please click here to view dainikshiksha website

দুদকের অভিযানে কোচিংবাজ শিক্ষক চিহ্নিত

নিজস্ব প্রতিবেদক | আগস্ট ৭, ২০১৭ - ৬:৪০ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

রাজধানীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর যেসব শিক্ষক কোচিং বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত তাঁদের বিরুদ্ধে প্রথমবারের মতো অভিযান চালিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গত শনিবার বিকেলে দুদকের একটি তদন্তকারী দল কোচিংবাজ শিক্ষকদের ধরতে এ অভিযান পরিচালনা করে। প্রথম দফায় মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ এবং ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষকদের কোচিং সেন্টারে অভিযান চালায় তারা।

অভিযানে দুদকের টিম সেখানে গিয়ে দেখেছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কোচিং বাণিজ্য বন্ধ নীতিমালা-২০১২ ভঙ্গ করে নিজ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের কোচিং করাচ্ছেন কয়েকজন শিক্ষক। দুদকের টিম প্রাথমিকভাবে তাঁদেরকে মন্ত্রণালয়ের নীতিমালা ভঙ্গ করায় সতর্ক করে দেয়। এ সময় দুদকের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তারা জানান, সতর্ক করার পরও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে যাঁরা কোচিং বাণিজ্যে লিপ্ত থাকবেন তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কমিশনের প্রতিবেদন পেশ করা হবে।

অভিযানের নেতৃত্বে থাকা দুদকের উপপরিচালক মো. ইব্রাহিম সাংবাদিকদের বলেন, ‘যেসব শিক্ষক অবৈধভাবে কোচিং বাণিজ্যের সঙ্গে জড়িত আছেন তাঁদের তালিকা সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই তালিকার পরিপ্রেক্ষিতে তথ্য যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে আমরা প্রাথমিকভাবে শাহজাহানপুর এবং সিদ্ধেশ্বরীসহ বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি করি। এর মাধ্যমে আমরা শাহজাহানপুরে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের কয়েকজন শিক্ষককে কোচিং করাতে দেখি। ’

দুদক সচিব আবু মো. মোস্তফা কামাল বলেন, দুদকের আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। যাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হবে, তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে দুদক।

সরকার কোচিং বাণিজ্য বন্ধে ২০১২ সালে একটি নীতিমালা প্রকাশ করেছে। সেখানে একজন শিক্ষককে তাঁর প্রতিষ্ঠানের বাইরে অন্য কোনো প্রতিষ্ঠানের ১০ জন শিক্ষার্থী পড়ানোর সুযোগ রাখা হয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নির্ধারিত সময়ের আগে বা পরে শুধু অভিভাবকদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রতিষ্ঠান প্রধান অতিরিক্ত ক্লাসের ব্যবস্থা করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে প্রতি বিষয়ে মেট্রোপলিটন শহরে মাসিক ৩০০ টাকা, জেলা শহরে ২০০ টাকা এবং উপজেলা বা স্থানীয় পর্যায়ে ১৫০ টাকা করে রসিদের মাধ্যমে নেওয়া যাবে। দরিদ্র শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান প্রধান নিজ বিবেচনায় এ হার কমাতে বা মওকুফ করতে পারবেন। একটি বিষয়ে মাসে সর্বনিম্ন ১২টি ক্লাস হতে হবে এবং এ ক্ষেত্রে প্রতিটি ক্লাসে সর্বোচ্চ ৪০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করতে পারবে। এই টাকা প্রতিষ্ঠান প্রধানের নিয়ন্ত্রণে একটি আলাদা তহবিলে জমা থাকবে। প্রতিষ্ঠানের পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস ও সহায়ক কর্মচারীর ব্যয় বাবদ ১০ শতাংশ টাকা কেটে রেখে বাকি টাকা অতিরিক্ত ক্লাসে নিয়োজিত শিক্ষকদের মধ্যে বণ্টন করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ৪৩টি

  1. ভূপাল প্রামানিক, প্র:শি: নামুজা উচ্চ বি: & সেক্রেটারি, বা: প্রধান শিক্ষক সমিতি, বগুড়া সদর। 01711 515468 says:

    ঠিক আছে।

  2. মোঃ জায়েদুর রহমান খান প্রঃ শিঃ says:

