প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধৃষ্টতাপূর্ণ স্ট্যাটাস দেয়ায় সৈয়দ মইনুলের শাস্তি দাবি - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধৃষ্টতাপূর্ণ স্ট্যাটাস দেয়ায় সৈয়দ মইনুলের শাস্তি দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক |

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনিকে জড়িয়ে ধৃষ্টতাপূর্ণ ফেসবুক স্ট্যাটাস দেয়ার শিক্ষা অধিদপ্তরের  উপপরিচালক সৈয়দ মইনুল ইসলামের শাস্তি দাবি করেছেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতিরি নেতারা। একই সঙ্গে ১৫ আগস্টে সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ও ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় আইভি রহমানসহ ২৪ জন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার ঘটনাকে ‘নিছক দুর্ঘটনা’ মন্তব্য করায় অধিদপ্তরের পরিচালক (বর্তমানে ওএসডি) ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেনেরও শাস্তির দাবি জানানো হয়। এছাড়াও শিক্ষা প্রশাসনের বিভিন্ন পদে থাকা বাড়ৈ সিন্ডিকেট সদস্যদের বিতারিত করার দাবি জানিয়েছেন  তারা। উল্লেখ্য,গত দশ বছর শিক্ষা প্রশাসনে নানা অঘটনের নায়ক মন্মথ রঞ্জন বাড়ৈ গত বছর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমালেও তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ছুটি নেননি। 

জানা যায়, সমিতির প্রাক্তন মহাসচিব অধ্যাপক মো. মাসুমে রাব্বানী খানের সাথে দেশের বাইরে অবস্থানরত শিক্ষামন্ত্রীর টেলিফোনে আলোচনাকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করে ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সৈয়দ মইনুল হোসেন। একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়েও ফেসবুক স্ট্যাটাসে প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রীকে জাড়িয়ে মনগড়া তথ্য পরিবেশন করেন তিনি। সরকারি কর্মকর্তার এই ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণের তীব্র নিন্দা ও শাস্তি দাবি করেছেন বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির নেতারা। বৃহস্পতিবার (২৯ আগস্ট) সন্ধ্যায় ঢাকা কলেজে অনুষ্ঠিত সমিতির সভায় এ বিষয়ে আলোচনা শেষে নিন্দা জানানো হয়। সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার দৈনিক শিক্ষাডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।  

সমিতির মূল কমিটি ও পরবর্তী সময়ে আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় এবং নির্বাচন কমিশন নির্বাচন করতে ব্যর্থ হওয়ায় সৃষ্ট অচলাবস্থা নিরসনে সমিতির প্রাক্তন সভাপতি ও আহ্বায়ক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বৃহস্পতিবারের সভা ডাকেন। সভায় সৈয়দ মইনুলের ধৃষ্টতাপূর্ণ স্ট্যাটাসের নিন্দা ছাড়াও ১৫ আগস্টে সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ও ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলায় আইভি রহমানসহ ২৪ জন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার ঘটনাকে ‘নিছক দুর্ঘটনা’ মন্তব্য করায় অধিদপ্তরের পরিচালক (বর্তমানে ওএসডি) ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেনের শাস্তি দাবি করা হয়।  আর জাহাঙ্গীর এমন ধৃষ্টতাপূর্ণ বক্তব্য দেয়ায় পরপরই ওএসডি করায় শিক্ষামন্ত্রী, শিক্ষা উপমন্ত্রী ও সিনিয়র সচিবকে ধন্যবাদ জানান সমিতির নেতারা।  

ঢাকা কলেজের সভা শেষে সমিতির নেতারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, গত ২৮ আগস্ট ঢাকা কলেজে সমিতির একটি সভা হচ্ছিল। সভা চলাকালীন অধ্যাপক মো. মাসুমে রাব্বানী খান দেশের বাইরে অবস্থানরত শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির সাথে টেলিফোনে আলোচনা করেন। এ আলোচনাকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করে শিক্ষা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক সৈয়দ মইনুল হোসেন ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন।  

সমিতির নেতারা আরও বলেন, এই ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য শিক্ষামন্ত্রী সম্পর্কে শিক্ষা ক্যাডারের সদস্যদের মধ্যে ভুল ধারণার সৃষ্টি করবে। একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাসে প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রীকে জড়িয়ে মনগড়া তথ্য পরিবেশন করা গর্হিত অপরাধের পর্যায়ে পড়ে। তাই সভায় উপস্থিত সমিতির সদস্যরা সৈয়দ মইনুলের এই ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। পাশাপাশি  ধৃষ্টতাপূর্ণ আচরণের জন্য সৈয়দ মইনুলের শাস্তি দাবি করেন তারা।

সমিতির সদস্যরা আরও জানান, এর আগে সৈয়দ মইনুলকে এনসিটিবিতে কর্মরত অবস্থায় উশৃঙ্খল আচরণসহ গুরুতর অভিযোগে তাৎক্ষণিকভাবে শাস্তিমূলক বদলি করেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এ রকম দায়িত্বহীন ব্যক্তির অধিদপ্তরের মতো গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় দায়িত্বপালন বর্তমান শিক্ষাবান্ধব সরকারের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে পারে বলেও মন্তব্য করেছেন সমিতির নেতারা। তাই সৈয়দ মইনুলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সভায় উপস্থিত কর্মকর্তারা দাবি জানান। 

এ ছাড়া গত ২৫ আগস্ট শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের রুমে সংগঠিত অসৌজন্যমূলক ঘটনায় নিন্দা জানান সভায় উপস্থিত সমিতির সদস্যরা। আর গত ২৭ আগস্ট সমিতির প্রাক্তন মহাসচিব মাসুমে রব্বানীর আহ্বানে এবং ২৮ আগস্ট সমিতির প্রাক্তন সভাপতি ও আহ্বায়ক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারের আহ্বানের শিক্ষা অধিদপ্তরের কলেজ শাখার পরিচালক শাহেদুল খবীর চৌধুরী সাড়া না দেয়ায় সভায় দুঃখ প্রকাশ করা হয়।

এদিকে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির আহ্বায়ক কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় এবং নির্বাচন কমিশন যথাযথ সময়ে নির্বাচন অনুষ্ঠানে ব্যর্থ হওয়ায় সমিতিতে সৃষ্ট অচলাবস্থা নিরসনে মহাপরিচালকের সাথে পরামর্শ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে সভায়।

সভায় অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার, অধ্যাপক মো. নাসির উদ্দিন, অধ্যাপক মোহাম্মদ আবুল হোসেন, এস এইচ এম ফজলে রাব্বী, অধ্যাপক মো. মহিউদ্দিন, মো. মাসুমে রববানী খান, মো. দবিউর রহমান, মো. শওকত হোসেন, মো. মামুন উল হক, ড. মো. মাসুদ রানা খান, সৈয়দ জাফর আলী, জিয়া আরেফিন আজাদ, আদনান হোসেন, মাহবুব আলমসহ শিক্ষা ক্যাডারকে প্রতিনিধিত্বকারী বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় - dainik shiksha শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ - dainik shiksha হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের - dainik shiksha ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ - dainik shiksha এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website