ডিসি সাহেব, ছাত্রটির গায়ের জামা কই? - বিবিধ - Dainikshiksha

ডিসি সাহেব, ছাত্রটির গায়ের জামা কই?

সিদ্দিকুর রহমান খান |

ইংরেজি deputy commissioner-এর বাংলা প্রতিশব্দ কীভাবে ‘জেলা প্রশাসক’ হয় সে প্রশ্ন আজ তুলছি না। আজ পাবনার জেলা প্রশাসক মো.জসিম উদ্দিনের কাছে জানতে চাইব সপ্তম শ্রেণির সাহসী ছাত্র সুমনের গায়ের জামা কই? আজ (৩রা সেপ্টেম্বর) সমকালে প্রকাশিত ‘সাহসিকতার পুরস্কার পেল সুমন’ শিরোনামের খবরটিতে আমার চোখ আটকে যায় দুপুর বেলা। একজন সাংবাদিকের ফেসবুকে ছবি সম্বলিত খবরটি দেখি। এরপর মূল পত্রিকাটি খুঁজে সংবাদটি বের করি। গুগল ঘেঁটে দেখতে পাই একই পোজের ছবি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের লোগো লাগানো।

ছবির সূত্র সমকাল

পাবনার ডিসি অফিসের ওয়েবসাইটে দেয়া ডিসি মো. জসিম উদ্দিনের ছবির সঙ্গে সমকালে প্রকাশিত ছবির মিল খুঁজে পাই। যেহেতু একাধিক বিশ্বাসযোগ্য গণমাধ্যমে ছবিটি প্রকাশ হয়েছে সেহেতু এর ওপর আমি বিশ্বাস স্থাপন করি। একই সঙ্গে এ নিয়ে ভেতরে ভেতরে জমে ওঠা লেখাটি প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নিই।  

প্রিয় পাঠক, এবার মূল লেখাটি শুরু করি। পাবনার চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র সুমন হোসেন। সে গত ৩১ আগস্ট একটি সাহসী কাজ করেছে। তাদের বাড়ির পাশে চলনবিলে নৌকা ডুবে মরতে বসা ১৭ জনকে একাই উদ্ধার করেছে। তবু তার আফসোস আরও পাঁচজনকে উদ্ধার করতে না পারায়। সেই পাঁচজনের সলিল সমাধি ঘটায় কষ্ট সুমনের। ঘটনা জানতে পেরে সুমনের এই সাহসিকতার পুরস্কার দিয়েছে জেলা প্রশাসন। যতদূর মনে হয় জেলা প্রশাসক কিন্তু নিজের পকেটের টাকা দেননি। জেলা প্রশাসকদের ফান্ডের কথা সচেতন নাগরিকমাত্রই জানেন। সচেতন নাগরিকরা এও জানেন যে এই জেলা প্রশাসক হওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের deputy secretary–রা কি তদবিরটাই না করেন। এই ডেপুটি সেক্রেটারির বাংলা প্রতিশব্দ কিন্তু উপসচিব। উপসচিবরাই ডিসি হিসেবে পদায়ন পেয়ে deputy commissioner বা উপকমিশনার না হয়ে ‘জেলা প্রশাসক’ হয়ে যান। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের একটি জেলার প্রশাসক বনে যান তারা! ভাবতে পারেন, বঙ্গবন্ধুর মতো হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি রাজনীতিবিদের রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে, ডাকে, ত্যাগে, ত্রিশ লাখ আমজনতার শহীদের  বিনিময়ে, লাখ লাখ মা-বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে পাওয়া এই প্রজাতন্ত্র বাংলাদেশ। যদিও কিতাবে আছে সরকারি চাকরিজীবী মাত্রই প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। কর্মকর্তা নন। 

যে ছবিটির জন্য আমাকে এ লেখাটি লিখতে হলো সেই ছবিতে কিন্তু পাবনার জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনকে প্রশাসকের বেশেই দেখা যাচ্ছে। কর্মচারী বা প্রজাতন্ত্রের সেবক হিসেবে নয়। পাঠক, ছবিতে খেয়াল করুন জেলা প্রশাসক সাহেবকে রোদ্দুর থেকে রক্ষা করতে দুইজন ছাতা ধরে রয়েছেন। সুমনকে টাকা দেয়া এবং ডিসির নির্দেশে তার নিজস্ব ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলে তা গণমাধ্যমে প্রকাশ নাটকটি মঞ্চস্থ করা হয়েছে একটা ইঞ্জিনচালিত নৌকার ওপর! এই টাকা হস্তান্তর অনুষ্ঠানটি করা যেত সুমনের স্কুলে। এমনকি ওই উপজেলার আরও কয়েকটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের জড়ো করে। এতে অপরাপর শিক্ষার্থীরা উদ্বুদ্ধ হতো।  

