দৈনিকশিক্ষার বদৌলতে শিক্ষক নিয়োগের অনেক খবর পাচ্ছেন: এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান - চাকরির খবর - Dainikshiksha

দৈনিকশিক্ষার বদৌলতে শিক্ষক নিয়োগের অনেক খবর পাচ্ছেন: এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান

মতিউল আলম, ময়মনসিংহ থেকে |

এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান এস এম আশফাক হুসেন দৈনিকশিক্ষার প্রশংসা করে বলেছেন, সুপারিশপ্রাপ্তদের যারা নিয়োগ দেয়নি সেইসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকা দৈনিকশিক্ষা ডটকমের মাধ্যমে আপনারা জানতে পেরেছেন। আর নিয়োগ না দেয়া প্রতিষ্ঠানও বিষয়টি জানতে পেরে সুপারিশপ্রাপ্তদের ডেকে নিয়োগ দিয়েছেন। অনেক প্রতিষ্ঠান প্রধান আমাকে ফোন করে প্রার্থীর মোবাইল নম্বর নিয়েছেন। এটা দৈনিকশিক্ষার প্রতিবেদনের জন্যই হয়েছে। তাই এনটিআরসিএর সুপারিশপ্রাপ্তদের অবশ্যই নিয়োগ দিতে হবে। আজ বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) ময়মনসিংহে অনুষ্ঠিত গণশুনানিতে অংশ নিয়ে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) চেয়ারম্যান এমন মন্তব্য করেন।

চেয়ারম্যান বলেন, সুপারিশ পাওয়া প্রার্থীদের যোগদানে বাধা দেয়া প্রতিষ্ঠাগেুলোর প্রধানের এমপিও বাতিল ও ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করেছি। এমন ব্যবস্থা নিতে এর আগে সুপারিশ করার কোনো নজির নেই। আবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর মাউশি সুপারিশপ্রাপ্তদের অবশ্যই নিয়োগ দিতে হবে এবং প্রতিষ্ঠান থেকে বেতন দিতে হবে বলে যে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে, তাও নজিরবিহীন। তাই নিয়োগপ্রার্থী ও সুপারিশপ্রাপ্তদের ব্যাপারে সবাই সহানুভূতিশীল। এমনকি শিক্ষামন্ত্রীও আপনাদের পক্ষে রয়েছেন বলে তার সাথে কথা বলে জানতে পেরেছি।

গণশুনানিতে চেয়ারম্যান আশফাক বলেন, সুপারিশ পেয়ে যোগদানের পর শিক্ষকদের দায়িত্ব মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের। অধিদপ্তর সমস্যার সমাধান করবে। কেউ যদি ইচ্ছা করে প্রতিষ্ঠানকে টাকা পয়সা দেন আমাদের করার কিছু নেই। তিনি আরও বলেন, কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত বলে মিথ্যা তথ্য দিয়ে থাকলে এমপিও না হলেও প্রার্থীকে বেতন দিতে হবে। 

১৮০ টাকা আবেদন ফি নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুললে তিনি বলেন, এনটিআরসিএকে ১৮০ টাকা দিতে হয়। অথচ কমিটি যখন নিয়োগ দিতো তখন ৫০০ টাকা দিয়ে আবেদন করতেন। ১০ থেকে ১৫ লাখ টাকা ঘুষ দিতেন। এনআরটিসিএতে কোনো ঘুষ দিতে হয় না। এখন ঘুষ ছাড়াই চাকরি হচ্ছে। এনটিআরসিএকে সরকার বেতন দেয়। আমরা চাই আপনারা সেবা নেন। 

আশফাক হুসেন বলেন, অতীতে কখনও এনটিআরসিএ চেয়ারম্যান আপনাদের কাছে আসেনি। আমি এসেছি। আপনাদের সমস্যাগুলো জেনে আমরা সেগুলো দূর করব। 

বৃহস্পতিবার বিকেলে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ময়মনসিংহ বিভাগের গণশুনানিতে  শতশত নিবন্ধনধারী ও  সদ্য নিয়োগপ্রাপ্ত  শিক্ষকদের সরাসরি সমস্যা ও অভিযোগ শোনেন এবং উত্তর দেন এনটিআরসিএর চেয়ারম্যান এস এম আশফাক হোসেন। এসময় বিভাগের শিক্ষা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

‘শিক্ষকদের অবসর-কল্যাণ সুবিধার তহবিল বন্ধ করে পেনশন চালু করতে হবে’ - dainik shiksha ‘শিক্ষকদের অবসর-কল্যাণ সুবিধার তহবিল বন্ধ করে পেনশন চালু করতে হবে’ প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রথম ধাপের পরীক্ষা ১০ মে - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের প্রথম ধাপের পরীক্ষা ১০ মে কল্যাণ ট্রাস্টের প্রাথমিক তহবিলের এক কোটি টাকার হদিস নেই - dainik shiksha কল্যাণ ট্রাস্টের প্রাথমিক তহবিলের এক কোটি টাকার হদিস নেই এসএসসির ফল ৫ বা ৬ মে - dainik shiksha এসএসসির ফল ৫ বা ৬ মে সরকারিকৃত ২৯৯ কলেজে পদ সৃজনে সংশোধিত তথ্য ছক প্রকাশ - dainik shiksha সরকারিকৃত ২৯৯ কলেজে পদ সৃজনে সংশোধিত তথ্য ছক প্রকাশ কল্যাণ ট্রাস্টের ৪০ কোটি টাকা এফডিআর করা হয়নি - dainik shiksha কল্যাণ ট্রাস্টের ৪০ কোটি টাকা এফডিআর করা হয়নি আদর্শ না শেখালে সন্তানদের হাতে বাবা-মাও নিরাপদ নন: গণপূর্তমন্ত্রী - dainik shiksha আদর্শ না শেখালে সন্তানদের হাতে বাবা-মাও নিরাপদ নন: গণপূর্তমন্ত্রী চাঁদা বৃদ্ধির পরও ২১৬ কোটি টাকা বার্ষিক ঘাটতি : শরীফ সাদী - dainik shiksha চাঁদা বৃদ্ধির পরও ২১৬ কোটি টাকা বার্ষিক ঘাটতি : শরীফ সাদী কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি নীতিমালা জারি - dainik shiksha কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি নীতিমালা জারি একাদশে ভর্তির নীতিমালা জারি, আবেদন শুরু ১২ মে - dainik shiksha একাদশে ভর্তির নীতিমালা জারি, আবেদন শুরু ১২ মে প্রাথমিকের ৪২৭ শিক্ষকের বদলি - dainik shiksha প্রাথমিকের ৪২৭ শিক্ষকের বদলি সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website