    নিয়মটি ভালো তবে, সকাল ১০টার আগে কোন মতেই অতিরিক্ত ক্লাস নেওয়া যাবে না । কারন হল শিক্ষার্থীরা সকাল ৬টা থেকে প্রাইভেট/কোচিং করতে বাড়ী থেকে না খেয়ে আসে । গনিত, ইংরেজিসহ অন্যান্য বিষয় পড়ে থাকে । ৩ ঘণ্টা পড়ে দেখা গেছে না খেয়ে আসার কারনে, টিফিনের পড়ে আর ক্লাসে থাকে না । বিষয়টি করতিপক্ষকে ভেবে দেখা উচিত বলে মনে করি ।

  3. Sumon mahmud says:

    দুদুক অভিযান চালিয়ে দুর্নীতিবাজ প্রতিষ্ঠান প্রধানদের চিহ্নত করে শাস্তির ব্যবস্থা করে না কেন?

  4. Md. Eunus Ali, Lecturer in English, Syedpur Bazar Fazil Madrasah, Nabigonj, Habigonj says:

    ডাক্তারদের বিরুদ্ধেও শাস্তি মুলক বেবসথা নেওয়া হোক ।

  5. বিশ্বজিত says:

    এটা কোন অভিযান হলো ? তাo অাবার only রাজধানিতে । এগুলো নাটক sirajgonj শহরে চলে নামিদামি স্কুল কলেজের শিক্ষকের ব্যাচ দিনে ৮/৯টি । প্রতি ব্যাচে student 60থেকে ৬৫ জন । একদিন পর পর । সপ্তাহে প্রতি ব্যাচ ৩ দিন । শিক্ষক ১ জন ।

  6. মোঃ এসকান্দার আলী।সুপার কুতুবপুর সামছিয়া দাখিল মাদরাসা।শিবচর মাদারীপুর। says:

    ঠিক আছে।তবে বাস্তবায়নে আনা প্রয়োজন।আইন করে বাস্তবে রুপ দিতে না পারলে সে আইনের কোন মূল্য
    থাকে না।

  7. MD. JASHIM UDDIN says:

    আপনারা কিছুই করতে পারবেন না। শুধু শুনেই আসছি কোচিং বন্ধ করিবেন, কিন্তু এখনো এদের কে আইনের আওতায় আনতে পারেননি। আর কত মিথ্যা বলে জনগনকে উৎসাহিত করবেন।

  8. IRSHADUL HAQUE SARKAR says:

    এম পি ও ভুক্ত শিক্ষকদের জাতীয় করণ করলে পরে সহজেই কোচিং বানিজ্য নিয়ন্ত্রণ এ আসবে,,,,,,

  9. মুহাম্মদ শাহ আলম says:

    ডাক্তাররা বাইরে রোগী দেখলে হয় প্রাকটিস আর শিক্ষকরা ক্লাশের আগে পরে অবসরে পড়ালে হয় বানিজ্য। ডাক্তার ৫ মিনিটে টাকা নেয় ৫০০/১০০০ আর শিক্ষক ১ মাসে নেয় ৫০০/১০০০। তো দুদকের স্যারদের প্রতি অনুরোধ বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বিষয়টি ভেবে দেখুন।

    • তপন কুমার says:

      দেশের জনগন যেমন আবুল সরকারও তেমন ………। শিক্ষকদের সুযোগ সুবিধার খবর নাই, আছে শুধু আইনের বাহাদুরি। শিক্ষকদের একটা পরামর্শ দেই, কোচিং না করিয়ে গরু কিনে মোটা তাজা করেন অনেক লাভ আছে। কারণ অল্প বেতন দিয়েতো আর সংসার চলবে না।

  10. মোহাম্মদ আলী মন্ডল (এটম), প্রভাষক (গণিত), রাজারহাট ফাজিল(ডিগ্রী) মাদ্রাসা,কুড়িগ্রাম। says:

    অন্ততপক্ষে ১ জন শিক্ষককে আইনের আওয়ায় শাস্থি দিলে সব কোচিংবাজ শিক্ষকরা সতর্ক হবে। ৭ বিভাগীয় শহরে ৭ জনকে শাস্থি দিন। আইন কার্যকর হয়ে যাবে।

  11. জিয়াউর রহমান says:

    সরকারকে বলছিঃ গনিত, পদার্থ, রসায়ন, হিসাব বিজ্ঞান, ইংরেজি শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধি করে দেন। কারন উক্ত শিক্ষকেরা আনেক শ্রম, আনেক টাকা খরচ করে উক্ত বিষয়ের শিক্ষক হয়েছেন।

