ঢাবির গেস্টরুমে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে দুই ছাত্রকে মারধরের অভিযোগ - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

ঢাবির গেস্টরুমে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে দুই ছাত্রকে মারধরের অভিযোগ

ঢাবি প্রতিনিধি |

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) দুটি আবাসিক হলের ‘গেস্টরুমে’ ছাত্রলীগ কর্মীরা ফের দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ফোন রিসিভ না করা ও ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ার জের ধরে মারধর করা হয় উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার (১১ অক্টোবর) বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী দুই শিক্ষার্থী।

বুধবার (১০ অক্টোবর) দিবাগত রাত ১১টার দি‌কে বিশ্ববিদ্যালয়ের হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ও স্যার এফ রহমান হলে মারধরের এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার দুই শিক্ষার্থীর একজন হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ও অপরজন স্যার এফ. রহমান হলের শিক্ষার্থী। তারা উভয়ই গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।

মারধরে অ‌ভিযুক্তরা হলেন মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী শাহ ইবনে সোয়াদ ও এফ. রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী মোহাম্মদ রাকিব। তারা উভয়ই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেইনের অনুসারী।

মুহসীন হলে আক্রান্ত ওই শিক্ষার্থী জানান, বুধবার দুপুরে ছাত্রলীগের প্রোগ্রাম শেষে তিনি হলে ফেরেন। এ সময় ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শাহ ইবনে সোয়াদ তাকে ফোন করেন। কিন্তু তিনি ওয়াশরুমে থাকায় ফোন রিসিভ করতে পারেননি। পরে সোয়াদ ক্ষিপ্ত হয়ে তার রুমে এসে তাকে গালিগালাজ করেন এবং তৎক্ষণাৎ হল থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। তবে তিনি হল না ছাড়ায় রাত সাড়ে ১০টায় সোয়াদ তাকে গেস্টরুমে ডেকে নিয়ে গালিগালাজ করেন এবং হল থেকে বেরিয়ে যেতে চাপ দেন। এ সময় ওই শিক্ষার্থী দুঃখপ্রকাশ করেন। তবে সোয়াদ কোনও কথা না শুনে তাকে স্ট্যাম্প দিয়ে মারতে তেড়ে আসেন এবং বেপরোয়া চড়-থাপ্পড় মারতে থাকেন।

এ বিষয়ে হলের প্রাধ্যক্ষ ড. নিজামুল হক ভুঁইয়া জানান, আমরা ঘটনার তদন্তে হাউজ টিউটরদের সমন্বয়ে তিন সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করেছি। কমিটির আহ্বায়ক মোহাম্মদ আইনুল ইসলাম, অন্য দুজন সদস্য হলেন ইমাউল হক সরকার ও এ কে এম ইফতেখারুল ইসলাম। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন সাপেক্ষে আমরা পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

অপরদিকে মারধরের শিকার এফ. রহমান হলের শিক্ষার্থী জানান, বুধবার তিনি ফেসবুকে 'গণরুম' নিয়ে একটি সংবাদের লিংক শেয়ার দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ রাকিব তাকে গেস্টরুমে ডেকে নেন। তবে যেতে দেরি হওয়ায় রাকিব প্রথম বর্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থীকে দিয়ে তাকে জোর করে গেস্টরুমে নিয়ে যান। পরে গেস্টরুমে গেলে স্ট্যাটাস দেওয়ার কারণে গালিগালাজ এবং কাঠের লাঠি দিয়ে তার বুকে আঘাত করেন রাকিব।

তবে মারধরের বিষয়টি অস্বীকার করে রাকিব বলেন, ‘ওই শিক্ষার্থী সিনিয়রদের সালাম না দেওয়ায় তাকে বকাঝকা করা হয়েছিল, মারধর করা হয়নি। আমি তাকে কেবল কাঠ দিয়ে ধাক্কা দিয়ে পিছনে সরিয়ে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে হলের প্রাধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম জানান, ‘আমি ঘটনা সম্পর্কে অবগত হয়েছি। হাউজ টিউটরদের সমন্বয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করবো।’

ঘটনার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেইন বলেন, ‘আমরা ঘটনার তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেও আমরা জানিয়েছি। আমাদের অবস্থান পরিষ্কার, বিশ্ববিদ্যালয়ে কেউ কাউকে মারার অধিকার রাখে না।’

এ দিকে দুপুরে মারধরের শিকার ওই দুই শিক্ষার্থী প্রক্টর বরাবর লিখিত অভিযোগপত্র জমা দেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর একেএম গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘আমি তাদের অভিযোগপত্র পেয়েছি। ঘটনা যেহেতু হলে ঘটেছে তাই হল কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে তদন্ত কমিটি করে আমরা তদন্ত কাজ চালাবো। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মানুসারে ঘটনার বিচার করা হবে।’

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর গেস্টরুমে বিভিন্ন সময় ক্ষমতাসীন সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা আদব-কায়দা শেখানোর নামে শিক্ষার্থীদের ওপর নিপীড়ন চালান বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব ঘটনা বিভিন্ন সময়ে গণম্যাধমের শিরোনামও হয়েছে।  

ঢাকার এসএসসি’র প্রশ্নে ভুলকারী যশোরের ২০ শিক্ষকের শাস্তি - dainik shiksha ঢাকার এসএসসি’র প্রশ্নে ভুলকারী যশোরের ২০ শিক্ষকের শাস্তি কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নে শ্রম বাজারের সাথে সঙ্গতি রেখে কারিকুলাম প্রণয়ন করতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নে শ্রম বাজারের সাথে সঙ্গতি রেখে কারিকুলাম প্রণয়ন করতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী প্রাণসহ ৫ কোম্পানির নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি, সাত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা - dainik shiksha প্রাণসহ ৫ কোম্পানির নিষিদ্ধ পণ্য বিক্রি, সাত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা কলেজের নবসৃষ্ট পদে এমপিওভুক্তির নির্দেশনা - dainik shiksha কলেজের নবসৃষ্ট পদে এমপিওভুক্তির নির্দেশনা একাদশে ভর্তি নিশ্চায়ন করবেন যেভাবে - dainik shiksha একাদশে ভর্তি নিশ্চায়ন করবেন যেভাবে একাদশে ভর্তিতে সর্বোচ্চ ফি ১০ হাজার টাকা - dainik shiksha একাদশে ভর্তিতে সর্বোচ্চ ফি ১০ হাজার টাকা নেপালে স্কুলে চীনা ভাষা শিক্ষা বাধ্যতামূলক! - dainik shiksha নেপালে স্কুলে চীনা ভাষা শিক্ষা বাধ্যতামূলক! জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া সহকারী অধ্যাপক স্কেল পেলেন কারিগরির ১৩ প্রভাষক - dainik shiksha সহকারী অধ্যাপক স্কেল পেলেন কারিগরির ১৩ প্রভাষক শিক্ষক নিবন্ধন: এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের নতুন সিলেবাস দেখুন - dainik shiksha শিক্ষক নিবন্ধন: এগ্রিকালচারাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ের নতুন সিলেবাস দেখুন please click here to view dainikshiksha website