পুরাতন প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়ার অভিযোগ - স্কুল - Dainikshiksha

পুরাতন প্রশ্নে পরীক্ষা নেয়ার অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক |

ঢাকার গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুলে ইংলিশ ভার্সনের শিক্ষার্থীদের পুরাতন প্রশ্নপত্রে এসএসসি পরীক্ষা নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রায় ৩০ মিনিটের মত পরীক্ষা দেওয়ার পর শিক্ষার্থীদের নতুন প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। এ ঘটনায় পরীক্ষার্থীসহ অভিভাবকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

ইংলিশ ভার্সনের পরীক্ষার্থীরা অভিযোগ করে বলেন, শনিবার তাদের সাধারণ গণিতের পরীক্ষা ছিল। নির্ধারিত সময়ে তারা কেন্দ্রে উপস্থিত হন। পরীক্ষার ৩০ মিনিট পর তারা দেখেন যে, ২০১৬ সালের সিলেবাসের প্রশ্নপত্র তাদের দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি কেন্দ্রে দায়িত্বরত শিক্ষকদের জানানো হলে প্রশ্নপত্র পরিবর্তন করে ২০১৯ সালের প্রশ্ন দেওয়া হয়। এসময় শিক্ষকরা পরীক্ষার্থীদের আশ্বস্ত করেন তাদের অতিরিক্ত সময় দেওয়া হবে। কিন্তু পরে আর সে সময় দেওয়া হয়নি। এতে করে ঠিকমত উত্তর করতে পারেননি পরীক্ষার্থী।

ওই কেন্দ্রে পরীক্ষা দেওয়া এক পরীক্ষার্থী বলেন, ১০০৬ নম্বর রুমে তাদের পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছিল। সেখানে তাদের পুরাতন প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। পরে সেটা পরিবর্তন করে নতুন প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। কিন্তু তাদের নষ্ট হওয়া ৩০ মিনিটের জন্য অতিরিক্ত সময় আর দেওয়া হয়নি। ফলে তারা প্রশ্নপত্রে চাওয়া সবগুলো উত্তর দিতে পারেনি। এতে কয়েকজন পরীক্ষার্থী কান্না শুরু করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অভিভাবক বলেন, পরীক্ষার পর তার মেয়ে কাঁদতে কাঁদতে বলে, পর্যাপ্ত সময় না দেওয়ায় সে কাঙ্ক্ষিত উত্তর দিতে পারেনি। তাদের রুমের সব পরীক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে এমনটি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, দায়িত্বরত শিক্ষকরা নতুন প্রশ্নপত্র দিলে দেখা যায়, তাতে ৩, ৪ ও নম্বর প্রশ্নের বেশ কয়েকটি অংশ নেই। এরপর পরীক্ষার্থীদের ফটোকপি করা প্রশ্নপত্র দেওয়া হয়। এতে করে প্রায় ৩০ মিনিটের মত সময় নষ্ট হয় তাদের। এ জন্য অতিরিক্ত সময় দেওয়ার কথা থাকলে তা আর দেওয়া হয়নি।

এ বিষয়ে গভর্নমেন্ট ল্যাবরেটরি স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু - dainik shiksha এমপিওভুক্তির দাবিতে ফের রাজপথে শিক্ষকদের অবস্থান কর্মসূচি শুরু মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন - dainik shiksha মারধরে অসুস্থ হলে আবরারকে অন্য রুমে নিয়ে গিয়ে পেটাই : রবিন কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? - dainik shiksha কী আছে শিক্ষক গোকুল দাশের লাইব্রেরিতে, কেন বিক্রির বিজ্ঞাপন? ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website