please click here to view dainikshiksha website

জেএসসি পরীক্ষা দিতে না দিলে স্কুলের পাঠদানের অনুমতি বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক | আগস্ট ৮, ২০১৭ - ১০:২৪ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

চলতি বছরের অষ্টম শ্রেণির জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষার অনলাইনে আবেদন ফরম পূরণ আজ মঙ্গলবার শেষ হচ্ছে। অষ্টম শ্রেণির সব শিক্ষার্থীকে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষায় অংশ নিতে দিতে হবে। স্কুল কর্তৃপক্ষ এ পরীক্ষার জন্য কোনো ধরনের বাছাই পরীক্ষা বা নির্বাচনী পরীক্ষা নিতে পারবে না। নির্বাচনী পরীক্ষায় কেউ পাস না করলে তাকে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধা দিলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে আন্তঃবোর্ড সমন্বয় কমিটি।

আগামী ১ নভেম্বর থেকে আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে জেএসসি এবং মাদরাসা বোর্ডের অধীনে জেডিসি পরীক্ষা শুরু হবে। অষ্টম শ্রেণির প্রায় ২৫ লাখ শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নেবে। রাজধানীসহ বিভিন্ন শহরের নাম করা স্কুল ও মাদরাসা নির্বাচনী পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পারলে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার সুযোগ দিচ্ছে না। শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা এ ধরনের অভিযোগ করছে বোর্ডে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার বলেন, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার জন্য কোনো ধরনের নির্বাচনী পরীক্ষার নেয়ার বিধান নেই। অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা হিসেবে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা নেয়া হয়। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতির জন্য নির্বাচনী পরীক্ষা নিলে শিক্ষা বোর্ড নিষেধ করবে না। কিন্তু নির্বাচনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে কোনো শিক্ষার্থীকে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধা দিলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোনো অভিভাবক এ ধরনের অভিযোগ জানালে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠদান বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নেবে শিক্ষা বোর্ড।

তিনি বলেন, এ ধরনের কিছু অভিযোগ আমাদের কাছেও এসেছে। তবে, কোনো স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেলেই তাদের বিরুদ্ধে শিক্ষা বোর্ড ব্যবস্থা নেবে। আবেদনকারী সব শিক্ষার্থীকেই চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নেয়ার সুযোগ দিতে হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার আরো জানান, ১ নভেম্বর থেকে ১৮ নভেম্বরের মধ্যে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার সময়সূচির প্রস্তাব করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। এবার জেএসসিতে ২১ লাখ স্কুল শিক্ষার্থী এবং জেডিসিতে ৪ লাখ মাদরাসা শিক্ষার্থী অংশ নিতে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ২৭টি

  1. মোঃআবুল হোসেন says:

    আমি আপনাদের সাথে একমত।আমিও অনেকবার এধরনের ছাত্র/ছাত্রীদের হয়রানি মুলক কথা শুনেছি,এমনকি মডেল টেস্ট এ ফেল করা বিষয় প্রতি অতিরিক্ত টাকা জরিমানা নেওয়া হয়।এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতি কঠর ব্যবস্তা নেওয়া প্রয়জন বলে আমি মনেকরি।

  2. সাইদুর রহমান says:

    এ প্রসঙ্গে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার বলেন, জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষার জন্য কোনো ধরনের নির্বাচনী পরীক্ষার নেয়ার বিধান নেই। অষ্টম শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা হিসেবে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা নেয়া হয়। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতির জন্য নির্বাচনী পরীক্ষা নিলে শিক্ষা বোর্ড নিষেধ করবে না। কিন্তু নির্বাচনী পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে কোনো শিক্ষার্থীকে চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধা দিলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়া হবে। কোনো অভিভাবক এ ধরনের অভিযোগ জানালে ওই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠদান বাতিলসহ কঠোর ব্যবস্থা নেবে শিক্ষা বোর্ড। সিদ্ধান সঠিক কিন্তু অনেক স্কুল পাশের হার শতভাগ দেখানেরার জন্য এইরকম করে থাকে। এই সমস্ত স্কুলের বিরুদ্ধে ব্যাস্থা নেয়া দরকার। হেডমাস্টারা আমাদের কথা শুনেনা ? কোথায় অভিযোগ করব। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অভিযোগ শাখার ই-মেইল আইডি দরকার।

