নির্ভরতা ও জবাবদিহির অন্তরালে - মতামত - দৈনিকশিক্ষা

নির্ভরতা ও জবাবদিহির অন্তরালে

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

আলোচ্য বিষয়ে কয়েকদিন আগে এই কলামেই লিখেছিলাম। আজকের লেখাটি বলা যায় এরই পরবর্তী ধাপ। জবাবদিহিবিহীন ক্ষমতা যে কতটা দুরন্ত হতে পারে, তার প্রমাণ পাওয়া গিয়েছিল নারায়ণগঞ্জে কর্তব্য পালনরত র‌্যাবের একটি ইউনিটের আচরণে। একসঙ্গে সাতজন মানুষকে তারা নিজ হাতে মেরে নদীতে নিয়ে ফেলে দিয়েছিল। লাশগুলো বেয়াদপি করেছে, ভেসে উঠেছে, নইলে গোটা ঘটনাটিই ডুবে যেত, হয়তো আর খবরই পাওয়া যেত না। নিহতদের মধ্যে ঘটনাক্রমে একজন আইনজীবীও ছিলেন, যার জন্য অন্য আইনজীবীরা হৈচৈ করেছেন; লাশগুলোর ভাসমান অস্তিত্বের সঙ্গে ওইসব ধ্বনি একত্র হয়ে বিচার দাবি করার দরুন নানা টালবাহানা সত্ত্বেও বিচার শেষ পর্যন্ত একটা হয়েছে, ফাঁসির হুকুম হয়েছে ২৬ জনের, যাদের অধিকাংশই র‌্যাবের সদস্য। র‌্যাব যে আক্রমণের মুখে আত্মরক্ষার জন্য মানুষগুলোকে খুন করেছে তা নয়; র‌্যাবের ওই ইউনিটটি ভাড়া খাটছিল মূল অপরাধীর হাতে। অর্থাৎ কি-না তারা পরিণত হয়েছিল ভাড়াটে খুনিত। ভাবা যায়? এই ইউনিটের কমান্ডার ছিলেন যিনি তার শ্বশুর আবার আওয়ামী লীগের একজন বড় নেতা ও সরকারের তৎকালীন মন্ত্রী। ক্ষমতার এই চাপের নিচে পড়ে নিহত মানুষগুলোর পক্ষে বাঁচার কোনো উপায় ছিল না। তাঁরা বাঁচেননি। র‌্যাব বলেছিল, অপরাধটা বাহিনীর নয়, বিপথগামী কিছু সদস্যের। বলাটা স্বাভাবিক। তবে প্রশ্ন থেকে যায় বৈকি। এই বিপথগামীরা যে বিপথে ঘোরাফেরা করছিল, বাহিনী কি সেটা টের পায়নি? টের পেয়ে যদি নিবারণের পদক্ষেপ নিয়ে না থাকে, তবে সেটা যেমন বিচ্যুতি, জেনেও যদি না-জেনে থাকে, তবে সেটা আরও বড় বিচ্যুতি। দুটির কোনোটিই গ্রহণযোগ্য নয়। মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) সমকাল পত্রিকায় প্রকাশিত এক নিবন্ধে এ তথ্য জানা যায়।

