ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন: শোকজের পর আতঙ্কে সেই পাঁচ শিক্ষার্থী - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

ছাত্রীকে যৌন নির্যাতন: শোকজের পর আতঙ্কে সেই পাঁচ শিক্ষার্থী

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি |

ছাত্রীকে যৌন নির্যাতনে অভিযুক্ত শিক্ষক এবং বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত লেখা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে শেয়ার করায় পাঁচ শিক্ষার্থীকে শোকজ নোটিশ দিয়েছে গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নোটিশ পাওয়া ওই পাঁচজন বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (সিএসই) বিভাগের ছাত্র। শোকজ নোটিশ পাওয়ার পর থেকেই আতঙ্কে রয়েছেন ওই পাঁচ শিক্ষার্থী। 

ওই পাঁচ শিক্ষার্থীর একজন বলেন, যৌন নিপীড়ন বন্ধ নিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক জোবাইদা নাসরিনের একটি লেখা তিনি তার ফেসবুক টাইমলাইনে শেয়ার করেন। ফেসবুকে অশালীন পোস্ট দেওয়ার কারণে তাকে শোকজ নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, 'ফেসবুকে আমি আমার নিজস্ব কোনো মতামত বা মন্তব্য প্রকাশ করিনি। এ সংক্রান্ত দায় আমার নেই। পাঁচ কার্য দিবসের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে। এ ঘটনার পর আমি হতাশ। অজানা আতঙ্কে আমার দিন কাটছে। এখন কী হবে জানি না।

সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান সহকারী অধ্যাপক মো. আক্কাস আলীর বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ এনে গত মার্চে বিভাগের দুই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ দেন। এ ঘটনা ফেসবুকে ভাইরাল হয়। এরপর প্রতিবাদে ও অভিযুক্ত শিক্ষককে স্থায়ী চাকরিচ্যুত করার দাবিতে শিক্ষার্থীরা গত ৭ এপ্রিল থেকে ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন শুরু করেন। আন্দোলনের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম খানকে সভাপতি করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। ওই কমিটি ১৮ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা বোর্ডের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। প্রতিবেদন পাওয়ার পর শৃঙ্খলা বোর্ড অভিযুক্ত শিক্ষক মো. আক্কাস আলীকে বিভাগীয় প্রধানের পদ থেকে আজীবন বহিষ্কার করে। পাশাপাশি জানুয়ারি-জুন ২০১৯ হতে জুলাই-ডিসেম্বর ২০২২ পর্যন্ত ৮ সেমিস্টারের জন্য একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

তদন্ত কমিটির প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আবদুর রহিম খান বলেন, 'আমি পাঁচ শিক্ষার্থীকে ডেকে কথা বলেছি। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর নয়। তারা কেউ কেউ ফেসবুকে শেয়ার, লাইক ও স্ট্যাটাস দিয়েছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে। আবার কেউ কেউ শিক্ষকদের নিয়ে আপত্তিকর স্ট্যাটাস দিয়েছে। এতে শিক্ষকরা অসম্মানিত বোধ করেছেন। শিক্ষকদের মানহানিকর স্ট্যাটাসও দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে শিক্ষক ও শিক্ষিকারা আপত্তি করেছেন। কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সুপারিশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা বোর্ডের কাছে তদন্ত প্রতিবেদন পেশ করেছি। এতে করে শিক্ষার্থীরা তাদের পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপনের সুযোগ পাবে।'

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষার্থীরা জানান, হয়রানি করতেই ওই শিক্ষার্থীদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। যে শিক্ষার্থী লেখা শেয়ার করেছেন তার কোনো অপরাধ দেখছেন না তারা। তাই তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ন্যায়বিচার প্রত্যাশা করেছেন। গত ৯ মে সিএসই বিভাগের ছাত্র মেহেদী হাসান, বিষ্ণু চন্দ্র সরকার, মো. মেজবাউল হাসান, মো. রাশেদুজ্জামান সিকদার ও সুকান্ত কুমার ঘোষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও শৃঙ্খলা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন বলেন, 'ওই পাঁচ শিক্ষার্থী ফেসবুকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ধরনের স্ট্যাটাস দিয়েছে। এ ছাড়া নারী শিক্ষকদের নিয়ে অশালীন স্ট্যাটাস দিয়েছে। এ ব্যাপারে শিক্ষক-শিক্ষিকারা আমার কাছে অভিযোগ করেছেন।'

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের স্ট্যাটাসের বিষয়টি তদন্তের জন্য ১৩ জন শিক্ষকের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত শেষে ওই পাঁচ শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন দিয়েছে কমিটি। তাই তাদের কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তবে এখানে শিক্ষার্থীদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ রয়েছে। যদি কোনো শিক্ষার্থী নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে পারেন, তবে তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। উপাচার্য জানান, ওই শিক্ষার্থীদের মধ্যে একজন নারী শিক্ষকদের নিয়ে অবমাননা ও আপত্তিকর স্ট্যাটাস দিয়েছে। শিক্ষকদের নিয়ে যে শিক্ষার্থী এমন স্ট্যাটাস দেয় তার শাস্তি হবে।

স্নাতক ছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নয়: প্রজ্ঞাপন জারি - dainik shiksha স্নাতক ছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নয়: প্রজ্ঞাপন জারি নবসৃষ্ট পদে এমপিও জটিলতা নিয়ে যা বললেন শিক্ষকরা (ভিডিও) - dainik shiksha নবসৃষ্ট পদে এমপিও জটিলতা নিয়ে যা বললেন শিক্ষকরা (ভিডিও) জেএসসি-জেডিসির ১২ নভেম্বরের পরীক্ষাও স্থগিত - dainik shiksha জেএসসি-জেডিসির ১২ নভেম্বরের পরীক্ষাও স্থগিত অনার্স ২য় বর্ষ পরীক্ষার সংশোধিত সূচি - dainik shiksha অনার্স ২য় বর্ষ পরীক্ষার সংশোধিত সূচি এমপিওভুক্তি : ভুল প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রস্তুত - dainik shiksha এমপিওভুক্তি : ভুল প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রস্তুত অতিরিক্ত ক্লাসের নামে স্কুল কক্ষেই চলে কোচিং - dainik shiksha অতিরিক্ত ক্লাসের নামে স্কুল কক্ষেই চলে কোচিং ভোকেশনাল সমাপনী পরীক্ষার সংশোধিত সূচি - dainik shiksha ভোকেশনাল সমাপনী পরীক্ষার সংশোধিত সূচি আলিমের সিলেবাস ও মানবণ্টন দেখুন - dainik shiksha আলিমের সিলেবাস ও মানবণ্টন দেখুন শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website