  12. মোহাম্মদ আলী মন্ডল (এটম), প্রভাষক (গণিত), রাজারহাট ফাজিল(ডিগ্রী) মাদ্রাসা,কুড়িগ্রাম। says:

    মুহাম্মদ শাহ আলম ভাই সঠিক কথা বলেছেন।প্রতিটি সরকারি হাসপাতালে যদি ভালো চিকিৎসা দিত জনগন দুর্ভোগের স্বীকার হতনা। তাই দুদকের কাছে আবেদন মুহাম্মদ শাহ আলম ভাইয়ের কথাটি ভেবে দেখবেন।

  13. মোহাম্মদ আলী মন্ডল (এটম), প্রভাষক (গণিত), রাজারহাট ফাজিল(ডিগ্রী) মাদ্রাসা,কুড়িগ্রাম। says:

    মুহাম্মদ শাহ আলম ভাই আপনার উদ্দেশ্যেঃ ডাক্তাররা সম্ভবত উপর মহলে কিছু দেয় তাদের বালামুছিবৎ ঠেকাতে তাই তাদের কিছু হয়না।

  14. দিলীপ সিকদার,সহকারী প্রধান শিক্ষক,গংগানগর আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজ,শরীয়তপুর। says:

    Right.

  15. এম.সোলায়মান এম.এ says:

    দুদক সবার অভিযোগ গ্রহন করেন কিন্তু আইসিটি স্যারদের অভিযোগ তো কানে নেন না এর জবাব চাই

  16. দিলীপ সিকদার,সহকারী প্রধান শিক্ষক,গংগানগর আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজ,শরীয়তপুর। says:

    Muhamod ali sir right balesen.

  17. hannan miah says:

    দুদকের কাজ অভাবী বে_সরকারি শিক্ষকদের ধরা।যে সব ডা:হাজার হাজার টাকা লুটে নিচ্ছে,এদের ধরবে কে? কোন দেশের দুদক।ভুয়া নিবন্ধন স ন দের অভিযোগ দিলে ব লে প্রমান দেন, অথচ তারা কাগজ যাছাই করলে সত্যতা ১০০%পাবে।প্রতারক না ধরে নিরিহ শিক্ষক ধরতে যাচ্ছে।তবে যারা প্রাইভেট ও কোচিং এ বেশি ফি নিচ্ছে তাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।মাননীয় সরকারের নিক ট প্রাথনা ডাক্তারদের এত বেতন ভাতা তারা প্রাইভেট প্রাকটিস করছে আর শিক্ষকের বাধা।আমরা ভিত!!!!!!!!!!!!

  18. Sayed says:

    ১। কোচিং এর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর দিক হচ্ছে নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র/ছাত্রীদের জিম্মি করে প্রাকটিক্যালের নম্বর বা পরীক্ষায় ফেল করানোর ভয় দেখিয়ে তাদের কোচিং এ আসতে বাধ্য করা। কিন্তু কোচিং বন্ধ নীতিমালায় বলা হচ্ছে ছাত্রছাত্রীদেরকে নিজ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের কাছেই কোচিং করতে হবে। এটা কি প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ছাত্র/ছাত্রী হয়রানীতে সহায়ক নয়?

    ২। আমরা সকলেই জানি প্রায় প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানেই কিছু শিক্ষক আছেন যারা যথেষ্ট মানসম্পন্ন নয়। অথচ প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী কোন ছাত্র/ছাত্রী ঐ বিষয়টা ভালোভাবে শেখার জন্য অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকের কাছে যেতে পারবে না। এতে কি তার শিক্ষা গ্রহণের মৌলিক অধিকার হরণ করা হচ্ছে না?

    ৩। যে দেশে হাজার হাজর নন এমপিও শিক্ষক বিনা বেতনে শিক্ষকতা করেন। সেদেশে ঐ সব নন এমপিও শিক্ষকদের কোচিং করিয়ে পরিশ্রমের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহের পথ বন্ধ করে দিলে শিক্ষার উন্নতি কিভাবে হবে?

    ৪। কোচিং বন্ধ হলে শিক্ষকরা যে উচ্চ মূলে বাসায় টিউশনি শুরু করবে তা দেওয়ার সামর্থ আমাদের দেশের অনেক অভিভাবকেরই নেই। ফলে শিক্ষা কি আরও বেশি করে ধনীশ্রেণীর হাতে চলে যাবে না?

