চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ প্রত্যাহার না হলে রাজপথে নামবেন শিক্ষকরা - সমিতি সংবাদ - দৈনিকশিক্ষা

চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ প্রত্যাহার না হলে রাজপথে নামবেন শিক্ষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক |

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী অবসর সুবিধা বোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের চাঁদার হার ৬ শতাংশের পরিবর্তে ১০ শতাংশ করার আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন কয়েকটি শিক্ষক সংগঠনের নেতারা। তারা বলেছেন, নাটকীয়ভাবে চাঁদা বৃদ্ধির এ আদেশ প্রত্যাহার করা না হলে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীরা রাজপথে নামতে বাধ্য হবেন। মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) দৈনিকশিক্ষা ডটকমে পাঠানো বাংলাদেশ অধ্যক্ষ পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান স্বাক্ষরিত  এক বিবৃতিতে এ দাবি জানানো হয়। একই দাবি করেন বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির নেতা অধ্যক্ষ ইসহাক হোসেন, অধ্যক্ষ মো: হারুনুর রশীদ পাঠানসহ অন্যান্যরা। 

অপর এক বিবৃতিতে  মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষা জাতীয়করণ লিয়াজোঁ কমিটির নেতারাও আন্দোলনের হুমকি দিয়েছেন। সংগঠনের সদস্য সচিব প্রদীপ কুমার সাহা স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে অবিলম্বে বর্ধিত চাদার আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। বিবৃতিদাতারা হলেন, লিয়াজোঁ কমিটির আহবায়ক ড. মো. ইদ্রিস আলী, সদস্য সচিব প্রদীপ কুমার সাহা, যুগ্ম আহ্বায়ক জসিম উদ্দিন আহমেদ ও অধ্যক্ষ মো. নূরুল ইসলাম।

বিবৃতিতে বলা হয়, ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের নভেম্বর মাসে শিক্ষক বা শিক্ষক প্রতিনিধিদের সাথে কোনো প্রকার আলোচনা ছাড়াই প্রথমে এক আদেশের মাধ্যমে এই চাঁদা বৃদ্ধি করা হয়েছিলো। সারাদেশের শিক্ষক-কর্মচারীদের আন্দোলনের মুখে সরকার তখন এ আদেশ স্থগিত করেন। পরবর্তীতে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে হঠাৎ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে পুনরায় আদেশটি প্রকাশ করা হলেও পরে ওয়েবসাইট থেকে আদেশ প্রত্যাহার করা হয়। কিন্তু গত ১৪ জানুয়ারি অনেকটা আকস্মিকভাবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে কারিগরি শিক্ষাবোর্ড পুনরায় চাঁদা বৃদ্ধির আদেশ জারি করে। 

বিবৃতিতে শিক্ষক নেতারা আরও বলেন, অবসর সুবিধাবোর্ড ও কল্যাণ ট্রাস্টের চাঁদা বৃদ্ধি নিয়ে বার বার যেটি করা হচ্ছে সেটা শিক্ষক-কর্মচারীদের সাথে লুকোচুরির শামিল। তাঁরা বার বার এ ধরনের আদেশ জারি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। আদেশটি বার বার স্থগিত না করে বাতিল করার জোর দাবি জানান। 

প্যানেলে শিক্ষক নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি - dainik shiksha প্যানেলে শিক্ষক নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি ‘টেনশনে’ হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে আহমদ শফীর মৃত্যু, দাবি ছেলের - dainik shiksha ‘টেনশনে’ হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে আহমদ শফীর মৃত্যু, দাবি ছেলের শিক্ষা জাতীয়করণে কার বেশি লাভ? - dainik shiksha শিক্ষা জাতীয়করণে কার বেশি লাভ? ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে ডিপ্লোমা-ভোকেশনাল ক্লাসের রুটিন - dainik shiksha ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে ডিপ্লোমা-ভোকেশনাল ক্লাসের রুটিন চাকরি সরকারি অবসর বেসরকারি: সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের বোবাকান্না - dainik shiksha চাকরি সরকারি অবসর বেসরকারি: সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের বোবাকান্না হাটহাজারী মাদরাসা পরিচালনায় সিনিয়র ৩ শিক্ষক - dainik shiksha হাটহাজারী মাদরাসা পরিচালনায় সিনিয়র ৩ শিক্ষক শিক্ষার ক্ষতি পোষাতে বিশেষ প্রকল্প - dainik shiksha শিক্ষার ক্ষতি পোষাতে বিশেষ প্রকল্প please click here to view dainikshiksha website