প্রভাষকদের জন্য অষ্টম গ্রেড বাতিল করা হোক - মতামত - দৈনিকশিক্ষা

প্রভাষকদের জন্য অষ্টম গ্রেড বাতিল করা হোক

মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন |

শিক্ষাবান্ধব আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন জাতীয় বাজেটে সর্বোচ্চ বরাদ্দ শিক্ষাখাতে রেখেছেন ঠিক তখনই একটি মহল মানুষ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের ঠকানোর জন্য পায়ঁতারা করে চলেছেন। বিশ্ব যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তার সাথে সাথে পাল্লা দিয়ে বাংলাদেশও যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখন শিক্ষাখাতে সর্বোচ্চ বরাদ্দ থাকা সত্ত্বেও সারা বাংলাদেশের শিক্ষক সমাজকে হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে।

আগে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের চাকরিরর ৮ বছর পর ৫:২ অনুপাতে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি দেয়া হতো। আর যারা পদোন্নতি পেত না তাদেরকে ৯ম থেকে ৭ম গ্রেডে উন্নীত করা হতো। ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের এমপিও নীতিমালার পূর্বেও বেসরকারি কলেজের প্রভাষকরা ৭ম গ্রেডে উন্নীত হতো। দেশ যখন উন্নতির দিকে ধাবিত হচ্ছে তখন দশ বছর পর বেসরকারি কলেজের প্রভাষকদের ৮ম গ্রেড দেয়ার জন্য পরিপত্র জারি করা হয়েছে। অর্থাৎ ১০ বছর পর তাদের বেতন বাড়ছে মাত্র ১০০০ টাকা। একটু ভেবে দেখুন, বিষয়টি কতটা অমানবিক এবং বিবেক বিসর্জিত। এমনিতেই কলেজের প্রভাষকরা ৫ শতাংশ হারে ইনক্রিমেন্ট পেয়ে বেতন স্কেল ২৪০০০ টাকা অতিক্রম করেছে।

পৃথিবীর অনেক দেশেই শিক্ষক নিয়োগে কঠোর বিধান মানা হয় এবং বেছে বেছে মেধাবীদের নিযুক্ত করা হয়। এইসব দেশে শিক্ষকদের সর্বোচ্চ মর্যাদা দেয়া হয় এবং সর্বোচ্চ বেতন দেয়া হয়। আমাদের দেশে বেসরকারি কলেজের প্রভাষকরা অনুপাতের কালো আইনের জাঁতাকলে পিষ্ট হয়ে পুড়ে মরছে। একই সাথে চাকরি করে শুধু যোগদান একদিন আগে দেয়ার কারণে অথবা ৫ বা ১০ মিনিট আগে যোগদান করার কারণে কেউবা সহকারী অধ্যাপক হয়ে ৩৫ হাজার ৫০০ টাকার স্কেল পাচ্ছেন। আর মাত্র পাঁচ মিনিট পরে যোগদান করার কারণে অনুপাত প্রথার মারপ্যাঁচে দীর্ঘদিন যাবৎ ২২ হাজার টাকার স্কেলে চাকরি করছেন। অনুপাত প্রথার কালো বিধান অনেক সিনিয়র প্রভাষক প্রভাষক পদে থেকেই চাকরি থেকে অবসর নিচ্ছেন। কি নির্মম নিয়তি তাদের জন্য।

তাছাড়া প্রচলিত আইন অনুযায়ী, এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের অভিজ্ঞতা যোগদানের তারিখ থেকে গণনা না করে এমপিওভুক্তি হবার তারিখ থেকে অভিজ্ঞতা গণনা করা হয়। মানবতাবোধকে পরাজিত করে এখানেও শিক্ষকদের ঠকানো হয়। কেননা কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হতে ১২ থেকে ১৫ বছর সময় লেগে যায়। এই দীর্ঘ সময়ে শিক্ষকরা কোনো প্রকার বেতন ভাতা বা সরকারি সহায়তা পান না। অর্ধাহারে বা না খেয়ে লাখো লাখো শিক্ষকদের দিন চলে। এই দীর্ঘ সময়ে শিক্ষকরা রাষ্ট্র থেকে ন্যূনতম মৌলিক সহায়তা পান না। অথচ এই দীর্ঘ ১২ বা ১৫ বছর এমপিওবিহীন শিক্ষকদের শিক্ষা কার্যক্রম ও ক্লাস ঠিকমতো নিতে হয়। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হলে কেবল তারপর থেকে তাদের অভিজ্ঞতা গণনা করা হয়। এই দীর্ঘ সময় একজন শিক্ষক অক্লান্ত পরিশ্রম করে যে ক্লাসগুলো নিলেন সেগুলো অভিজ্ঞতায় আমল করা হয় না। ধরা যাক, একটি প্রতিষ্ঠান ১৫ বছর পর এমপিওভুক্ত হলো। এমপিওভুক্ত হবার ১০ বছর পর তিনি পরবর্তী গ্রেডে উন্নীত হবেন। অর্থাৎ ওই শিক্ষক চাকরিতে যোগদানের ২৫ বছর পর উচ্চতর গ্রেড পাবে। ২৫ বছর পর একজন কলেজ প্রভাষকের বেতন বৃদ্ধি পাবে মাত্র এক হাজার টাকা। ভাবতে পারেন, বিষয়টি কতটা অমানবিক! এই বিবেকহীন সিদ্ধান্ত থেকে আমরা মুক্তি চাই।

শিক্ষক যে-সে শ্রেষ্ঠ সবার। এই চিরন্তন সত্যটি আবারো বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষায় বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া দরকার। তা না হলে জাতীয় বাজেটে শিক্ষায় যতই বরাদ্দ বাড়ানো হোক না কেন বাঙালি জাতি সুশিক্ষায় গড়ে উঠবে না। আর জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নও  কখনো বাস্তবায়িত হবে না। কেননা শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। আর এই মেরুদণ্ড সোজা করতে হলে শিক্ষকদের আর্থিক সুবিধা বাড়ানো ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই।

লেখক : মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, প্রভাষক, ব্যবস্থাপনা, শহীদ রওশন আলী খান ডিগ্রি কলেজ, বাসাইল, টাংগাইল।

[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন।]

একাদশে শিগগিরই ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে : শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha একাদশে শিগগিরই ভর্তি কার্যক্রম শুরু হবে : শিক্ষামন্ত্রী প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বন্ধের পরিকল্পনা নেই : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বন্ধের পরিকল্পনা নেই : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩ হাজার ৩৬০ - dainik shiksha করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩ হাজার ৩৬০ অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ হতে পারছেন না প্রভাষকরা: রুলের জবাব দেয়নি সরকার - dainik shiksha অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ হতে পারছেন না প্রভাষকরা: রুলের জবাব দেয়নি সরকার ‘বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিকথা’ নামে আরেকটি বই প্রকাশ হবে - dainik shiksha ‘বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিকথা’ নামে আরেকটি বই প্রকাশ হবে শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান - dainik shiksha শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান শিক্ষক প্রশিক্ষণের নামে টেসলের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ - dainik shiksha শিক্ষক প্রশিক্ষণের নামে টেসলের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক - dainik shiksha বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে - dainik shiksha শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website