চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ প্রত্যাহার না হলে রাজপথে নামবেন শিক্ষকরা - সমিতি সংবাদ - Dainikshiksha

চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ প্রত্যাহার না হলে রাজপথে নামবেন শিক্ষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক |

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের চাঁদার হার ৬ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ করার আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন কয়েকটি শিক্ষক সংগঠনের নেতারা। তারা বলেছেন, নাটকীয়ভাবে চাঁদা বৃদ্ধির এ আদেশ প্রত্যাহার করা না হলে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীরা রাজপথে নামতে বাধ্য হবেন। মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) দৈনিকশিক্ষা ডটকমে পাঠানো বাংলাদেশ অধ্যক্ষ পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান স্বাক্ষরিত  এক বিবৃতিতে এ দাবি জানানো হয়। একই দাবি করেন বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির নেতা অধ্যক্ষ ইসহাক হোসেন, অধ্যক্ষ মো: হারুনুর রশীদ পাঠানসহ অন্যান্যরা। 

অপর এক বিবৃতিতে  মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষা জাতীয়করণ লিয়াজোঁ কমিটির নেতারাও আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন। সংগঠনের সদস্য সচিব প্রদীপ কুমার সাহা স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে অবিলম্বে বর্ধিত চাদার আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। বিবৃতিদাতারা হলেন, লিয়াজোঁ কমিটির আহবায়ক ড. মো. ইদ্রিস আলী, সদস্য সচিব প্রদীপ কুমার সাহা, যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিন আহমেদ ও অধ্যক্ষ মো. নূরুল ইসলাম।

বিবৃতিতে বলা হয়, ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের নভেম্বর মাসে শিক্ষক বা শিক্ষক প্রতিনিধিদের সাথে কোনো প্রকার আলোচনা ছাড়াই প্রথমে এক আদেশের মাধ্যমে এই চাঁদা বৃদ্ধি করা হয়েছিলো। সারাদেশের শিক্ষক-কর্মচারীদের আন্দোলনের মুখে সরকার তখন এ আদেশ স্থগিত করেন। পরবর্তীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে হঠাৎ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে পুনরায় আদেশটি প্রকাশ করা হলেও পরে ওয়েবসাইট থেকে আদেশ প্রত্যাহার করা হয়। কিন্তু গত ১৪ জানুয়ারি অনেকটা আকস্মিকভাবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড পুনরায় চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ জারি করে। 

বিবৃতিতে শিক্ষক নেতারা আরও বলেন, অবসর সুবিধাবোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের চাঁদা বৃদ্ধি নিয়ে বার বার যেটি করা হচ্ছে সেটা শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে লুকোচুরির শামিল। তাঁরা বার বার এ ধরনের আদেশ জারি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। আদেশটি বার বার স্থগিত না করে বাতিল করার জোর দাবি জানান। 

কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রস্তুত - dainik shiksha ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রস্তুত এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন - dainik shiksha এমপিওভুক্তির তালিকায় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন বেতন বৈষম্য নিরসন দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন - dainik shiksha বেতন বৈষম্য নিরসন দাবিতে প্রাথমিক শিক্ষকদের পূর্ণদিবস কর্মবিরতি পালন ইন্টার্ন চিকিৎসকদের হোস্টেল থেকে ৫২০পিস ইয়াবা উদ্ধার - dainik shiksha ইন্টার্ন চিকিৎসকদের হোস্টেল থেকে ৫২০পিস ইয়াবা উদ্ধার বাবার কাছে লেখা শিক্ষা উপমন্ত্রীর বোনের শেষ চিঠি - dainik shiksha বাবার কাছে লেখা শিক্ষা উপমন্ত্রীর বোনের শেষ চিঠি পুলিশ যেভাবে আটকে দিল ননএমপিও শিক্ষকদের পদযাত্রা (ভিডিও) - dainik shiksha পুলিশ যেভাবে আটকে দিল ননএমপিও শিক্ষকদের পদযাত্রা (ভিডিও) ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া বিশ্ববিদ্যালয় তদারকিতে কঠোর হতে ইউজিসিকে বললেন প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয় তদারকিতে কঠোর হতে ইউজিসিকে বললেন প্রধানমন্ত্রী please click here to view dainikshiksha website