দ্বিতীয় দফায়ও প্রশ্নফাঁস - মতামত - দৈনিকশিক্ষা

কবে হবে শাপমোচন?দ্বিতীয় দফায়ও প্রশ্নফাঁস

নিজস্ব প্রতিবেদক |

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষায়ও প্রশ্নফাঁসের ঘটনা ঘটেছে। প্রশ্নফাঁসসহ অন্যান্য অভিযোগে পটুয়াখালী জেলায় ৪৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে প্রশ্নপত্র এবং মোবাইল ফোনের বিভিন্ন ডিভাইস ব্যবহার করে সরবরাহ করা উত্তরপত্র উদ্ধারের পর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের দু’জন উমেদারসহ ১২ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। বাকি ৩৩ জনের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে পুলিশ। উল্লেখ্য, এর আগে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগে প্রথম ধাপের পরীক্ষায়ও প্রশ্নফাঁসের ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছিল। রোববার (০২ জুন) যুগান্তর পত্রিকায় প্রকাশিক এক নিবন্ধে এ তথ্য পাওয়া যায়।

বলার অপেক্ষা রাখে না, প্রথম ধাপের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের ঘটনায় কর্তৃপক্ষ যদি যথাযথ পদক্ষেপ নিত, তাহলে হয়তো দ্বিতীয়বার একই ঘটনা ঘটত না। সম্প্রতি সিআইডি সংবাদ সম্মেলন করে আমাদের আশ্বস্ত করেছিল, দেশের প্রশ্নফাঁস চক্রের মূল হোতাসহ অধিকাংশ জালিয়াতকে চিহ্নিত ও গ্রেফতার করা হয়েছে এবং এর ফলে প্রশ্নফাঁসের অভিশাপ থেকে জাতি অচিরেই মুক্তি পেতে যাচ্ছে।

এবারের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস না হওয়ায় আমরা স্বভাবতই উৎফুল্ল হয়েছিলাম এই ভেবে যে, অবশেষে প্রশ্নফাঁসের কলঙ্ক থেকে জাতি মুক্তি পেয়েছে। কিন্তু হা হতোস্মি! প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের ঘটনা পুরনো সেই দুর্ভাগ্যের কালকে আবারও সামনে নিয়ে এসেছে।

বিসিএস থেকে শুরু করে ছোট-বড় সব ধরনের নিয়োগ পরীক্ষা, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা, এমনকি স্কুল পর্যায়ে দ্বিতীয়-তৃতীয় শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষাসহ বিভিন্ন পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা আমাদের জন্য নিঃসন্দেহে দুর্ভাগ্যজনক। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও এর বিভিন্ন দপ্তরে অনিয়ম-দুর্নীতির ওপর করা দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল- শিক্ষা বোর্ড, বাংলাদেশ সরকারি প্রেস (বিজি প্রেস), ট্রেজারি ও পরীক্ষা কেন্দ্রগুলো প্রশ্নফাঁসের উৎস।

এসব প্রতিষ্ঠানের কিছু অসাধু কর্মকর্তা এ অপকর্মটি করে থাকেন। তাদের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে কোচিং সেন্টার, প্রতারক শিক্ষক ও বিভিন্ন অপরাধী চক্র। সরকার অবশ্য ইতোমধ্যে বিজি প্রেস থেকে প্রশ্নফাঁস রোধে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। তবে প্রশ্নফাঁসের একটি উৎস বন্ধ করাই যথেষ্ট নয়, বাকি উৎসগুলো বন্ধেও কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রশ্নফাঁস কেবল অপরাধ নয়, একইসঙ্গে নৈতিকতাবিরোধী- এ বোধও প্রত্যেক নাগরিকের মধ্যে জাগ্রত করা জরুরি।

দুঃখজনক হল, প্রশ্নফাঁসের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের মধ্যে এখনও দায়সারা গোছের মনোভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। বস্তুত প্রশাসনের একটি অসাধু চক্রকে ‘ম্যানেজ’ করে কিংবা ক্ষমতাসীন দলের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনকে সম্পৃক্ত করে প্রশ্নফাঁসের মতো অপকর্মটি করা হচ্ছে। প্রশাসনযন্ত্র ও রাজনৈতিক দলগুলো যদি নিয়ম মেনে চলা এবং আইন প্রতিপালনের ক্ষেত্রে ন্যায়নিষ্ঠ ও আন্তরিক না হয়, তাহলে কোনোদিনও দেশ থেকে নৈরাজ্য দূর হবে না।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের মাধ্যমে বেকারত্বের যন্ত্রণায় দগ্ধ হতে থাকা দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ নিরীহ ও সৎ চাকরিপ্রার্থীর সঙ্গে যেমন তামাশা করা হচ্ছে, তেমনি শিক্ষার্থীদের মেধা ও সৃজনশীলতা ধ্বংসের বন্দোবস্তও পাকা করা হচ্ছে। এসব অবিলম্বে বন্ধ হওয়া প্রয়োজন। সবচেয়ে বড় কথা, প্রশ্নফাঁসের মধ্য দিয়ে পরীক্ষা ব্যবস্থাকে ‘হরিশংকরের গোয়াল’ বানিয়ে ফেলা হচ্ছে, যা কোনোমতেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা আশা করব, এরপর থেকে দেশে প্রশ্নপত্র ফাঁসের আর একটি ঘটনাও ঘটবে না। এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ উদ্যোগী ও তৎপর হবে, এটাই প্রত্যাশা।

করোনায় আরও ২৯ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩ হাজার ২৮৮ - dainik shiksha করোনায় আরও ২৯ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩ হাজার ২৮৮ এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৭৩ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৭৩ শিক্ষক সরকারি স্কুল-কলেজ কর্মচারীদের অনলাইনে পিডিএস পূরণের নির্দেশ - dainik shiksha সরকারি স্কুল-কলেজ কর্মচারীদের অনলাইনে পিডিএস পূরণের নির্দেশ শ্রান্তি বিনোদন ভাতা তুলতে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ তিন শিক্ষক নেতার বিরুদ্ধে - dainik shiksha শ্রান্তি বিনোদন ভাতা তুলতে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ তিন শিক্ষক নেতার বিরুদ্ধে শিক্ষা কর্মকর্তার গাফিলতিতে ১৭ স্কুল মেরামতের সাড়ে ৩৫ লাখ টাকা ফেরত - dainik shiksha শিক্ষা কর্মকর্তার গাফিলতিতে ১৭ স্কুল মেরামতের সাড়ে ৩৫ লাখ টাকা ফেরত পলিটেকনিকে ভর্তিতে বয়সসীমা থাকছে না - dainik shiksha পলিটেকনিকে ভর্তিতে বয়সসীমা থাকছে না সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ পদের আবেদন শুরু - dainik shiksha সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ পদের আবেদন শুরু বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক - dainik shiksha বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে - dainik shiksha শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website