বই মুদ্রণে আন্তর্জাতিক দরপত্রের প্রয়োজন নেই: ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ - বই - Dainikshiksha

বই মুদ্রণে আন্তর্জাতিক দরপত্রের প্রয়োজন নেই: ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক |

বছরের শুরুতে বিনা মূল্যে কোটি কোটি বই বিতরণ করে সরকার। আর এসব বই মুদ্রণ, বাঁধাই ও সরবরাহ স্থানীয়ভাবেই করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা। তাঁরা বলছেন, সরকার ভর্তুকি দিয়ে বেশ কিছু বই আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে নিয়ে আসে। তবে খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের মতে, দেশে যেহেতু সব বই ছাপানোর সক্ষমতা রয়েছে, সেহেতু বিনা মূল্যে বই কর্মসূচির জন্য এখন আর আন্তর্জাতিক দরপত্রের প্রয়োজন নেই। দৈনিক কালেরকণ্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত এক সংবাদে এ তথ্য জানা গেছে।

গতকাল শনিবার রাজধানীর মতিঝিলে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ে এক আলোচনাসভায় বক্তারা এসব তথ্য তুলে ধরেন। এফবিসিসিআইয়ে সদস্যভুক্ত অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে খাতভিত্তিক সমস্যা চিহ্নিত করা ও তাদের সমস্যাগুলো কর্মপরিকল্পনা বিষয়ে আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। এতে এফবিসিসিআইয়ের সদস্যভুক্ত ২৫টি অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা অংশগ্রহণ করেন। ব্যবসায়ী নেতারা জানান, চলতি বছরের শুরুতেই তাঁরা প্রায় ৩৬ কোটি বই স্থানীয়ভাবে মুদ্রণ করেছেন। আর এসব বই কোনো রকম সমস্যা ছাড়াই ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে। সংগঠনের সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আলোচনাসভায় এফবিসিসিআইয়ের প্রথম সহসভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম এই সভা সঞ্চালনা করেন। এফবিসিসিআইয়ের সহসভাপতি মো. মুনতাকিম আশরাফ ও সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাসহ এফবিসিসিআইয়ের পরিচালকরা উপস্থিত ছিলেন।

শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে অনেক সমস্যা ও সম্ভাবনা আছে। তবে নানা সীমাবদ্ধতার কারণে দেশের ব্যবসায়ীরা তাঁদের ব্যবসাকে এগিয়ে নিতে পারছেন। এসব সমস্যা চিহ্নিত করে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরির জন্য আমরা সরকারের সঙ্গে সেতুবন্ধ তৈরি করব। এ জন্য আমাদের আজকের এ উদ্যোগ। এ ছাড়া এফবিসিসিআইয়ের বিভিন্ন কমিটি এখন থেকে মন্ত্রণালয়গুলোর সঙ্গে সরাসরি কাজ করবে।’

অ্যাসোসিয়েশন অব ওয়েভ প্রিন্টার্স অব বাংলাদেশের মহাসচিব এম এম মহসিন বলেন, ‘বিদেশি দরপত্রের কারণে স্থানীয় মুদ্রণ ব্যবসায়ীরা বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন। জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) বিনা মূল্যে বই মুদ্রণে দরপত্র মূল্যায়নে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা ১৫ শতাংশ সুবিধা পেলেও আন্তর্জাতিক দরপত্রের বেলায় সরকার ট্যাক্স, ভ্যাট লেভি প্রদান করে প্রায় ৩১ শতাংশ সুবিধা দেয়। এর ফলে সরকারকে ভর্তুকি দিতে হয়।’

সরকার প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বিনা মূল্যে বিতরণ করে মোট ৩৬ কোটি বই। এর মধ্যে মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্য বই ছাপিয়েছেন দেশীয় মুদ্রাকররা।

তবে, দৈনিকশিক্ষার অনুসন্ধানে জানা যায়, দেশৗয় মূদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো বই ছাপানোর কাজে সরকারগুলোকে জিম্মি করে রাখার অভ্যাস পুরনো। দেশীয় মূদ্রণ প্রতিষ্ঠানগুলো অধিক মুনাফা লাভের আশায় পাঠ্যবইয়ের আগে বাজারে নোট-গাইড ছেড়ে আসছিলো। তাদের কারণেই সময়মতো পাঠ্যবই বিতরণ করা যাচ্ছিল না। এমন প্রেক্ষাপটে শেখ হাসিনার সরকার আন্তর্জাতিক টেন্ডার আহ্বান শুরু করে ২০০৯ খ্রিস্টাব্দ থেকে। ২০১০ খ্রিস্টাব্দ থেকেই সময়মতো বই দিতে পারছে সরকার।

নতুন স্কেলে কল্যাণের টাকা পেতে আবার আবেদন, শিক্ষকদের ক্ষোভ - dainik shiksha নতুন স্কেলে কল্যাণের টাকা পেতে আবার আবেদন, শিক্ষকদের ক্ষোভ তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস মূল্যায়নে কমিটি গঠন - dainik shiksha তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত ক্লাস মূল্যায়নে কমিটি গঠন ঘুষ লেনদেন ছাড়া প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলি হয় না - dainik shiksha ঘুষ লেনদেন ছাড়া প্রাথমিক শিক্ষকদের বদলি হয় না দুই হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও পেতে পারে - dainik shiksha দুই হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও পেতে পারে সাড়ে তিন লাখ সরকারি পদ শূন্য - dainik shiksha সাড়ে তিন লাখ সরকারি পদ শূন্য প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আগামী মাসেই - dainik shiksha প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আগামী মাসেই সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি - dainik shiksha সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি একাদশে ভর্তির আবেদন ১২ মে থেকে - dainik shiksha একাদশে ভর্তির আবেদন ১২ মে থেকে ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website