বাঁধ ভেঙে বিলীন হয়েছে ঘরবাড়ি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - বিবিধ - Dainikshiksha

বাঁধ ভেঙে বিলীন হয়েছে ঘরবাড়ি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

গাইবান্ধা প্রতিনিধি |

বানের পানির তোড়ে গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার কঞ্চিপাড়া ইউনিয়নের কৈতকিরহাট এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে একটি স্কুল, দোকানপাটসহ দুই শতাধিক ঘরবাড়ি মুর্হূতেই দেবে গেছে। ঘুমন্ত মানুষজন ভাঙার শব্দে হঠাৎ জেগে উঠে কোনোমতে নিরাপদ স্থানে অবস্থান নেয়। তবে বানের পানিতে ভেসে যায় ঘরের জিনিসপত্র। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটলেও গতকাল শনিবার পর্যন্ত স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ ক্ষতিগ্রস্তদের কেউ খোঁজ নেননি। 

এদিকে পানি অনেকটা কমতে শুরু করলেও বন্যাদুর্গত মানুষের দুর্ভোগ কমেনি। পানিবন্দি পরিবারগুলোর মাঝে খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি, ওষুধ ও গোখাদ্যের সংকট দেখা দিয়েছে। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীর পানি কিছুটা কমতে শুরু করলেও আতঙ্ক দেখা দিয়েছে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ নিয়ে। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপদসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় গতকাল পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় তিন হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

ফুলছড়ি উপজেলার কৈতকিরহাট বাজারের ফল ব্যবসায়ী আব্দুল খালেক জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে কৈতকিরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিছনে বাঁধের একটি ইঁদুরের গর্ত দিয়ে পানি প্রবেশ করতে থাকে। এ সময় স্থানীয়রা বালির বস্তা ও পল (খড়) দিয়ে গর্তটি বন্ধ করার চেষ্টা করে। হঠাৎ রাত ১টার দিকে প্রচণ্ড শব্দে বাঁধটি ধসে যায়।

দোতলা স্কুলভবনটিসহ আশপাশের দোকানপাট ও শতাধিক ঘরবাড়ি মুহূর্তে মাটিতে দেবে যায়। গ্রামের বাসিন্দারা কোনোমতে নিজের জীবন নিয়ে এক কাপড়ে ঘর থেকে বের হয়ে বাঁধের ওপর আশ্রয় নেয়। এ সময় মানুষের চিৎকার-চেঁচামেচিতে এলাকায় হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হয়। 

গতকাল সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, তারা এখন নিঃস্ব অবস্থায় ওই বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবনযাপন করছে। ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের আর্তনাদ এখনও পর্যন্ত স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের কানে পৌঁছায়নি। এমনকি সরকারি কোনো কর্মকর্তাও তাদের খোঁজ নিতে আসেননি।

ফুলছড়ি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কফিল উদ্দিন বলেন, বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর যতদ্রুত সম্ভব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি মেরামতের ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এখন পর্যন্ত উপজেলার তিনটি বিদ্যালয় নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে গাইবান্ধার ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি ধীরগতিতে হ্রাস পেলেও করতোয়া নদীর পানি এখনও বাড়ছে। ফলে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মহিমাগঞ্জ এলাকায় বাঙালি নদীর পানির তোড়ে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ভেঙে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। লালমনিরহাট-সান্তাহার রুটে গাইবান্ধার ত্রিমোহনী রেললাইন ডুবে যাওয়ায় চার দিন ধরে  ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন এই রুটে চলাচল করা যাত্রীরা। 

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, বন্যায় এ পর্যন্ত সাতটি উপজেলার ৫১টি ইউনিয়নের ৩৮৩টি গ্রামের চার লাখ ৮৫ হাজার ৩০০ লোক এবং ৪৪ হাজার ৭৯২টি বসতবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। 

সিরাজগঞ্জে যমুনা নদীতে পানি কিছুটা কমতে শুরু করলেও জেলার সাবিক বন্যা পরিস্থিতি অপরিবতিত রয়েছে। বন্যায় জেলার পাঁচ উপজেলার ৩৮টি ইউনিয়নের ৬৫ হাজার ৭৬৫টি পরিবারের দুই লাখ মানুষ বন্যাকবলিত হয়ে পড়েছে বলে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন সূত্রে জানা গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি ৯ সেন্টিমিটার কমলেও গতকাল বিকেলে বিপদসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপরে রয়েছে।

