please click here to view dainikshiksha website

প্রশ্নফাঁসে অভিযুক্ত শিক্ষকদের মন্ত্রণালয়ের ক্ষমা

মুরাদ মজুমদার   | ডিসেম্বর ৫, ২০১৭ - ৪:৩৭ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

স্মার্টফোন সঙ্গে নিয়ে ট্রেজারি থেকে এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন আনার সময় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন রাজধানীর দুই কলেজের তিনজন প্রভাষক। ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের ২রা এপ্রিলের এ ঘটনায় ওইদিনই তিন প্রভাষকের মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত ও এমপিও (বেতন-ভাতার সরকারি অংশ)স্থগিত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সত্য, মাত্র চার মাস পরেই জড়িত শিক্ষকদের শর্ত সাপেক্ষে ‘ক্ষমা’করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। গত ৯ আগস্ট ও ২৫ সেপ্টেম্বরের মন্ত্রণালয়ের পৃথক দুটি আদেশে তিন শিক্ষকের এমপিও স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হয়। জড়িত প্রভাষকরা ফের এমপিও পাওয়া শুরু করেছেন এবং চার মাসের বকেয়া বেতন-ভাতার টাকাও ফেরত চাচ্ছেন। দৈনিকশিক্ষার  অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে এ কাহিনী।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ২০টি

  1. Masud Mostafa Masud says:

    ক্ষমাই মহৎ গুন। আশা করি শিক্ষকরা ভবিষ্যতে এ ধরণের কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকবেন ।

  2. Md.Mahabubur Rahaman says:

    আপনার মন্তব্য
    চোরের ও মামা খালু আছে।

  3. পার্থসারথি রায়, প্রভাষক, রসায়ন, গুঠিয়া আইডিয়াল কলেজ, বরিশাল। says:

    শিক্ষক নামের এসব কুলাঙ্গারদের স্থায়ীভাবে চাকুরীচ্যুত করা উচিত। যারা এই কুলাঙ্গারদের ক্ষমা করে দিয়েছে তারাই মূলত: দূর্নীতির গুরু। মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী পারলে এদের কিছু একটা করুন। নতুবা আপনিও প্রশ্নবিদ্ধ হবেন।

  4. Saiyedul Bashar মুন্সিগঞ্জ says:

    স্কুল এবং মাদরাসার ছুটি সমান চাই। স্কুলের ছুটি ৮৫ দিন মাদরাসার ছুটি ৭৫ দিন কেন? জবাব চাই।

  5. Saiyedul Bashar মুন্সিগঞ্জ says:

    মাদরাসার ছুটি ৭৫ স্কুলের ছুটি ৮৫ কেন? সমান চাই

  6. লিটন মন্ডল, সহকারী শিক্ষক (গণিত), আট্টাকা কে. আলী পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়,ফকিরহাট,বাগেরহাট। says:

    এরা শিক্ষক নামের কলঙ্ক। এদের চাকরিচ্যুৎ করা উচিৎ।

  7. Md. Ashraful Alam says:

    ঘটনা দেখে মনে হচ্ছে, ঘটনার আড়াল অন্য কাহিনি আছে এবং কেঁচো খুড়তে সাপ বেড়িয়ে আসার ভয়ে, মন্ত্রণালয় ক্ষমার পথে হেটেছে।

  8. মোঃ হবিবর রহমান, বীরগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ, দিনাজপুর। says:

    খোঁজ নিয়ে দেখেন এরা দুজনই অধ্যক্ষের নিকটজন এবং স্নেহভাজন। বারবার পরীক্ষা কমিটিতে আসেন। আমার ধারনা অধ্যক্ষও এই জঘন্য কর্মকান্ডের নেপথ্যে মাষ্টারমাইন্ড। কেঁচো খুরা হলো কিন্তু সাপ পর্যন্ত যাওয়া হলোনা।

  9. বিবেক says:

    স্থগিত মানব বিবেক
    ধ্বংষের মুখে শিক্ষা

  10. মোঃ সাইফুল্লাহ্ , মান্দা , নওগাঁ says:

    যারা ভূয়া সার্টিফিকেট দিয়ে নিয়োগ নিয়েছেন তাদের এমপিও দিন আর যারা আসল সার্টিফিকেট দ্বারা নিয়োগ নিয়েছেন তাদের এমপিও দিচ্ছেন না। চুরের দেশে আসল সার্টিফিকেট ধারীদের মর্যাদা নাই । বেকার জীবন, তৃতীয় শিক্ষক ।

  11. মোঃ হবিবর রহমান, প্রভাষক, দিনাজপুর says:

    ট্রেজারি থেকে কেন্দ্র পর্যন্ত প্রশ্ন কার হেফাজতে থাকার কথা। প্রশ্নের সংগে ইউ.ওন.ও মহোদয়ের একজন প্রতিনিধি থাকার কথা। তার ভুমিকা কি ছিল। কেন্দ্র সচিব কোথায় ছিল? প্রতিনিধি দিয়েই খালাস? বোঝা গেছে প্রশ্ন পত্রের নিরাপত্তা নিয়ে অত্যন্ত ছেলেখেলা হয়েছিল।

  12. আরিফ says:

    ক্ষমা মহত্বের লক্ষন।

  13. মোহাম্মদ ইসকান্দার আলম রাউজান,চট্টগ্রাম says:

    বোঝা যাচ্ছে,ঘটনার ভেতর ঘটনা আছে।

  14. MD.Zakir Hossain says:

    Movement cholbe proteome school talk dite gone.

  15. মোঃএনচানুর রহমান, মধ্য কুমরপুর, ভোগডাঙ্গা, কুড়িগ্রাম। says:

    প্রশ্ন ফাসে সব মহলই জড়িত আছে।কাকে বলে কাকা সবারে দাঁড়ি পাকা।

  16. মোঃ মিজানুর রহমান,সহকারী শিক্ষক,বলইবু‌নিয়া মাধ্য‌মিক বিদ্যালয়,‌বেতাগী,বরগুনা। says:

    ‌শিক্ষক সমাজ‌কে কল‌ঙ্কিত করা উ‌চিৎ নয়,ম‌নে রাখা উ‌চিৎ আমরা শিক্ষক আমা‌দের অনুসরণ ক‌রে অন্যরা চল‌বে।

  17. মো: হুমায়ুন কবির,,প্রভাষক, আ: জ. ক। says:

    অসুবিধা কি? চোরকে বলে চুরি কর, আর মালিককে বলে সজাগ থাক।

  18. মো: হুমায়ুন কবির,,প্রভাষক, আ: জ. ক। says:

    No problem.

আপনার মন্তব্য দিন