প্রিয় পাঠক, আমি অনুমান করতে পারি গণমাধ্যমে পুরস্কারের সংবাদ প্রকাশের পর ইতিমধ্যে বাহবার সাগরে গা ভাসিয়েছেন জসিম উদ্দিন। কিন্তু ডিসি সাহেব যাদের সংস্পর্শে ও প্রশিক্ষণে উপসচিব হয়ে ডিসি হিসেবে পদায়ন পেয়েছেন তাদের কারো কাছ থেকেই এমন শিক্ষা পাননি যে সপ্তম শ্রেণির একজন ছাত্রের সঙ্গে তিনি ছবি তুলে গণমাধ্যমে প্রকাশ করেছেন কিন্তু ছাত্রটি খালি গায়ে। ডিজিটাল যুগে এই ছবিটি কোটি কোটি মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে। সরকারি ফান্ডের পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে ছবি তুলে নিজের বাহবা নিলেন কিন্তু ডিসির বিবেকে নাড়া দেয়নি যে সুমনকে কমপক্ষে একশ টাকা দিয়ে জামা কিনে দিতে হবে। 

আমার বিশ্বাস অন্যকোনও সুসভ্য দেশ হলে সুমনকে নিয়ে হইচই পড়ে যেত। সুমনকে জাতীয় না হলেও আঞ্চলিক বীর ঘোষণা করা হতো। অনুকরণীয় ছাত্র হিসেবে পাবলিক পরীক্ষার সৃজনশীল প্রশ্নে পাবনার চাটমোহরের সুমনের নামটি আসতো বারবার। সেই ছবি ও খবর দেখে অন্যান্য লাখ লাখ শিক্ষার্থী পরোপকারে উদ্বুদ্ধ হতো। এই ডিসি সাহেব কিন্তু তার বক্তৃতায় জোর গলায় বলেন, তার জেলায় শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার শূন্য। আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল পরিবারের শিক্ষার্থীরা উপবৃত্তির টাকা পায়। কিন্তু লুঙ্গিপরা মলিন মুখের সুমনের দিকে তাকালে কি মনে হয় সুমন উপবৃত্তির টাকা পায়? অথচ সরকারি বিধান অনুযায়ী সুমনদেরকেই যদি উপবৃত্তির টাকা দেয়া হতো তাহলে সপ্তম শ্রেণির সুমনের খালি গায়ে ঘুরে বেড়ানোর কথা না। তাকে টাকা দেবেন ডিসি সাহেব। এটা শুনে অন্তত তার একটামাত্র জামা থাকলে সেটাই গায়ে চাপিয়ে আসার কথা।  নৌকাডুবি ও উদ্ধারের ঘটনা ৩১ আগস্টের আর সুমনকে টাকা দেয়ার ঘটনা ১লা সেপ্টেম্বরের। ডিসি সাহেবের কাছে আমার প্রশ্ন একবারও কি সুমনের কাছে জানতে ইচ্ছে করেনি সুমন খালি গায়ে লুঙ্গি পরে নিয়মিত স্কুলে যায় কিনা? সুমনের স্কুলে কি কোনও ইউনিফর্ম আছে? সেই ইউনিফর্ম কেনার সামর্থ্য সুমনের অভিভাবকের রয়েছে কিনা?    

আমি জানি, মফস্বলের তুখোর সাংবাদিকদের চাপের মুখে রাখা হয়। কিছু সাংবাদিক আবার অনৈতিক সুবিধা পাওয়ার জন্য ইচ্ছে করেই ডিসি-ইউএনওদের দালালি করেন। কাজেই সংশয় রয়েছে, আমার লেখাটি নিয়ে ডিসির সঙ্গে কথা বলার হিম্মত ওই জেলার কোনো সাংবাদিকের রয়েছে কিনা? অন্তত পাবনায় ডিসিগিরি করে জসিম সাহেব একটা কিছু শিখতে পারলেন!

পাঠক, আমার দৃঢ় বিশ্বাস সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুমনকে এই সাহসী কাজটি করতে তাকে তার শ্রেণি শিক্ষক বা পাঠ্যবই কোনও সহায়তা করেনি। তার পরিবার ও নিকটজনদের সংস্পর্শে থেকে পাওয়া বিবেকবোধ, প্রজ্ঞা ও সাহসীকতায় তাকে এ কাজে উৎসাহিত করেছে। আমি বিশ্বাস করি সাহসী সুমনেরা বড় হয়ে একদিন ‘জেলা প্রশাসক’ বদলে ‘জেলা সেবক’ পদ চালু করবে।  সবার গায়ে জামা থাকা নিশ্চিত করবে। আমি জানি এ লেখায় ডিসিদের টনক নড়বে না। তবু লিখে যাই, কারণ, নজরুলের ভাষায়, ‘গাহি গান গাঁথি মালা কন্ঠ করে জ্বালা, দংশিল সর্বাঙ্গে মোর নাগ নাগ বালা’।   

সম্পাদক, দৈনিক শিক্ষাডটকম।         

১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি ৩০ আগস্ট - dainik shiksha ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের প্রিলিমিনারি ৩০ আগস্ট স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের মে মাসের এমপিওর চেক ব্যাংকে - dainik shiksha স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের মে মাসের এমপিওর চেক ব্যাংকে ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে বিতর্ক - dainik shiksha ম্যানেজিং কমিটির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে সংসদীয় কমিটিতে বিতর্ক প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: ৫ দিন আগে অ্যাডমিট না পেলে যা করবেন - dainik shiksha প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: ৫ দিন আগে অ্যাডমিট না পেলে যা করবেন নতুন সূচিতে কোন জেলায় কবে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা - dainik shiksha নতুন সূচিতে কোন জেলায় কবে প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাংকিং নিয়ে যা বললেন ড. জাফর ইকবাল - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাংকিং নিয়ে যা বললেন ড. জাফর ইকবাল সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website