  3. MD Yasin Mia says:

    আমি মনে করি এই নিয়মটা হলে অনেক ভালো হবে। কেননা অনেক প্রতিষ্ঠান ছাত্র ছাত্রীদের পেল করিয়ে প্রতি বিষয়ে ২০০ টাকা করে জরিমানা করেন। এটা তো সরকারি কোন আইন নয়? এটাই তাদের ব্যবসা।

  4. এম.সোলায়মান এম.এ says:

    এরকমের ঘটনা হাজারও স্কুলে আছে যেমন পরীক্ষার ফি যেখানে ১০০টাকা আর সেখানে যদি ১২০০-১৫০০টাকা ধরা হয় তখন অভিভাবকরা বলেন আমার পক্ষে ১৫০০ টাকা দিয়ে তেমাকে পরীক্ষা দেওবনা তখন করার কি আছে?
    রাংগাবালী,পটুয়াখালী

  5. mohit sarkar says:

    ব্যবস্তা নিবে কে? সরিষার মধ্যেই যে ভুত!
    অভিযোগ করতে গেলেই অভিযুক্ত হতে হয়।

  6. আব্দুলা says:

    আমার ভাই অষ্টম শ্রেণীতে পড়ে।
    কিন্তুু বাচাই করে তাকে বাদ দিয়ে দিছে।
    এখন আমার কি করা উচিত।

  7. মোঃ আব্দুল জলীল says:

    বোর্ড জানে কোন প্রতিষ্ঠানে কতজন সম্ভাব্য শিক্ষার্থী। তো কোনো প্রতিষ্ঠান কিছু শিক্ষার্থী বাদ দিয়ে ফরম পূরন করছে কেন? সেই জবাবতো নিতে পারেন। জবাব নেয়না দেখে প্রধানরা ইচ্ছে মত শিক্ষার্থী বাছাই করে পাসের হার বাড়ানোর লক্ষে ফরম পূরন করছে।

  8. ভূপাল প্রামানিক, প্র:শি: নামুজা উচ্চ বি: & সেক্রেটারি, বা: প্রধান শিক্ষক সমিতি, বগুড়া সদর। 01711 515468 says:

    Ok,

  9. Md. Mustafizur Rahman says:

    কোন প্রতিষ্ঠানে কতজন পরীক্ষার্থী াআর কতজনের ফরম ফিলাপ করা হয়েছে, সব ডকুম্যান্ট বোর্ডে আছে। সেই ডকুম্যান্ট অনুযায়ী শাস্তির ব্যবস্থা নিলে এই দুরাবস্থার অবসান হবে।

  10. sanu says:

    Agrani high school bank town savar Dhaka JSC der nikot theke form fill up babod 500 taka nichhe

  11. প্রকাশ চন্দ্র বিশ্বাস says:

    পাস করানোর দায়িত্বটা কে নিবে?

  12. প্রকাশ চন্দ্র বিশ্বাস says:

    তাহলে তো সবাইকে পাস করানোর দায়িত্বওটাও নিতে হয়।

  13. ABU SUFIAN.. assistant teacher..Patanusher high school. Kamalgonj.Moulvibazar says:

    ১৩/১১/১১ এর কালো প্রজ্ঞাপন বাতিল করে সকল শাখা শিক্ষক দের এম,পি,ও দিন।।
    ব্যবসায় শাখাকে মূল প্যাট্যার্ন ভুক্ত করে শুন্য পদ হিসেবে ঘোষনা করে এ শাখার সকল শিক্ষক দের এম,পি,ও দিন।।

  14. Didar says:

    এতে ভাল ও মন্দ দুটো দিক আছে।
    ব্যবস্তা নিবে কে? সরিষার মধ্যেই যে ভুত !
    অভিযোগ করতে গেলেই অভিযুক্ত হতে হয়।

  15. রাহি says:

    সরকারের এই ব্যবসা বাদ দিন জে,এস,সি পরীক্ষা বাতিল করুণ।

  16. Ataur Rahman says:

    Thanks. Apnaderke Asonkho Thanks.

