জরুরি বৈঠকে ভিকারুননিসার সব শিক্ষক - বিবিধ - Dainikshiksha

জরুরি বৈঠকে ভিকারুননিসার সব শিক্ষক

নিজস্ব প্রতিবেদক |

অভিভাবকসহ শিক্ষকদের কাছে অপমানিত হয়ে নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যা ও একজন শিক্ষক গ্রেফতার ও তিনজনের বরখাস্তের প্রেক্ষিতে জরুরি বৈঠকে বসেছেন ভিকারুননিসা নূন স্কুলের শিক্ষকরা। পরিচালনা পর্ষদের সবাই বৈঠকে উপস্থিত রয়েছেন। অরিত্রির আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলায় গ্রেফতার হয়েছেন হাসনা হেনা নামে একজন শ্রেণি শিক্ষিকা।

সোমবার দুপুরে অরিত্রির আত্মহত্যার পর গত মঙ্গলবার থেকে উত্তপ্ত দেশের অন্যতম সেরা এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

শিক্ষকরা আজ যে বৈঠকে বসেছে সেখানে যেসব বিষয়ে আলোচনা হতে পারে তার মধ্যে রয়েছে- গ্রেফতার শিক্ষকের মুক্তি, নতুন করে কাউকে গ্রেফতার না করা, শিক্ষকদের সম্মান রক্ষার্থে কমিটির ভূমিকা ইত্যাদি বিষয়। 

তিন শতাধিক শিক্ষক বৈঠকে উপস্থিত আছেন বলে শাহীনুর নামের একজন শিক্ষক দৈনিক শিক্ষাকে জানিয়েছেন। নিউ বেইলি রোডে প্রতিষ্ঠানটির মূল ক্যাম্পাসে এ বৈঠক চলছে। আজিমপুর, বসুন্ধরা ও ধানমন্ডি শাখার শিক্ষকরাও বৈঠকে যোগ দিয়েছেন। বিভিন্ন শাখা মিলে এ প্রতিষ্ঠানে সাড়ে ছয় শতাধিক শিক্ষক রয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচছুক একজন সিনিয়র শিক্ষক বলেন, আমরা নানভাবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের দ্বারা লাঞ্ছিত হচ্ছি। আমরা শিক্ষার্থীদের মানুষ করি অথচ আমাদের হত্যাকারী বলে ধিক্কার দেয়া হচ্ছে। ঘর-সংসার রেখে আমরা শিক্ষার্থীদের মানুষ করার দায়িত্ব পালন করি।

এদিকে আজ বৃহস্পতিবার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আগের দিনের চেয়ে কম হওয়ায় আন্দোলনে নামা নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে তারা। তবে আর আন্দোলনে নামার পক্ষে নন অনেক অভিভাবক। এই অভিভাবকরা বলছেন, আমাদের দাবি পূরণ হয়েছে। নতুন করে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সুনাম নষ্ট করতে চাই না। আমরা সবাই মিলে প্রতিষ্ঠানটি গুছিয়ে নিতে চাই। তবে, কতিপয় অভিভাবক আন্দোলনে আগ্রহী বলে জানা গেছে। 

সোমবার দুপুরে রাজধানীর শান্তিনগরের নিজ বাসায় ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয় অরিত্রি। মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল (ঢামেক) কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অরিত্রির আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে গতকাল তারা বাবা দিলীপ অধিকারী বলেছিলেন, অরিত্রির স্কুলের বার্ষিক পরীক্ষা চলছিল। রোববার সমাজবিজ্ঞান পরীক্ষা চলার সময় তার কাছে একটি মোবাইল ফোন পাওয়া যায়। এজন্য স্কুল কর্তৃপক্ষ আমাদের ডেকে পাঠায়। সোমবার স্কুলে গেলে স্কুল কর্তৃপক্ষ আমাদের জানায়, অরিত্রি মোবাইল ফোনে নকল করছিল, তাই তাকে বহিষ্কারের (টিসি) সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। স্কুল কর্তৃপক্ষ আমার মেয়ের সামনে আমাকে অনেক অপমান করে। এই অপমান এবং পরীক্ষা আর দিতে না পারার মানসিক আঘাত সইতে না পেরে সে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়। বাসায় ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দেয় অরিত্রি।

এ ঘটনার পর মঙ্গলবার রাত ১০টায় রাজধানীর পল্টন থানায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখার প্রধান জিনাত আক্তার ও শ্রেণি শিক্ষিকা হাসনা হেনার বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচণার মামলা দায়ের করেন অরিত্রির বাবা।

এরপর শিক্ষামন্ত্রণালয় ওই তিন শিক্ষককে বরখাস্তোর নির্দেশ দেয়। রাতে গ্রেফতার হন হাসনা হেনা।

ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে বিতর্ক - dainik shiksha ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে বিতর্ক প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: ৫ দিন আগে অ্যাডমিট না পেলে যা করবেন - dainik shiksha প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: ৫ দিন আগে অ্যাডমিট না পেলে যা করবেন নতুন সূচিতে কোন জেলায় কবে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা - dainik shiksha নতুন সূচিতে কোন জেলায় কবে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website