সারাদেশের অপরাধীদের ওপর যারা চোখ রেখেছে, তারা যদি নিজেদের ঘরের অপরাধীদের খবর না রাখে, তবে ঘটনা তো রীতিমতো বিপজ্জনক। আর যখন দেখা যাচ্ছে যে, অপরাধ করার পরও তাদের বিরুদ্ধে বাহিনীর নিজের পক্ষ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি, তখন তো ব্যাপারটা সত্যি সত্যি আতঙ্কজনক। এত শক্তিশালী ও সুসজ্জিত একটি বাহিনীর সদস্যদের কেউ কেউ যদি ভাড়া খাটে, বাহিনীর অস্ত্রশস্ত্র ও লোকজনকে দুস্কর্মে ব্যবহার করে এবং পার পেয়ে যায়, তাহলে নাগরিকরা তাদের নিরাপত্তা কার কাছ থেকে আশা করবে? সময় সময় র‌্যাব যে নিতান্ত ক্ষমতাহীন হয়ে পড়ে, তার দৃষ্টান্তও বিরল নয়। ওই নারায়ণগঞ্জেই তো ঘটেছে নানা ঘটনা। মেধাবী কিশোর তানভীর মুহম্মদ ত্বকীকে হত্যা করেছে একদল দুর্বৃত্ত। বুকের ওপর চেপে বসে গলা চেপে ধরে মেরে ফেলে বস্তায় ভরে তাকেও ফেলে দেওয়া হয়েছিল ওই নদীতেই। ত্বকীর অসহায় লাশটিও ভেসে উঠেছিল। সে ঘটনা সারাদেশের মানুষ জানে। কাজটা কারা করেছে তাও প্রকাশ পেয়েছে। মামলা হয়েছে। তদন্ত এগোচ্ছিল না। অবশেষে হাইকোর্টের নির্দেশে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল র‌্যাবকে। অপরাধীদের র‌্যাব ঠিকই শনাক্ত করেছে। কী কারণে, কীভাবে, কোথায় ওই নৃশংস কাজটি করা হয়েছে, সে রহস্যও তারা জেনেছে। র‌্যাব তদন্ত রিপোর্ট সাংবাদিকদের কাছে প্রকাশও করেছিল। কিন্তু আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করার যে অত্যাবশ্যকীয় কাজ সেটা আর করা হয়নি। অসমাপ্তই রয়ে গেছে। চতুর্দিক থেকে দাবি উঠেছে, একের পর এক সভা হয়েছে, মানববন্ধন, বিক্ষোভ, বিবৃতি প্রদান কিছুই বাকি থাকেনি। কিন্তু অপরাধীদের যে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো, সেটা এখনও করা গেল না। অদৃশ্য হস্তক্ষেপের দরুনই হবে, র‌্যাব গুটিয়ে নিল নিজেকে। অদৃশ্য হস্ত অদ্যাবধি অনড়ই রয়েছে স্বীয় অবস্থানে। মনে হচ্ছে থাকবেও।

র‌্যাবের হাত শক্ত; কিন্তু তার চেয়েও শক্ত হাত আছে বৈকি। শক্ত ও মস্ত। র‌্যাবের তুলনায় পুলিশের কাজের বিস্তার অনেক বেশি। বাহিনীটিও বড়। পুলিশের বিশেষ তৎপরতা যে সরকারের প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক শক্তিকে দমন-পীড়নে নিয়োজিত থাকে, সে নিয়ে তো কোনো তর্ক নেই। প্রধান বিরোধী দলকে কোন কোন উপায়ে জনসভা করা থেকে নিবৃত্ত করা যাবে, সে নিয়ে উদ্ভাবনশক্তির অত্যাশ্চর্য প্রমাণ তারা দিয়ে থাকে; বিরোধী দলের নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা সাজিয়ে কীভাবে রাজনৈতিক কাজ করা থেকে তাদের সরিয়ে রাখা যাবে, সে কর্তব্য পালনেও তাদের ঈর্ষণীয় দক্ষতা। জনগণের পক্ষ নিয়ে যারা আন্দোলন করেন, যেমন সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলন, গ্যাস তেল বন্দর বিদ্যুৎ রক্ষার জন্য আন্দোলন, গ্যাসের দাম বৃদ্ধির বিরুদ্ধে আন্দোলন, রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনবিরোধী আন্দোলন তাদেরকে কেমন করে পদে পদে বাধা দেওয়া যাবে, বিক্ষোভ তীব্র হওয়ার লক্ষণ দেখা দিলে কেমন করে লাঠি, টিয়ার গ্যাস, জলকামান ইত্যাদি ব্যবহার করতে হবে, সেসব ব্যাপারে পুলিশ বাহিনীর সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন তাদের নিকৃষ্টতম নিন্দুকেরাও তুলতে পারবে না। সাংবাদিক পেটানোতেও তারা অত্যন্ত পারঙ্গম। এ ক্ষেত্রে তাদের ক্ষমতা মনে হয় অহর্নিশ নিশপিশ করতে থাকে। নিশপিশানির ব্যাখ্যা অবশ্য আছে। সাংবাদিকরা কিছুটা বেয়াড়া মনে হয়। উল্টাপাল্টা লেখে, ছবি তোলে, সে ছবি কাগজে ছাপায়, টিভিতে দেখায়, মনে হয় ভয়ডর অফিসে জমা রেখে তবে পথে বের হয়েছে। সাংবাদিকতার পথটা আজও এখানে মসৃণ করা যায়নি। তাছাড়া সাংবাদিকরা এখন আর আগের মতো ঐক্যবদ্ধ নন, তাদের একটা অংশ (সেটাই বড়) সরকার সমর্থক, অন্য অংশটি সরকারবিরোধী। দুই অংশ যে একসঙ্গে রুখে দাঁড়াবে, বলবে একজন সাংবাদিকের গায়ে হাত দেওয়া মানেই সব সাংবাদিককে অপমান করা, সে কাজ আর করতে পারেন না। তবে পুলিশের ক্ষমতার আসল রহস্যটা রয়েছে সরকারের নেক নজর লাভপ্রসূত জবাবদিহির অভাবে। জবাবদিহির দায় আজ কারও নেই, বিশেষভাবে নেই পুলিশের। তবে পুলিশকে নানাদিকে যে চোখ রাখতে হয়, এটাও ঠিক। যেমন বইমেলার ওপর।