    ৫। যে দেশে একটা ক্লাসে দেড়শ জন ছাত্র/ছাত্রী থাকে সেদেশে কলেজ লেভেলে ক্লাসে বিজ্ঞানের সিলেবাস যথাসময়ে শেষ করা অসম্ভব। কোচিং বন্ধ করে দিলে কি পরীক্ষার ফলাফলে আরও বড় ধরণের বিপর্যয় তৈরী হবে না?

    ৬। ডাক্তাররা যদি সরকারী বেতন পাওয়ার পরও প্রাইভেট প্রাকটিসের মাধ্যমে রোগী দেখতে পারেন তাহলে বেতন বিহীন শিক্ষকরা পরিশ্রম করে কিছু টাকা আয় করলে সরকারের সমস্যা কোথায়?

    ৭। যে শিক্ষক কোচিং করান তিনি একটা বিষয় দিনে দশবার পড়ান আর যে শিক্ষক কোচিং করান না তিনি তা বছরে একবার পড়ান। ফলে স্বভাবতই যিনি কোচিং করান তার পড়ানোর মান অনেক ভালো হবে। কোচিং বন্ধ করলে তা কি দক্ষ শিক্ষক তৈরীর পথে বাধা হয়ে দাঁড়াবে না?

    সবশেষে আমার ছোট্ট একটু মতামত দিয়ে শেষ করি। আমার মনে হয়, সকল বাস্তবতা বিবেচনা করে, বর্জ্র আটুনি ফস্কা গেরো না দিয়ে শুধু দুইটা আইন করাই যথেষ্ট যে,

    (ক) কোন শিক্ষক কোন অবস্থাতেই নিজ প্রতিষ্ঠানের ছাত্র/ছাত্রীদের কোচিং এর নামে পড়িয়ে টাকা নিতে পারবে না।

    (খ) ক্লাসের সময় (সকাল ০৯টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত) কোন প্রকার কোচিং সেন্টার চলবে না।

    আমার ধারণা এর সাথে সাথে প্রত্যেক শিক্ষকের শ্রেণীকক্ষে পাঠদানের বিষয়টা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে পারলে বড় ধরণের কোন সমস্যা ছাড়াই ধীরে ধীরে কোচিং সেন্টার এমনিতেই বন্ধ হয়ে যাবে।

  19. মুন্নাফ হোসেন, সহকারী শিক্ষক(ইংরেজী), মোহাম্মদনগর উচ্চ বিদ্যালয়, ফুলবাড়ীয়া, ময়মনসিংহ। says:

    good job…..

  20. রশিদ আহমদ says:

    ধন্যবাদ দুদকের এই সময়ুপযোগি সিন্ান্ত নেওয়ার জন্য।পরামর্শ থাকবে এটা শুধূ রাজধানিতে সীমাবদ্ধ নারেখে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্টানে এর খুজ রাখা দরকার।বিশেষ করে আমাদের জৈন্তাপুরে কোচিংবাজ শিক্ষক রা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

  21. Sarwar says:

    Only teachers are the target of the authority.An assistant teacher draws only 13200tk monthly.He pays 4000 tk for house rent,800 tk energy bill 1500tk for medicine,15ootk for mobile,1000tk for tea.and the rest for family expenditure. By this so called money, how can a teacher manage his family? Will he beg? steal? Robbery?Or will teach students in free time? When a doctor serves in free time it is called practice but when a teacher serves it is crime.The authority should be careful of any law whenever the act or apply it.A guilty person may be punished but not the whole.Some teachers are greedy for money and make the students fixed to private.. They may ofcourse be punished.Dont hurt any needy teacher or harass any poor teacher.

