ফের জাবির ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ল - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

ফের জাবির ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ল

জাবি প্রতিনিধি |

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক সম্মান শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষার অনলাইন আবেদন শুরু হয়েছে। ছয়টি অনুষদ ও তিনটি ইনস্টিটিউটের অধীনে মোট ১০টি ইউনিটে ভর্তির আবেদন চাওয়া হয়েছে। তবে এবারও ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়িয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ভর্তি পরীক্ষার ফরম বিক্রি বাবদ আয়ের ৪০ শতাংশ টাকা উন্নয়নমূলক কাজের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় তহবিলে রাখতে মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) নির্দেশনা থাকলেও তা মানছে না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, দীর্ঘদিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ানো ও ভর্তির আবেদনের টাকা শিক্ষকদের ভাগাভাগির এ ধরনের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন ছাত্রসংগঠন ও সাংস্কৃতিক জোট। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের সঙ্গে দেখা করে শিক্ষার্থীদের একটি প্রতিনিধি দল ফরমের মূল্য কমানোর দাবি জানিয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা শাখার তথ্যমতে, চলতি শিক্ষাবর্ষে এ, বি, সি, ডি, এবং ই ইউনিটের ভর্তির ফরমের মূল্য গত বছরের চেয়ে ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৬০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া সি১, এফ, জি, এইচ এবং আই ইউনিটের ফরমের মূল্যও ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৪০০ টাকা করা হয়েছে। ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষে এ, বি, সি এবং ডি ইউনিটের ভর্তি ফরমের মূল্য ছিল ৩৫০ টাকা। ক্রমান্বয়ে তা বাড়িয়ে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষে ৫২৫ ও ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষে ৫৫০ টাকা তথা প্রতিবছর ফরমের মূল্য ২৫ টাকা করে বাড়ানো হয়। তবে এবার একবারেই বাড়ানো হয়েছে ৫০ টাকা। ফলে গত আট বছরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ানো হয়েছে ৭২ শতাংশ।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষার ফরম বিক্রি করে বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট আয় হয় ১২ কোটি ২৯ লাখ টাকা। ভর্তি কার্যক্রমের যাবতীয় খরচ বাদ দিয়ে অবশিষ্ট থাকে ৯ কোটি টাকা। কিন্তু এ বিপুল অঙ্কের টাকা কোনো ধরনের হিসাব ছাড়াই কয়েকটি বিভাগে আসবাবপত্র কেনার জন্য সামান্য কিছু দিয়ে বাকিটা সম্মানী হিসেবে ভাগ করে নিয়েছেন ভর্তি পরিচালনা কমিটি ও সংশ্নিষ্ট শিক্ষকরা।

প্রশাসনিক সূত্রে জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি পরীক্ষায় দায়িত্ব পালন ও কেন্দ্রীয় ভর্তি পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে উপাচার্য তিন লাখ টাকা, দুই উপ-উপাচার্য, কোষাধ্যক্ষ, অনুষদের ডিন ও ইনস্টিটিউটের প্রধান প্রত্যেকে পেয়েছেন দুই লাখ ৯০ হাজার টাকা। আর ভর্তি পরীক্ষায় যেসব শিক্ষক পরিদর্শক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন, তারা পেয়েছেন এক লাখ ৪৫ হাজার টাকা করে। কেন্দ্রীয় ভর্তি পরিচালনা কমিটিতে যেসব কর্মকর্তা যুক্ত রয়েছেন, তারাও পেয়েছেন এক  লাখ ৪৫ হাজার টাকা করে। এ ছাড়া পরীক্ষায় নিরাপত্তা কমিটিতে দায়িত্ব পালন করেছেন ১২ শিক্ষক ও পাঁচজন কর্মকর্তা। নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনকারী প্রতি শিক্ষক এক লাখ ৪৫ হাজার টাকা এবং প্রতি কর্মকর্তা ৭২ হাজার ৫০০ টাকা হারে সম্মানী পান। অন্যদিকে, প্রতি কর্মকর্তা এক হাজার টাকা এবং প্রতি কর্মচারী ৫০০ টাকা হারে নিয়েছেন। এবার শিক্ষাবর্ষে হয়তো এসব হিস্যা আরও বাড়বে।

দিন দিন ফরমের মূল্য বাড়ানোর প্রতিবাদ করে 'জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোট' সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, ফরমের মূল্য বাড়ানোয় এ সময়ে ভর্তিচ্ছু দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারগুলো সংকটে পড়ে। শিক্ষকদের এই ভাগবাটোয়ারা একদিকে যেমন দরিদ্র শিক্ষার্থীদের প্রতি শোষণ, অন্যদিকে শিক্ষকদের ভোগ-বিলাসের মাত্রা বাড়াচ্ছে। 

এ ব্যাপারে সম্মিলিত শিক্ষক সমাজের সদস্য ও নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে দু'বেলা খাওয়ার টাকা থাকে না, এমন শিক্ষার্থীও ভর্তি হয়। তাই এভাবে ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ানো উচিত নয়। তা ছাড়া পরীক্ষায় কয়েক ঘণ্টা ডিউটি দিয়ে 'চমকপ্রদ' অঙ্কের টাকা আমরা নিচ্ছি। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হিসেবে আমাদের জন্য মর্যাদাপূর্ণ নয়। 

ভর্তি ফরমের মূল্য বাড়ানোর ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আমির হোসেন বলেন, এ বছরের বাজেটের পর জিনিসপত্রের দাম অনেক বেড়েছে। তাই ফরমের দাম বাড়ানো হয়েছে।

গত বছরের ভর্তি ফরমের ৯ কোটি টাকা উদ্বৃত্ত থাকার পরও আবার কেন দাম বাড়ানো হলো- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, একটি নিয়ম চালু হলে তা বন্ধ করা যে কোনো প্রশাসনের পক্ষে কষ্টকর। তা ছাড়া প্রতিবছর শিক্ষকদের সম্মানী বাড়ানোরও একটা চাপ থাকে।

সম্মিলিত ভর্তি পরীক্ষা হলে এমন চিত্র দূর করা সম্ভব বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগম। তিনি বলেন, ফরমের মূল্য বাড়ানো বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরীণ বিষয়। তবে কোনো বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি ফরমের আয়ের ৪০ শতাংশ টাকা তহবিলে জমা না দিলে ইউজিসি অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে।

শোক দিবস পালনের চিঠিতে অনুপস্থিত ‘জাতির পিতা’ - dainik shiksha শোক দিবস পালনের চিঠিতে অনুপস্থিত ‘জাতির পিতা’ শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে কমিটির প্রস্তাব - dainik shiksha শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্য বন্ধে কমিটির প্রস্তাব জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও ১৮ অপ্রয়োজনীয় কর্মকর্তা নিয়োগ - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে আরও ১৮ অপ্রয়োজনীয় কর্মকর্তা নিয়োগ শিক্ষা ভবনে জামাতপন্থি কর্মকর্তা, ছাত্রলীগের তোপের মুখে মহাপরিচালক - dainik shiksha শিক্ষা ভবনে জামাতপন্থি কর্মকর্তা, ছাত্রলীগের তোপের মুখে মহাপরিচালক প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার রুটিন - dainik shiksha প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষার রুটিন এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর - dainik shiksha এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষা ৪ অক্টোবর কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website