ধর্মীয় জঙ্গিরা তাদের অপছন্দের বই লেখার জন্য লেখক ড. অভিজিৎ রায়কে মেলার মধ্যেই হত্যা করেছিল। প্রকাশক ফয়সল আরেফিন দীপনকে তারা তার কার্যালয়ে গিয়ে জবাই করে এসেছে। পুলিশ নিরাপত্তা দিতে পারেনি। এমনকি অপরাধীদের যে শাস্তি দেবে তার ব্যবস্থাও করেনি। এর আগে ওই মেলা প্রাঙ্গণেই হুমায়ুন আজাদ আক্রান্ত হয়েছেন এবং পরে তিনি প্রাণত্যাগ করেছেন। খুনিরা নিরাপদে পালিয়ে গেছে, এখন পর্যন্ত তাদের শাস্তি হয়নি। পরের বছর মেলার আগেই মেট্রোপলিটন পুলিশ লেখকদের সতর্ক করে এক হুকুমনামা জারি করেছিল। এতে ঘাতকদের সতর্ক না করে, লেখকদেরই সতর্ক করে দেওয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল, তারা যেন এমন কিছু না লেখেন, যা মানুষের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করতে পারে। আঘাত করছে না করছে সেটার বিচার করবে কে? কেন করবে পুলিশ। তাদের গোয়েন্দারা মেলায় ঘোরাফেরা করছে, সন্দেহজনক কোনো কিছু দেখলে লেখকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এ রকম ব্যবস্থার কথা অন্য কোনো দেশে তো নয়ই, খোদ আমাদের দেশেও ইতিপূর্বে শোনা যায়নি। অন্য কিছু কিছু ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ পৃথিবীকে পথ দেখাতে সক্ষম হয়েছে; এবার মনে হয় এই নতুন ক্ষেত্রেও দেখাবে। কোথায় ধমকে দেবে জঙ্গিদের, উল্টো ভয় দেখাচ্ছে লেখকদের। ডাকাতকে না শাসিয়ে শাসানো হচ্ছে বিপন্ন গৃহস্থকে। ব্যাপারটা শেষ পর্যন্ত কতদূর গড়াবে জানি না। তবে অনেকদূর গড়াতে পারে বলে আশঙ্কা করারই কারণ রয়েছে। পুলিশের পক্ষ থেকে পেনাল কোডের বিশেষ ধারা এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনের দোহাই দেওয়া হয়েছে। ওইসব আইনি ব্যবস্থা তো আছেই; আদালত রয়েছে, মামলা চলতে পারে। তাহলে আবার এই নতুন পদক্ষেপ কেন? পেছনে কি হেফাজতে ইসলামওয়ালাদের খুশি করার ইচ্ছা আছে? কে জানে! তবে এটা তো জানা আছে, সবারই যে পুলিশি হস্তক্ষেপ কখনোই সামান্য ব্যাপার নয়। গ্রেফতার, তারপরে রিমান্ড, রিমান্ড নিয়ে কেন লিখেছ, মতলবটা কী, কে মদদ দিয়েছে, এসব জরুরি বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের কল্পনা লেখকদের জন্য মোটেই উৎসাহবর্ধক হবে না।