  22. মোঃ আঃ আলীম ,লোহারটেক উচ্চ বিদ্যালয়,সদরপুর,ফরিদপুর। says:

    শিক্ষক জাতীয় করন করনের জন্য দুদক সহ সবাই সুপারিশ করুন।

  23. অধ্যাপক মোঃ রুহুল আমিন, চলন মহাবিদ্যালয়, জেলা বাকশিস নেতা, কুমিল্লা। says:

    যেখানে সরকারের চিন্তা আছে শিক্ষকদেরকে আলাদা উচ্চতর স্কেল প্রদান– সেখানে কোচিংবাজ শিক্ষক ধরতে দুদকের ফাদ কতটা কার্যকরী হবে। যেসমস্ত শিক্ষকরা ক্লাশ ফাকি দিয়ে ছাত্র- ছাত্রীদেরকে কোচিং এ বাধ্য করছে– সেসমস্ত নামধারী শিক্ষকদেরকে এম পি ও বন্ধসহ কঠিন শাস্তি প্রদান করা হউক। রাস্তা পাকাকরনের নামে শত শত কোটি টাকা দুর্নীতি হচ্ছে, রাস্তার কার্পেটিং করার সাথে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, সরকারের কোটি কোটি গচ্ছা যাচ্ছে, তদারকী নেই, বিভাগীয় ব্যবস্থা নেই– সেদিকে দুদক এর নজর দেয়া উচিত।

  24. মো: আবুল কাশেম সহকারী শিক্ষক লাকেশ্বর দাখিল মাদ্রাসা ছাতক সুনামগঞ্জ says:

    কোচিং সম্পুর্ন বন্ধ করা জরুরী। কিছু নিষেধ কিছু অনুমতি এটা কোন নিয়ম? প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রী জিম্মি করে প্রাইভেট পড়ানো হয় তার কি হবে?

  25. AKHIL KUMAR SAHA says:

    PENNY WISE POUND FOOLISH

  26. MD.Zamal uddin says:

    দুদক এর ক্ষমতা দেখে পুরাতন প্রবাদ মনে পরল :::::নরম কাঠে ছুতারের (কাঠ মিস্ত্রি ) বল ।

  27. anuarul islam says:

    গাইড বই কম্পানি সারা দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে কিনে ফেলেছে, তাতে দুদকের কোন মাথা ব্যথা নেই, আর শিক্ষকের সামান্য প্রাইভেট নিয়ে চিন্তার শেষ নেই।

  28. মোঃ আফজল আলম চৌধুরী, সহকারী অধ্যাপক (হি,বি,) লাউতলী ডাঃ রশীদ আহমেদ উ/বি ও কলেজ, ফরিদগঞ্জ,চাঁদপুর says:

    ঢাকা শহরের কোচিং সেন্টার বন্ধ করলে অনেক ছাত্রছাত্রীর নিজেদের পড়ালেখা বন্ধ করে দিতে হবে , কারণ মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা এসব কোচিং সেন্টারে দৈনিক ২/৪ টা ক্লাস নিয়ে নিজেদের পড়া লেখার খরচ চালায় ।সরকারী বিসিএস (স্বাস্থ্য)ডাক্তাররা অফিস সময়ে /অফিস সময়ের বাইরে অন্যত্র রোগী দেখলে হয় প্রাইভেট প্রাকটিস আর শিক্ষকরা ক্লাশের আগে পরে অবসরে পড়ালে হয় বানিজ্য। ডাক্তার প্রতি ৩ মিনিটে টাকা নেয় ৭০০/১০০০ আর শিক্ষক ১ মাসে নেয় ৫০০/১০০০। তো দুদকের প্রতি অনুরোধ বিতর্কিত সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে বিষয়টি ভেবে দেখুন। একই ডাঃ সরকারী হাসপাতালে রোগী দেখে প্রেসক্রিপশন দিলে ঔষধে কাজ হয় না কিন্তু তাকেই প্রাইভেট প্রেকটিস কালে দেখালে প্রেসস্ক্রীপশন কার্যকর হয় । কী আজব চিকিৎসা ব্যবস্থা ।বেসরকারী শিক্ষকরা প্রাইভেট পড়ালে নজরে আসে কিন্তু সরকারী স্কুল কলেজে এটি এড়িয়ে যাওয়া হয় । সারা দেশে সরকারী স্কুল/কলেজের ফলাফল গড় করলে কি দাঁড়াবে ? অথচ সরকারী কলেজ/স্কুল শিক্ষকদের বিরূদ্ধে বেতন বন্ধ এর কোন ব্যবস্থা নেই । বেসরকারী হলেই এমপিও বন্ধ করার তোড় জোড় শুরু হয় । এ কেমন বিমাতা সূলভ আচরণ ! সকলের জন্য একই নিয়ম প্রয়োগ করুন ।বিসিএস পাশ করে আসা শিক্ষকদের ছাত্রছাত্রী ফেল করবে কেন ? তারা তো বেসরকারীদের চেয়ে যোগ্যতর নিশ্চয় । আমরাও মানি । একই দেশে দূরকম আচরণ ন্যায় সংগত নহে । সকলশিক্ষা ব্যবস্থাকে জাতীয়করণ করে সকলের জন্য সমান সূযোগ করে প্রতিযোগীতামূলক শিক্ষায় উন্নতি অবশ্যই হবে ।প্রতিষ্ঠানে ছাত্রছাত্রী জিম্মি করে প্রাইভেট পড়ানো ঠিক নহে । এ ধরনের শিক্ষকরা ছাত্রছাত্রীদের কাছে ও সম্মান পায় না । বর্তমান ডিজিটাল যুগে ছাত্রছাত্রীরা এটা বুঝে কোন শিক্ষক ক্লাসে ফাঁকি দেয় ।

