please click here to view dainikshiksha website

ঢাবিকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক | আগস্ট ১৬, ২০১৭ - ৩:২৪ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে (ঢাবি) অস্থিতিশীল করে শিক্ষাবান্ধব পরিবেশ নষ্ট করার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি কেন্দ্রীক সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিক্ষার্থীরা।

বুধবার দুপুরে বৃষ্টি উপেক্ষা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে অংশ নেয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি, ফটোগ্রাফি সোসাইটি, মাইম এ্যাকশন, ট্যুরিস্ট সোসাইটি, আইটি সোসাইটি, প্রভাতফেরি, ব্যান্ড সোসাইটি, রিচার্স সোসাইটি, পরিবেশ সংসদ, লিটারেচার সোসাইটি, স্লোগান-৭১, চলচ্চিত্র সংসদসহ প্রায় ২০টি সংগঠনের প্রতিনিধিরা।

মানববন্ধন থেকে সম্প্রতি সিনেটের বিশেষ অধিবেশনকে কেন্দ্র করে একটি মহলের ষড়যন্ত্র ও ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে বহিরাগতদের দিয়ে আন্দোলনের প্রতিবাদ জানানো হয়। এতে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ফরহাদ উদ্দীন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ব্যান্ড সোসাইটির সভাপতি লালন মাহমুদ, মাইম এ্যাকশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মীর লোকমান, রিচার্স সোসাইটির সভাপতি সাইফুল্লাহ সাদেক, ফটোগ্রাফি সোসাইটির সভাপতি প্যারিস তালুকদার, ডানমুনের সভাপতি মোস্তফা আমির, পরিবেশ সংসদের সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন প্রমুখ। মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি মাহমুদ আব্দুল্লাহ বিন মুন্সি।

ফরহাদ উদ্দীন তার বক্তব্যে বলেন, ঢাবির শান্তিপূর্ণ পরিবেশকে অস্থিতিশীল করে ফায়দা লুটতে চায় একটি কুচক্রী মহল। ক্যাম্পাসের সুষ্ঠু শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করার অপচেষ্টায় লিপ্ত তারা। সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে এই ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে হবে।

ঢাবি নিয়ে অপরাজনীতির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান জানান লালন মাহমুদ। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মী হিসেবে ক্যাম্পাসে সুন্দর ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষার যৌক্তিক দাবি নিয়ে মানববন্ধনে এসেছি। ঢাবিকে নিয়ে কোন ধরনের অপরাজনীতি করার চেষ্টা করে সফল হওয়া সম্ভব নয়। ছাত্র-শিক্ষকসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে এই অপরাজনীতির বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

মীর লোকমান বলেন, ডাকসুর দাবিতে সম্প্রতি বহিরাগতদের নিয়ে একটি আন্দোলন করা হয়েছে যেখানে সাধারণ শিক্ষার্থীর ব্যানার ব্যবহার করা হয়েছে। আমরা ডাকসু চাই। কিন্তু বহিরাগতদের দিয়ে নয় ঢাবির সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে ডাকসুর দাবি জানাতে হবে।

সাইফুল্লাহ সাদেক বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্নভাবে বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে নেতিবাচক প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এসব নেতিবাচক প্রচারণার মাধ্যমে ঢাবির সুনাম ক্ষুণ্ন করার চেষ্টা করা হচ্ছে, যা কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


আপনার মন্তব্য দিন