please click here to view dainikshiksha website

ক্লাস ফাঁকি দিয়ে পার্কে শিক্ষার্থীদের আড্ডা, জরিমানা

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি | আগস্ট ৩, ২০১৭ - ৭:৫৩ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

স্কুল-কলেজের ক্লাস ফাঁকি দিয়ে পার্কে আড্ডা দেয়া শিক্ষার্থীদের ধরতে বিশেষ অভিযান চালিয়েছে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুচিত্র রঞ্জন দাস ও সিব্বির আহম্মেদকে সাথে নিয়ে বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে চুয়াডাঙ্গা ফেরীঘাট রোডের শিশুস্বর্গ পার্কে এ অভিযান পরিচালনা করেন।

এসময় ক্লাস ফাঁকি দিয়ে বন্ধুর সাথে আড্ডা দেয়া অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থীকে আটক করে মৌখিক অঙ্গীকার নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

এসময় দণ্ডবিধি, ১৮৬০ এর ২৯৪ ধারায় প্রকাশ্য স্থানে অশ্লীল কার্যকলাপের সুযোগ দানের অপরাধে পার্ক কর্তৃপক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। সাথে সাথে সকাল ৬টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত স্কুল-কলেজ চলাকালীন সময়ে কোন ছাত্র-ছাত্রীকে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা ও সিসিটিভি ক্যামেরার মাধ্যমে পর্যবেক্ষণের নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসক।

জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ জানান, স্কুল-কলেজে ক্লাস ফাঁকি দিয়ে পার্কগুলোতে শিক্ষার্থীদের আনাগোনা সম্পূর্ণ বন্ধ করতে এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। প্রথম পর্যায়ে ছবি তুলে, পরিচয় লিপিবদ্ধ করে মৌখিক অঙ্গীকারের ভিত্তিতে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে যাদেরকে আটক করা হবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে শাস্তি দেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ৪টি

  1. হুমায়ুন কবির says:

    ঘরের দরোজা খোলা রেখে চোরকে সুযোগ দিয়ে পরে শাস্তি দেয়ার চাইতে ঘরের খিল আঁটাই হলো সঠিক পদ্ধতি। সস্তায় চায়না থেকে আমদানিকৃ টাচ-এন্ড্রয়েড-ক্যামেরাযুক্ত কোটি কোটি মোবাইল সেট সহজলভ্য করে মোবাইল সেট ব্যবসায়ীরা লাল হয়ে যাচ্ছে! আর টিনএজাররা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে! যেমন করে মাদক ব্যবসায়ীরা আঙুল ফুলে কলা গাছ। আর নতুন প্রজন্ম ধংস! তদুপরি, সৃজনশীলের নামে জটিল-দুর্বোধ্য শিক্ষা পদ্ধতি চালু করে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা বিমূখ করে বস্তুত জাতিকে ধংস করারই পাঁয়তারা চলছে! সারা দেশেই ফাঁকি দেয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা কেন দিন দিন বিপুল আকার ধারণ করছে? ওরা স্কুল-কলেজ ফাঁকি দিয়ে কেন পার্কমূখী হচ্ছে তা কী ভেবে দেখার সময় এখনও হয়নি?

  2. রফিকুল ইসলাম। says:

    দ্রৈহিক সাজার পরিবর্তে জরিমানা কি চালু হবে?

  3. রফিকুল ইসলাম। says:

    জরিমানা না করে মাজার ব্যবস্হা করলে ভাল হতে।

  4. মো: আশরাফুল আলম says:

    জেলা প্রশাসকের এহেন মহতি উদ্যোগের জন্য ধন্যবাদ।কিনতু্ অভিভাবকদের সচেতন হওয়া খুবই জরুরী।

আপনার মন্তব্য দিন