পেনাল কোডের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। পেনাল কোড ব্রিটিশের তৈরি। পাকিস্তানি বিদায় হয়েছে, বাংলাদেশ কায়েম হয়েছে, ব্রিটিশের পেনাল কোড তবু আছে। কিন্তু এমনকি পেনাল কোডেরও তো বিভিন্ন জায়গাতে উল্লেখ আছে যে, পুলিশের দিক থেকে নির্যাতন করাটাই একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু লিপিবদ্ধ আইনের জগৎ আর কাজের জগৎ তো এক নয়; বিশেষ করে আমাদের প্রাণপ্রিয় এই বাংলাদেশে। ব্রিটিশ আমলে ভারতে নির্যাতন চালালে ইংল্যান্ডের পার্লামেন্টে তাও দুয়েক সময়ে মৃদুমন্দ সমালোচনার শব্দ শোনা যেত, আমাদের নিজেদের পার্লামেন্টের সময় হয় না ওইসব দিকে তাকানোর। তাছাড়া পার্লামেন্ট তো প্রায়শই বিরোধীদলবিহীন অবস্থায়। এই যে এত রকমের এত সব দায়িত্ব পুলিশের, পরিশ্রম তো আছেই, ঝুঁকি রয়েছে, সমালোচনাও সহ্য করতে হয়। সম্প্রতি রাজধানীর সায়েন্স ল্যাব এলাকায় পুলিশের ওপর বোমা নিক্ষেপের ঘটনাটি তাদের ঝুঁকির বিষয়টাই তুলে ধরেছে। বিনিময়ে তাদের প্রাপ্তিটা কী? বেতন ভাতা? সে তো সবাই পায়। ঘুষ? সেটা বাহিনীর সবাই নেয় না, সবাই পায়ও না। সঙ্গতভাবেই তাই পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে সম্মান বৃদ্ধি, পদের উন্নয়ন, সুযোগ-সুবিধার সম্প্রসারণ ইত্যাদির দাবি উঠছে। বিশেষজ্ঞরা লক্ষ্য করেছেন, দাবিগুলোর প্রকৃতিতেও পরিবর্তন এসেছে। দাবিগুলো ছিল এই ধরনের : পদের উন্নয়ন, মোবাইল ফোনের টাকা, পোশাক ভাতা, চিকিৎসা সুবিধার সম্প্রসারণ, কম্পিউটার, যানবাহন ক্রয়ের জন্য বরাদ্দ, গাড়ি রিকুইজিশন করার অনুমতি, আবাসন সুবিধা বৃদ্ধি এবং বিদেশি দূতাবাসে নিয়োগ।

গত তিন বছর ধরে পুলিশ সপ্তাহ উদযাপনের সময় প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে দাবি তোলা হচ্ছে, পুলিশ সুপারদের মোবাইল কোর্ট গঠনের এখতিয়ার দানের এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পুলিশের জন্য স্বতন্ত্র একটি বিভাগ প্রতিষ্ঠার, যেটির প্রধান আবার হবেন পুলিশ বাহিনীরই একজন সদস্য। উল্লেখ্য, পুলিশের আইজিকে সিনিয়র সচিবের সমান পদমর্যাদা দেওয়া হয়ে গেছে। ২০১৩ সালে পুলিশের হেফাজতে নির্যাতন ও মৃত্যু নিবারণ আইন নামে একটি আইন জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে। ২০১৫ সালে পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল যে, আইনটি সংশোধন করে এমন ব্যবস্থা রাখা চাই, যাতে ওই আইনের অধীনে কোনো নালিশ এলে পুলিশ নিজেই তার তদন্ত করতে পারবে। জাতীয় সংসদের একজন সদস্য সে আইনের একটি সংশোধনী উত্থাপন করতে চেয়েছেন, যাতে বলা হয়েছে যে পুলিশি হেফাজতে নির্যাতন বা মৃত্যু ঘটলে সংশ্নিষ্ট পুলিশের শাস্তি হবে। পুলিশ বাহিনীর পক্ষ থেকে এই সংশোধনীর আপত্তি জানানো হয়েছিল। সন্দেহ কী যে, আপত্তিটি গৃহীত হলে পুলিশের জবাবদিহির অভাবের মাত্রা এখন যেমন আছে তার চেয়ে বেড়ে যাবে। নতুন আইনটি তার কার্যকারিতা হারাবে। তাছাড়া জবাবদিহির ব্যাপারটা তো আইনের

ব্যাপার যতটা নয়, তার চেয়ে বেশি আইন প্রয়োগের ব্যাপারে। বলা বাহুল্য, এসব দাবি ও আপত্তির ভিত্তিটা মোটেই আধ্যাত্মিক নয়, পুরোপুরি বৈষয়িক বটে। বৈষয়িক অন্তরালে কি রয়েছে পুলিশের ওপর

সরকারের নির্ভরতা?

সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী : শিক্ষাবিদ ও সমাজ বিশ্লেষক।

শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় - dainik shiksha শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ - dainik shiksha হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের - dainik shiksha ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ - dainik shiksha এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website