জবি শিক্ষার্থীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে মানববন্ধন - বিশ্ববিদ্যালয় - দৈনিকশিক্ষা

জবি শিক্ষার্থীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক |

হত্যা মামলায় কারাগারে থাকা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মনির হোসেনের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। রবিবার (১৯ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে এই দাবি জানান তারা।

জানা যায়, গত ২৭ জুন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার ভোলাই মুন্সিকান্দি গ্রামে জমি নিয়ে বিবাদের জের ধরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে রিয়াজ মাদবর (১৭) নামে এক কিশোর গুরুত্ব আহত হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রিয়াজ মারা যায়।

পরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ৪১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৪০/৫০ জনের নামে লিটন মাদবর বাদী হয়ে মামলা দায়ের করে। ৩০ জুন দুপুরে মনিরকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।  এই মামলার এজাহারে নাম না থাকা সত্ত্বেও মনিরকে অজ্ঞাত আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ। এরপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, 'মনির আমাদের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের একজন ছাত্র। এই লকডাউনের জন্য সে গ্রামের বাড়িতে ছিল। তার সাথে বাদী বা বিবাদী পক্ষের কারো সাথে কোনো সংযোগ ছিল না। সে তৃতীয় পক্ষের লোক এবং ঘটনার দিন সে ঘরেই অবস্থান করছিল। কিন্তু প্রহসনমূলকভাবে এই হত্যার ঘটনায় তাকে অজ্ঞাতনামা আসামি হিসেবে আটক করা হয়। এখন তাকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। আমরা অনতিবিলম্বে মনিরের মুক্তি চাই। এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।'

মনিরের ভাই সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমাদের গ্রামে জমিজমা ও স্থানীয় নেতৃত্ব নিয়ে প্রায় সময় মারামারি লাগত। গত ২৬ জুন এসব ঘটনার জেরে দুপক্ষের সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় রিয়াজ আলী মাতবর (১৭) নামে একজন নিহত হয়। একজন নিহত হওয়ার পর নিহত পক্ষের লোকজন হত্যাকারী পক্ষের লোকজনদের বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। এ ঘটনায় কোন পক্ষে আমাদের পরিবার যুক্ত ছিলাম না। আমার ভাই ওই সময় বাড়িতে অবস্থান করছিল। কিন্তু এসব ঘটনায় একটি পক্ষ বাণিজ্যের আশ্রয় নেয়। স্থানীয় নিহত পক্ষের একজন মাতবর মামলায় নাম দেয়ার ভয় দেখিয়ে অনেকের কাছে টাকা পয়সা নেয়। ওই মাতবর আমার বাবার কাছে তিন লাখ টাকা দাবি করে। না হলে আমাদের পরিবারের কাউকে মামলায় নাম দিবে বলে হুমকি দেয়। 

তিনি আরও বলেন, 'পরে ৩০ জুন আমার ভাইকে পুলিশ আটক করে। এ সময় তাকে থানা থেকে ছাড়া হবে বলে আবার টাকা দাবি করে। আমার বাবা এ সময় দুই লাখ টাকা দেয়ার জন্য রাজি হয়। তখন স্থানীয় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইসমাইল মোল্লার সাক্ষীতে ১ লাখ টাকাও দেয়া হয়। কিন্তু ১ জুলাই আমার ভাইকে কোর্টে চালান করে দেয়া হয়। আমার নির্দোষ ভাইয়ের মুক্তি চাই। দোষীদের শাস্তি চাই।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত উচ্চতর গ্রেড পাচ্ছেন ৬ হাজার ৪১০ শিক্ষক - dainik shiksha উচ্চতর গ্রেড পাচ্ছেন ৬ হাজার ৪১০ শিক্ষক সরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা জারি - dainik shiksha সরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা জারি ‘সরকারিকরণের আদেশ জারির দিন থেকে শিক্ষকদের আর্থিক সুবিধা দেয়ার চেষ্টা চলছে’ - dainik shiksha ‘সরকারিকরণের আদেশ জারির দিন থেকে শিক্ষকদের আর্থিক সুবিধা দেয়ার চেষ্টা চলছে’ দুর্নীতিবাজ কর্মচারীরা ফিরে আসছে শিক্ষা ভবনে, মাদরাসা শাখার কাজ কি? - dainik shiksha দুর্নীতিবাজ কর্মচারীরা ফিরে আসছে শিক্ষা ভবনে, মাদরাসা শাখার কাজ কি? রিফাত হত্যা মামলা : মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি, খালাস ৪ - dainik shiksha রিফাত হত্যা মামলা : মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসি, খালাস ৪ টাইমস্কেল পাওয়া অধিগ্রহণকৃত স্কুল শিক্ষকদের টাকা ফেরত নেয়ার কাজ শুরু - dainik shiksha টাইমস্কেল পাওয়া অধিগ্রহণকৃত স্কুল শিক্ষকদের টাকা ফেরত নেয়ার কাজ শুরু বিনা প্রয়োজনে কলেজ ক্যাম্পাসে জনসাধারণের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি - dainik shiksha বিনা প্রয়োজনে কলেজ ক্যাম্পাসে জনসাধারণের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি ক্যামব্রিয়ান কলেজের ভ্যাট ফাঁকি, গোয়েন্দাদের অভিযান - dainik shiksha ক্যামব্রিয়ান কলেজের ভ্যাট ফাঁকি, গোয়েন্দাদের অভিযান কোচিং ও পরীক্ষা নিয়ে সাংবাদিকদের যা জানাল মন্ত্রণালয় - dainik shiksha কোচিং ও পরীক্ষা নিয়ে সাংবাদিকদের যা জানাল মন্ত্রণালয় please click here to view dainikshiksha website