বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি অনেক আগেই জাতীয়করণ হতো - মাদরাসা - Dainikshiksha

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি অনেক আগেই জাতীয়করণ হতো

নিজস্ব প্রতিবেদক |

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা অনেক আগেই জাতীয়করণ করা হতো বলে মনে করেন বাংলাদেশ স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষক সমিতির নেতারা। সোমবার (১৩ আগস্ট) সকাল ১১টায় বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে  আয়োজিত জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা,দোয়া ও  মিলাদ মাহফিলে বক্তারা একথা বলেন।

সমিতির সভাপতি কাজী রুহুল আমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন  মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান, সহ-সভাপতি মাওলানা মোঃ শাহজাহান, তাজুল ইসলাম ফরাজী, জিয়াউল হক জিয়া, আবু মুসা ভূইয়া, ইনতাজ বিন হাকিম, মোঃ সামছুল আলম, সরদার কামাল উদ্দিন, আব্দুর রাজ্জাক, নাসরিন বেগম, ফেন্সী খাতুন, আব্দুর রশিদ, কাজী বেলাল হোসেন, আলতাফ হোসেন, মোখলেছুর রহমান, আব্দুল হান্নান, রেজাউল করিম, মতিয়ার রহমান, আবুল কালাম আজাদ, মোঃ আনোয়ার হোসেন, শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।
 
মহাসচিব কাজী মোখলেছুর রহমান বক্তব্যে বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মীনি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল, শিশু পুত্র শেখ রাসেল, পুত্রবধু সুলতানা কামাল ও রোজি জামালসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্টজন। আমরা সমিতির পক্ষ থেকে তাদের মাগফেরাত কামনা করে এ দিনটিকে “জাতীয় শোক দিবস” হিসেবে পালন করে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে চিরস্মরণীয় করে রাখতে চাই।


 
ইনতাজ বিন হাকিম বলেন, ঘাতকরা মনে করেছিল বঙ্গবন্ধুকে মেরে তার নাম নিশানা বাংলাদেশ থেকে মুছে ফেলবে। কিন্তু না আজ ৪৩ বছর পরেও প্রমাণ হয়েছে জীবিত মুজিবের চেয়ে মৃত মুজিব আরো শক্তিশালী ও আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। শুধু বাংলার মানুষ নয় সারা বিশ্ববাসী বুঝতে পেরেছে বঙ্গবন্ধুকে হারিয়ে তারা বিশ্বমানের একজন নেতাকে হারিয়েছে এবং দেশের হয়েছে অপুরণীয় ক্ষতি। আজ তিনি বেঁচে থাকলে আমাদের স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদরাসা অনেক আগেই জাতীয়করণ করা হত।  

ডিগ্রি ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু আজ - dainik shiksha ডিগ্রি ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু আজ বৈশাখী ভাতা ও ইনক্রিমেন্ট কার্যকর জুলাই থেকেই - dainik shiksha বৈশাখী ভাতা ও ইনক্রিমেন্ট কার্যকর জুলাই থেকেই সরকারি হলো আরও ৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয় - dainik shiksha সরকারি হলো আরও ৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা - dainik shiksha ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু - dainik shiksha আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি - dainik shiksha নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি শিক্ষকদের অন্ধকারে রেখে দেড় লাখ কোটি টাকার প্রকল্প! - dainik shiksha শিক্ষকদের অন্ধকারে রেখে দেড় লাখ কোটি টাকার প্রকল্প! একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৪৭ প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৪৭ প্রতিষ্ঠান দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website