  17. পবিত্র কুমার রায় সহকারী শিক্ষক(গণিত) বেতুড়া দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয় says:

    কোনটা চান কোয়ালিটি না কোয়ানটিটি না শোকচ——-

  18. পবিত্র কুমার রায় সহকারী শিক্ষক(গণিত) বেতুড়া দ্বি-মূখী উচ্চ বিদ্যালয় says:

    কোনটা চান কোয়ানটিটি না কোয়ালিটি না শোকচ

  19. মোঃ সাজ্জাদুর রহমান,লক্ষীপুর স্কুল ও কলেজ says:

    ভাল উদ্যোগ, এর ফলে কমলমতি শিক্ষার্থীর মানসিক চাপ কমবে। ধ্যন্দবাজ প্রতিষ্ঠানের অর্থ উপার্জন কমবে,পাশাপাশি ভাল মানের প্রতিষ্ঠান যাচাই হবে।

  20. মোঃ দিদারুল আলম says:

    পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, মাধ‌্যমিক ও উচ্চ মাধ‌্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন ফরম ফিলাপের সময় আরও কয়েকদিন বৃদ্ধি করার জন‌্য। বোর্ডের এই সিদ্ধান্তের কারনে অনেক অভিভাবক যারা আগে যোগাযোগ করে নাই অর্ধ বার্ষিক পরীক্ষায় নিজেদের ছেলে মেয়েরা বেশী খারাপ করায়। দৈনিক শিক্ষা ডটকম এ জেএসসি রেজিঃ ধারী সকলকে জেএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের সুযোগ দিতে হবে এই খবরে অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করছে। কিন্তু খবরটি ফরম ফিলাপের শেষ দিনে প্রকাশ পাওয়ায় অনেক প্রতিষ্ঠানের এখন কিছু করার সুযোগ নাই। এমতাবস্থায় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, মাধ‌্যমিক ও উচ্চ মাধ‌্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন ফরম ফিলাপের সময় আরও কয়েকদিন বৃদ্ধি করার জন‌্য।

  21. Sajib says:

    Amar nephew aibar half yearly exam a math a fail korate take form fill up korte deya hoy no. Akhetre ki kono step neya have

  22. প্রনব দাস says:

    কোন কোন প্রতিষ্ঠান অর্ধেক ছাত্র ছাত্রীকেও ফরম ফি্লাপের সুযোগ দিচ্ছেনা।

  23. M R Shah says:

    আমি খুব বিপদে অাছি।অামার ছেলে রাজ ক্যন্ট পাব স্কুলে পড়ে।স্কুল কতৃপক্ষ ৮০% নম্বর ছাড়া সেন্টার অাপ করবে না মরমে অভিভাবক এর নিকট বন্ড নিয়েছে।এবং ছাত্র ও অভিভাবক গনের উপর মানসিক চাপ সৃষ্টি করছে। পরামশ` চাই।

  24. জাহিদ says:

    ধন্যবাদ, দৈনিক শিক্ষা ডট কমকে। আপনাদের উপরোক্ত সংবাদটি প্রচারে ১২১ জন শিক্ষার্থীর ঝরে পড়া রোধ ফেল। না হয় তাদের জীবনে ঘোর অন্ধকার নেমে আসতো। কুমিল্লা জেলার লাকসাম উপজেলার আজগরা হাজী আলতাপ আলী হাই স্কুলে যার ইন ১০৫৯৬২. যার প্রমান বিলম্ব ফি এ এই প্রতিষ্ঠান কত জন শিক্ষার্থী ফরম জমা হলো।

  25. হুমায়ুন কবির says:

    খোদ রাজধানিতেই কতো শিক্ষার্থীকে আটকে দেয়া হলো ক্ষমতার অন্ধ দাপটে! কী ব্যবস্থা নেয়া হবে ওই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে?!

আপনার মন্তব্য দিন