বেরোবি ভিসির বিরুদ্ধে পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ - বিশ্ববিদ্যালয় - দৈনিকশিক্ষা

বেরোবি ভিসির বিরুদ্ধে পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ

বেরোবি প্রতিনিধি |

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) আবার আইন ও জ্যেষ্ঠতা লঙ্ঘন করে নিজের পছন্দের ব্যক্তিকে বিভাগীয় প্রধান নিয়োগ দিয়েছেন ভিসি প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। যোগ্য ব্যক্তিকে বাদ দিয়ে ভিসির আশীর্বাদপুষ্ট রসায়ন বিভাগের এক নারী শিক্ষককে বিভাগীয় প্রধান নিয়োগ দেয়ায় শিক্ষকদের মাঝে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় নিয়োগবঞ্চিত শিক্ষক বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এবং ইউজিসি বরাবর লিখিত প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

এর আগে বর্তমান ভিসির আশীর্বাদপুষ্ট শিক্ষক না হওয়ায় ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান পদে আইন অমান্য এবং জেষ্ঠ্যতা লঙ্ঘন করে পছন্দের ব্যক্তিকে নিয়োগ এবং গণযোগযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান নিয়োগে আইন অমান্য করে তিন বছরের জায়গায় দুই বছরের জন্য নিয়োগ দেন। অন্যদিকে বিজনেস স্টাডিজ ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন নিয়োগের ক্ষেত্রে ভিসির পছন্দের শিক্ষক না হওয়ায় এ দুটি অনুষদের ডিনের পদ ভিসি নিজেই আঁকড়ে রেখেছেন দীর্ঘদিন থেকে।

১৭ জুন জনসংযোগ দফতর থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভিসির নির্দেশে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তানিয়া তোফাজকে বিভাগীয় প্রধান হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় নিয়োগবঞ্চিত শিক্ষক রেজিস্ট্রার এবং ইউজিসি বরাবর লিখিত প্রতিবাদে জানান, রসায়ন বিভাগে দুইজন সহযোগী অধ্যাপকের মধ্যে তিনি একজন; যিনি বিভাগ প্রতিষ্ঠার প্রথম থেকেই কর্মরত। এ বিভাগের প্রথম সিনিয়র শিক্ষক সম্প্রতি বিভাগীয় প্রধান হিসেবে মেয়াদ পূর্ণ করেন। আইন অনুযায়ী, সহযোগী অধ্যাপক হওয়ায় পরবর্তী বিভাগীয় প্রধান হিসেবে তার নিয়োগপ্রাপ্ত হওয়ার কথা। কিন্তু ভিসি আইন লঙ্ঘন করে পছন্দের একজনকে নিয়োগ দিয়েছেন। এ বিষয়ে অতিদ্রুত প্রতিকার ও সংশোধন দাবি করেন তিনি।

মুঠোফোনে সহযোগী অধ্যাপক ড. বিজন মোহন চাকী বলেন, প্রশাসনের দুর্নীতির প্রতিবাদ করায় আমাকে না দিয়ে ভিসির আস্থাভাজন ব্যক্তিকে বিভাগীয় প্রধান নিয়োগ দিয়েছেন। শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. একেএম ফরিদ-উল ইসলাম রসায়ন বিভাগসহ সব বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও ডিন নিয়োগে অনিয়মের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে আইন মোতাবেক সব নিয়োগ দেয়ার আহ্বান জানান। সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ভিসিবিরোধী শিক্ষকদের সংগঠন ‘অধিকার সুরক্ষা পরিষদ’র সদস্য সচিব খায়রুল কবির সুমন বলেন, ড. বিজন নামকরা একজন একাডেমিশিয়ান। ভিসির অনিয়ম-দুর্নীতির বিরুদ্ধে তিনি সব সময় সোচ্চার বলেই উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তার সঙ্গে এমন করা হয়েছে।

রেজিস্ট্রার আবু হেনা মুস্তফা কামালের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ভিসি হচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী। আমাকে যেটা নির্দেশ দেয়া হয়েছে, আমি সেটাকেই কার্যকর করেছি। আমি সিদ্ধান্ত নেয়ার কেউ না এবং এর জবাবদিহিতা দিতে পারব না। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

সব মাধ্যমিক স্কুল ডিজিটাল একাডেমি হবে ২০৩০ নাগাদ : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha সব মাধ্যমিক স্কুল ডিজিটাল একাডেমি হবে ২০৩০ নাগাদ : প্রধানমন্ত্রী অনলাইন ক্লাস তদারকি: স্কুল-কলেজ আকস্মিক পরিদর্শন করবেন কর্মকর্তারা - dainik shiksha অনলাইন ক্লাস তদারকি: স্কুল-কলেজ আকস্মিক পরিদর্শন করবেন কর্মকর্তারা ভর্তি না হলেও শিক্ষার্থীর ভর্তির তথ্য দিয়েছে হলিক্রস, অধ্যক্ষকে শোকজ - dainik shiksha ভর্তি না হলেও শিক্ষার্থীর ভর্তির তথ্য দিয়েছে হলিক্রস, অধ্যক্ষকে শোকজ অক্টোবর-নভেম্বরেই হচ্ছে ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলের পরীক্ষা - dainik shiksha অক্টোবর-নভেম্বরেই হচ্ছে ‘ও’ এবং ‘এ’ লেভেলের পরীক্ষা অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় - dainik shiksha অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় খাতা না দেখেই ফল প্রকাশ, বোর্ডের ২ পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরখাস্ত - dainik shiksha খাতা না দেখেই ফল প্রকাশ, বোর্ডের ২ পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরখাস্ত শিক্ষকের মান নিয়ে ৯২ শতাংশ শিক্ষার্থীর অসন্তোষ - dainik shiksha শিক্ষকের মান নিয়ে ৯২ শতাংশ শিক্ষার্থীর অসন্তোষ স্কুল খোলার প্রস্তুতি নিতে মন্ত্রণালয়ের ৯ নির্দেশনা - dainik shiksha স্কুল খোলার প্রস্তুতি নিতে মন্ত্রণালয়ের ৯ নির্দেশনা ১২ শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিও বাতিল - dainik shiksha ১২ শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিও বাতিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না - dainik shiksha শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগে এইচএসসি পরীক্ষা হচ্ছে না please click here to view dainikshiksha website