বরখাস্ত মাদরাসা সুপারের এমপিও ভোগ! - মাদরাসা - দৈনিকশিক্ষা

বরখাস্ত মাদরাসা সুপারের এমপিও ভোগ!

যশোর প্রতিনিধি |

যশোরের দলেন নগর আদবিয়া দারুল উলুম দাখিল মাদরাসার সুপার আবুল খায়ের মো. খায়রুল ইসলাম বরখাস্ত হওয়ার পরেও এমপিও ভোগ করছেন। কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার সুযোগ নিয়ে বরখাস্ত হওয়ার পরেও এমপিও ভোগ করছেন তিনি। যদিও সাময়িক বরখাস্তের পর তার এমপিও স্থগিত থাকার কথা। বরখাস্ত হওয়ার তথ্য গোপন করে এমপিও ভোগ করছেন তিনি।

তবে, বরখাস্ত হওয়ার তথ্য জানা না থাকায় সুপারের এমপিওর বিলে স্বাক্ষর করেছেন বলে দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে জানিয়েছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান। এমন ভুল আর হবে না বলেও দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে নিশ্চিত করেছেন তিনি

জানা গেছে, সুপার আবুল খায়ের মো. খায়রুল ইসলামকে সাতটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনবার শোকজ করা হয় ম্যানেজিং কমিটি। সুপারের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল বিনা রেজুলেশনে ও সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে এফডিআরের টাকা উত্তোলন, দাখিল ও জেডিসি পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ অতিরিক্ত ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা ফি নেয়া, টিউশন বা উপবৃত্তির টাকা খরচের ভাউচার না রাখা, ভুয়া অভিভাবক সদস্য নির্বাচন করা, এক মহিলার সাথে অনৈতিক কার্যকালাপ, মেডিকেল ছুটি নিয়ে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর ও মাসে ৫ থেকে ৭ দিন উপস্থিত থেকে পুরো মাসের স্বাক্ষর করা ও নিজের সার্টিফিকেট কমিটিকে না দেখানো।

সেই কমিটির সদস্যরা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, নির্ধারিত সময়ের মধ্য শোকজের কোনো জবাব না দেয়ায় কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত ২৫ মার্চ সুপারকে সময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। সহকারী সুপার হাবিবুর রহমানকে ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব দেয়া হয়। আর রেজুলেশনের মাধ্যমে  সুপারকে অর্ধেক বেতন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। ওই সময় প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ছিলেন দলেন নগর গ্রামের মতিয়ার রহমান বিশ্বাসের ছেলে হাবিবুর রহমান। গত ১৬ মে ওই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়। তার আগেই সুপার কওসার আলী নামের এক ব্যাক্তিকে সভাপতি করে নিয়মিত কমিটি গঠন করে। সেই কমিটি অনুমোদনের জন্য সুপার মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডে পাঠান। কিন্তু সেই কমিটির অভিভাবক সদস্য নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ করেন সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী ঐশি খাতুনের বাবা রশিদুল ইসলাম। সে কারণে এখনো মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড থেকে নিয়মিত কমিটির অনুমোদন দেয়া হয়নি।  

তারা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে আরও বলেন, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের জারি করা আদেশের প্রেক্ষিতে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন ভাউচারে স্বাক্ষর করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান। প্রতিষ্ঠানে কোনো ম্যানেজিং না থাকায় সেই সুযোগে সুপার তার তথ্য গোপন করেছেন এবং এমপিও বাবদ সম্পূর্ণ বেতন-ভাতাসহ সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছেন।

ওই সময়ের সভাপতি হাবিবুর রহমান দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে বলেন, সুপারের ফাজিল পাসের সার্টিফিকেট ভুয়া। তার বিরুদ্ধে সাতটি অভিযোগ ছিল। তাকে তিন বার শোকজ করা হয়েছিল। তিনি একবারও জবাব দেননি। তাই তাকে অর্ধেক বেতন দিয়ে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্তপত্রের অনুলিপি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে দেয়া হয়। এখন কোনো কমিটি না থাকায় সুপার পুরো বেতন নিচ্ছেন ও দায়িত্বও পালন করছেন। তিনি বরখাস্ত মানছেন না।

সহকারী সুপার হাবিবুর রহমান দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে বলেন, সুপারকে বরখাস্ত করে ম্যানেজিং কমিটি ভারপ্রাপ্ত সুপারের দায়িত্ব দিয়েছেন। কিন্তু সুপার তাকে দায়িত্ব দেয়নি। অবৈধভাবে সুপার দায়িত্ব পালন করছেন। সেই সাথে সম্পূর্ণ বেতনও তুলছেন। তার অধীনে আমরা চাকরি করি তাই কিছুই বলতে পারি না।

বিষয়টি জানার জন্য সুপার আবুল খায়ের মো. খায়রুল ইসলামের সাথে দৈনিক শিক্ষা ডটকমের পক্ষ থেকে একাধিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুজ্জামান দৈনিক শিক্ষা ডটকমকে বলেন, সুপার সাময়িক বরখাস্ত আছেন, এ ঘটনাটি কেউ জানাননি। তাই ভুল করে সম্পূর্ণ বেতন বিলে স্বাক্ষর করেছি। ঘটনাটি জানার পর এ ভুল আর করবো না।

করোনায় আরও ৫৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৭৩৮ - dainik shiksha করোনায় আরও ৫৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২ হাজার ৭৩৮ সৌদি আরবে থেকেও নিয়মিত হাজিরা, এমপিওভুক্তি! - dainik shiksha সৌদি আরবে থেকেও নিয়মিত হাজিরা, এমপিওভুক্তি! শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান - dainik shiksha শিক্ষায় বঙ্গবন্ধুর অবদান নিয়ে লেখা আহ্বান শিক্ষক প্রশিক্ষণের নামে টেসলের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ - dainik shiksha শিক্ষক প্রশিক্ষণের নামে টেসলের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ সরকারি স্কুল-কলেজের কর্মচারীদের অনলাইনে পিডিএস পূরণ শুরু ৭ জুলাই - dainik shiksha সরকারি স্কুল-কলেজের কর্মচারীদের অনলাইনে পিডিএস পূরণ শুরু ৭ জুলাই অটোপাস দিতে পারবে স্কুল-কলেজগুলো - dainik shiksha অটোপাস দিতে পারবে স্কুল-কলেজগুলো গতবছরের উপবৃত্তি : সেকায়েপভুক্ত ৩৬ উপজেলার শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠাতে হবে ১২ জুলাইয়ের মধ্যে - dainik shiksha গতবছরের উপবৃত্তি : সেকায়েপভুক্ত ৩৬ উপজেলার শিক্ষার্থীদের তথ্য পাঠাতে হবে ১২ জুলাইয়ের মধ্যে পলিটেকনিকে ভর্তিতে বয়সসীমা: মন্ত্রণালয়ের ঘোষণার তীব্র বিরোধীতায় আইডিইবি - dainik shiksha পলিটেকনিকে ভর্তিতে বয়সসীমা: মন্ত্রণালয়ের ঘোষণার তীব্র বিরোধীতায় আইডিইবি এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৭৩ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হলেন আরও ৭৩ শিক্ষক বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক - dainik shiksha বিনামূল্যে আন্তর্জাতিক মানের ডিজিটাল কনটেন্ট দিচ্ছে টিউটর্সইঙ্ক শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে - dainik shiksha শিক্ষকদের ফ্রি অনলাইন প্রশিক্ষণ চলছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website