please click here to view dainikshiksha website

পদার্থ বিজ্ঞানের প্রশ্নফাঁসের দায়ে ৯ পরীক্ষার্থী আটক

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি  | ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ - ৯:২৫ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

এসএসসির পদার্থবিজ্ঞানের প্রশ্ন ফাঁসের দায়ে চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানাধীন বাংলাদেশ মহিলা সমিতি স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্রের ৯ জন পরীক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে পরীক্ষা শুরুর আগে তাদের কাছে পাওয়া প্রশ্নপত্রের সঙ্গে মিলে যায় মূল প্রশ্ন। বিকেলে নগরীর বাংলাদেশ মহিলা সমিতি (বাওয়া) স্কুল অ্যান্ড কলেজ কেন্দ্র থেকে তাদের আটক করা হয়। আটক সবাই পটিয়া আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছিল।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মো. জিল্লুর রহমান চৌধুরী সাংবাদিকদের এতথ্য জানান।

এর আগে মঙ্গলবার সকালে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, পরীক্ষার্থীরা শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসে করে আসছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা জানতে পারি ওই বাসের শিক্ষার্থীদের কাছে প্রশ্নপত্র আছে। পরে ওই তথ্যের ভিত্তিতে সকাল সোয়া ৯টার দিকে কোতোয়ালি থানার জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের সামনে ওই বাসে তল্লাশি চালায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোরাদ আলীর নেতৃত্বে একটি টিম। এ সময় ওই বাসে থাকা ৭/৮জন শিক্ষার্থীর মোবাইল ফোনে প্রশ্নপত্র পাওয়া যায়। ওই প্রশ্নপত্রের সঙ্গে পরীক্ষার মূল প্রশ্নপত্রের মিল পাওয়া যায়।তিনি আরও বলেন, ‘আটক পরীক্ষার্থীদের বিশেষ নজরদারিতে রেখে একটি আলাদা কক্ষে পরীক্ষা নেওয়া হয়।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোরাদ আলী সাংবাদিকদের জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা ওই বাসে তল্লাশি চালাই। এ সময় বাসে থাকা পরীক্ষার্থীদের মোবাইল ফোনে প্রশ্নপত্র পাওয়া যায়। শিক্ষার্থীরা হোয়াটসঅ্যাপ- এর মাধ্যমে মোবাইল ফোনে প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র আদান-প্রদান করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ১০টি

  1. তাপসবৈরাগী says:

    দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই

  2. শাহীনূর আক্তার, প্রভাষক (উদ্ভিদবিদ্যা). says:

    শিক্ষক হিসাবে আমার কিছুই বলার নাই! এই প্রশ্ন ফাঁসই বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংসের মূল কারন। দেশটা বোধহয় সত্যিই মেধা শূন্য হয়ে যাবে!!!

  3. মোস্তাফিজুর, কুড়িগ্রাম says:

    পুটির সাথে বোয়ালদেরও ধরতে হবে ।

  4. নাজমুল ইসলাম says:

    ওদের দোষ কি? সামনে খাবার পেলে সবাই খেতে চায়। খুজে বের করতে হবে এই খাবার কোথা থেকে আসে?

  5. এ এইচ তাইজুল ইসলাম,প্রভাষক বাংলা, বড়খাল বহুমুখী স্কুল ও কলেজ,সুনামগঞ্জ! says:

    সম্মানের পেশায় এসে সত্যিই অনেক সম্মানবোধ করতাম! কিন্তু আজ কিছু দুষ্টু লোকের লোভের কারণে সীমাহীন প্রশ্ন ফাসের কারণে এ পেশায় অনেকটা অসহায়বোধ করছি! তাই যারা এ কাজে জরিত তাদের শাস্তি দিয়ে! শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাঁচান! অন্যথায় অচিরেই জাতি মেধা শূন্য হয়ে যাবে!

  6. এ এইচ তাইজুল ইসলাম,প্রভাষক বাংলা, বড়খাল বহুমুখী স্কুল ও কলেজ,সুনামগঞ্জ! says:

    প্রকাশ্যে শান্তি দিলে সব প্রশ্ন ফাস বন্ধ হবে!

  7. আবুল হোসেন খোকা,প্রভাষক,ভিতরবন্দ কলেজ,কুড়িগ্রাম। says:

    আমার একটি প্রশ্ন-ঐছাত্রগুলো কোথা থেকে কিভাবে প্রশ্ন পেলো? দয়া করে দেশবাসীকে সঠিক উত্তর জানাবেন।

  8. ময়নুল says:

    এদের কে শাস্তি দিয়ে কি হবে। যারা প্রশ্ন্ ফাঁস করে তাদের কে ধরেন।যদি সামর্থ্য থাকে

  9. মোঃ হাফিজুর রহমান, সহ: শিক্ষক, বাহাদুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়। says:

    আমরা সবাই ট্যাংকির পানি চারিদিক ছড়াচ্ছে তাই পানি মুছার কাজে ব্যস্ত। ছিদ্রটা খুজে সেটা বন্দ করি এ ইচ্ছা বা চেষ্টা বোধহয় কারো নেই।

  10. AMIR HOSSAIN says:

    অপরাধী যেই হোক তাকে শাস্তি দিতে হবে ।অনুমান ভিত্তিক মন্তব্য করে সমালোচিত হবেন কেন ?প্রশ্ন ফাসেঁ জরিত ছাত্র, শিক্ষক কেউই রেহায় পাওয়া উচিত নয়।

আপনার মন্তব্য দিন