  29. k.kabir says:

    স্কুল টাইম সকাল ৯টা-৫টা করা হউক, ৯০% ক্লাশে উপস্থিত থাকলে িশক্ষাথী পরীক্ষার অনুমতি পাবে, শিক্ষকদের ৪ আনা বোনাস, ১৫০০টাকা বাড়িভাড়া ও চিকিতসা ভাতা দিয়ে এত আবদার না করে শিক্ষকদের বছরে ৪টি বোনাস, ২টি ইনক্রিমেন্ট,৫০% বাড়িভাড়া দিয়ে মেধাবীদের শিক্ষকতায় টানুন, সকল শিক্ষা বানিজ্য বন্ধ হবে, তারপর না হলে ফাসি দিবেন।

  30. দিলীপ সিকদার,সহকারী প্রধান শিক্ষক,গংগানগর আদর্শ স্কুল এন্ড কলেজ,শরীয়তপুর। says:

    Sob dos ki M.P.O teacher janno. A ki ajb desh.

  31. humayun kabir says:

    এই অভিযানটা ডাঃ দের জন্য ও হওয়া উচিত।

  32. Ashok Paul says:

    First you have to stop the Teacher who is corapted in the school. Second.. ..the teacher who lives at village can’t earn enough money to bear his family coasts. Third.. .it is impossible for the students to study /learn their studies from a teacher walking through three or four miles. So you think about this.

  33. mithun says:

    non govment teacher der j baton ta deya maser 10 din cola o somvob noy.nijader joggotai jodi kisu kora hoy taholae problem ta kotai.

  34. Shofik says:

    শিক্ষকরা কষ্ট করে ছাত্র পড়িয়ে ইনকাম করলে দোষের আর যারা দেশের সম্পদ লুটপাট, ঘুষ বাণিজ্য করে থাকে সেই সকল সরকারী কর্মচারী ও রাজনৈতিক নেতাদের কোন দোষ নেই ।

  35. শাহিনুল ইসলাম। সহকারী শিক্ষক। ফয়লাহাট কামালউদ্দিন মাধ্যমিক বিদ্যালয় says:

    একমাস একজন ছাত্রকে কোচিং করিয়ে একজন শিক্ষক পায় 300/500 টাকা। আর একজন ডাক্তার মাত্র পাঁচ মিনিটেই ফিস নেয় 800/1000 টাকা। শিক্ষকদের উপর এত অবিচার কেন?

  36. Abu Sufian.. Assistant teacher..Patanuher High School..kamalgonj.. says:

    মাধ্যমিক শাখার
    ১৩/১১/১১ কালো প্রজ্ঞাপন বাতিল করে সকল শাখা শিক্ষকদের এম,পি,ও দিন।।

    ব্যবসায় শাখা কে
    প্যাট্যার্ন ভুক্ত শুন্য ঘোষনা করে এ শাখার সকল শিক্ষক দের
    এম,পি,ও দিন।।

  37. Reza SHS says:

    Ara vai, tomra kan bojan na_ oi(that) hamar dasot akkhan katha asa(have) “Vat(rice) dibar vatar noy kilbar(killar) thakur”.01773972558

  38. আজাদ সিদ্দিকী says:

    “শিক্ষকদের জন্য আলাদা সম্মানজনক স্কেল দেয়া হবে ”
    এই ফাকা বুলির কী খবর ?

  39. teacher and true poet says:

    Sabar&dainikshikshar dristy akorshon korsi….
    Private r coaching ek kore golia fela hosse kno?headmaster mosaito private e porate badha disse…

আপনার মন্তব্য দিন