এতে জেলায় বিভিন্ন স্থানে পাউবোর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধের বেশ কিছু অংশে পানি চুয়ানোর মাত্রা বেড়েছে। শুক্রবার রাতে কাজিপুরের ঢেকুরিয়া গ্রামে বাঁধ দিয়ে পানি চুয়ানোর কারণে আকস্মিক ফাটল দেখা দেয়। এত আতঙ্কিত হয়ে পড়েন স্থানীয়রা। রাতেই খবর পেয়ে পাউবোর লোকজন সেখানে বালির বস্তা ফেলে কোনোমতে ভাঙন ঠেকায়। সিরাজগঞ্জ শহর রক্ষা বাঁধের দুটি ব্লক সরে গিয়ে কিছু অংশ বৃহস্পতিরার রাতে দেবে যায়। পানি সম্পদ সচিব শুক্রবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পাউবোর নকশা বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোতাহার হোসেনসহ স্থানীয় কর্মকর্তাদের বাঁধটি জরুরি মেরামতের নির্দেশ দেন।

এদিকে জেলার বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে সরকারিসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ত্রাণ বিতরণ শুরু হয়েছে। গতকাল দুপুরে কাজিপুরের মাইঝবাড়ীর ঢেকুরিয়ায় শহীদ মুনসুর আলী ইকোপার্কের অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে ১৩০০ পরিবারের মাঝে ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কাজিপুরের সাবেক এমপি তানভীর শাকিল জয় এসব ত্রাণ বিতরণ করেন। 

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে পদ্মার পানি বিপদসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা বন্যাকবলিত হয়ে অন্তত তিন হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবায়েত হায়াত শিপলু জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াতে গতকাল বিকেলে জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম দূর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন। তাদের তালিকা করে দ্রুত সময়ের মধ্যে ত্রাণ কার্যক্রম শুরু হবে।

সরকারি স্কুলে ভর্তির বয়স নির্ধারণ - dainik shiksha সরকারি স্কুলে ভর্তির বয়স নির্ধারণ রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠানে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান ব্যবহারের নির্দেশ - dainik shiksha রাষ্ট্রীয় সব অনুষ্ঠানে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান ব্যবহারের নির্দেশ না চাইলেও এমপিওভুক্ত তপোবন স্কুল - dainik shiksha না চাইলেও এমপিওভুক্ত তপোবন স্কুল প্যাটার্ন জটিলতায় এমপিওভুক্তিতে শিক্ষকদের ভোগান্তি (ভিডিও) - dainik shiksha প্যাটার্ন জটিলতায় এমপিওভুক্তিতে শিক্ষকদের ভোগান্তি (ভিডিও) ‘অনুপাত প্রথা বাতিল ও বদলি চালু করতে শিক্ষামন্ত্রীকেই উদ্যোগ নিতে হবে’ (ভিডিও) - dainik shiksha ‘অনুপাত প্রথা বাতিল ও বদলি চালু করতে শিক্ষামন্ত্রীকেই উদ্যোগ নিতে হবে’ (ভিডিও) প্রাথমিকে প্রধান শিক্ষকদের গ্রেড নিয়ে হাইকোর্টের রুল - dainik shiksha প্রাথমিকে প্রধান শিক্ষকদের গ্রেড নিয়ে হাইকোর্টের রুল ভুঁইফোঁড় বাদ দিয়ে যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে এমপিও দিন - dainik shiksha ভুঁইফোঁড় বাদ দিয়ে যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে এমপিও দিন এমপিওভুক্ত মাদরাসার তথ্য যাচাইয়ে যেসব কাগজপত্র লাগবে - dainik shiksha এমপিওভুক্ত মাদরাসার তথ্য যাচাইয়ে যেসব কাগজপত্র লাগবে ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০২০ খ্রিষ্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া দৈনিকশিক্ষার ফেসবুক লাইভ দেখতে আমাদের সাথে থাকুন প্রতিদিন রাত সাড়ে ৮ টায় - dainik shiksha দৈনিকশিক্ষার ফেসবুক লাইভ দেখতে আমাদের সাথে থাকুন প্রতিদিন রাত সাড়ে ৮ টায় শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন দৈনিক শিক্ষার আসল ফেসবুক পেজে লাইক দিন - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার আসল ফেসবুক পেজে লাইক দিন please click here to view dainikshiksha website