শুরু - dainik shiksha একাদশে ভর্তি: ২য় দফার আবেদন শুরু বিসিএসেও তৃতীয় পরীক্ষক চালু - dainik shiksha বিসিএসেও তৃতীয় পরীক্ষক চালু ডিগ্রি ২য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো - dainik shiksha ডিগ্রি ২য় বর্ষ পরীক্ষার ফরম পূরণের সময় বাড়লো জিপিএ-৫ বিলুপ্তির পর যেভাবে হবে নতুন গ্রেড বিন্যাস - dainik shiksha জিপিএ-৫ বিলুপ্তির পর যেভাবে হবে নতুন গ্রেড বিন্যাস পাবলিক পরীক্ষার গ্রেড: যা আছে আর যা হবে - dainik shiksha পাবলিক পরীক্ষার গ্রেড: যা আছে আর যা হবে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় কঠোর নজরদারির নির্দেশ গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় কঠোর নজরদারির নির্দেশ গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর শিক্ষক নিবন্ধন: ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিষয়ের নতুন সিলেবাস দেখুন - dainik shiksha শিক্ষক নিবন্ধন: ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিষয়ের নতুন সিলেবাস দেখুন সার্টিফিকেট ছাপার আগেই ২ কোটি টাকা তুলে নিলেন ছায়েফ উল্যাহ - dainik shiksha সার্টিফিকেট ছাপার আগেই ২ কোটি টাকা তুলে নিলেন ছায়েফ উল্যাহ রাজধানীর সকল ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের মধ্যে সরিয়ে নিতে হবে: হাইকোর্ট - dainik shiksha রাজধানীর সকল ফার্মেসি থেকে মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের মধ্যে সরিয়ে নিতে হবে: হাইকোর্ট জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া  - dainik shiksha please click here to view dainikshiksha website