মহাপরিচালকের অপসারণ দাবি পাঁচ শিক্ষক সংগঠনের - সমিতি সংবাদ - Dainikshiksha

মহাপরিচালকের অপসারণ দাবি পাঁচ শিক্ষক সংগঠনের

নিজস্ব প্রতিবেদক |
জামায়াত নেতা ও যুদ্ধাপরাধী দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর বেয়াই কামাল উদ্দিন জাফরীর সঙ্গে মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বৈঠকের ঘটনায় অসন্তাষ ছড়িয়ে পরেছে শিক্ষক সমাজে। তোলপাড় চলছে শিক্ষা প্রশাসনে। সরকারি-বেসরকারি শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে জামায়াত নেতার বৈঠককে সরকারবিরোধী গোপন ষড়যন্ত্র অভিহিত করে অবিলম্বে মহাপরিচালক বিল্লাল হোসেনের অপসারন দাবি করেছেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা। ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে তারা বলেছেন, বিল্লাল হোসেন মাদ্রাসা অধিদপ্তরকে স্বাধীনতা বিরোধীদের আখড়ায় পরিণত করেছেন। অবিলম্বে অপসারণ না করা হলে মাঠে নামবেন শিক্ষকরা।
 
সোমবার(২৮ মে) দৈনিক শিক্ষায় ‘জামাত নেতার সঙ্গে মহাপরিচালকের গোপন বৈঠক’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। আজ ২৯ মে দৈনিক জনকন্ঠেও এই খবর প্রকাশ হয়। এতে বিব্রতকর অবস্থায় পড়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তোলপাড় চলছে সর্বত্র। শিক্ষা মন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বিষয়টি দ্রুত খতিয়ে দেখতে কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো: আলমগীরকে নির্দেশ দিয়েছেন। সচিব মঙ্গলবার এ নিয়ে কোন কথা বলতে রাজী না হলেও মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা দৈনিকশিক্ষাকে বলেছেন, দ্রুত তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে এর জন্য এক‘দুদিন সময় লাগতে পারে।
এর আগে সোমবার নিজ অফিস কক্ষে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বের করে দিয়ে যুদ্ধাপরাধী দেলাওয়ার হোসেন সাঈদীর বেয়াই হত্যা মামলাসহ নানা কেলেঙ্কারীতে অভিযুক্ত জামায়াত নেতা কামাল উদ্দিন জাফরীর সঙ্গে বৈঠক করেন মাদ্রাসা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। জনপ্রিয় ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকী হত্যা মামলার আসামী জাফরী। সোমবার সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর বোরাক টাওয়ারে অবস্থিত অধিদফতের মহাপরিচালক তার নিজ অফিস কক্ষে বৈঠক করেন। বৈঠক চলে সাড়ে বারোটা পর্যন্ত। 
 
 
এদিকে জাফরীর সঙ্গে মাদ্রাসা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের বৈঠকের ঘটনায় অসন্তাষ ছড়িয়ে পড়েছে শিক্ষক সমাজে। অবিলম্বে মহাপরিচালক বিল্লাল হোসেনের অপসারণ দাবি করেছে স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদ। স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের অঙ্গ সংগঠন স্বাধীনতা মাদ্রাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মাওলানা মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান নাঈম এবং সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ নজরুল ইসলাম এক বিবৃতিতে অধিদপ্তরের কার্যালয়ে যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর বেয়াই জামাত নেতা কামাল উদ্দিন জাফরীর সঙ্গে গোপন বৈঠকের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। নেতৃবৃন্দ বলেছেন, একজন সরকারী উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা সরকারীর অফিসে বসে একজন চিহিৃত স্বাধীনতা বিরোধীর এভাবে গোপন বৈঠক কোন ভাবেই গ্রহনযোগ্য নয়। 
 
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, মহাপরিচালক মোঃ বিল্লাল হোসেন এই দ্বায়িত্বে অধিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকেই বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়েন। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন একটি কমিটি গঠনের মাধ্যমে সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে মহাপরিচালক মোঃ বিল্লাল হোসেনের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন এবং বলেন, তদন্তের স্বার্থে এই মুহুর্তে তাকে অপসারন করতে হবে।
 
জামায়াত নেতার সঙ্গে মহাপরিচালকের বৈঠকের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। সংগঠনের সভাপতি মোহম্মদ আজিজুল ইসলাম অবিলম্বে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়ে বলেছেন, এই ঘটনাকে ছোট করে দেখলে সরকার ভুল করবে। এভাবে একজন যুদ্ধাপরাধীর আত্মীয় ও জামায়াত নেতার সঙ্গে একজন সরকার কর্মকর্তা বৈঠক করতে পারেনা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে পদক্ষেপ নিতে হবে। না হয় এটা শিক্ষক সমাজ ভালভাবে নেবেনা।
 
এ বৈঠককে সরকার বিরোধী গোপন ষড়যন্ত্র অভিহিত করে অবিলম্বে মহাপরিচালকের অপসারণ দাবি করেছে বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি। সংগঠনের সভাপতি নজরুল ইসলাম রনি বলেছেন, এটা কোনভাবেই মানা যায়না। আমরা ঘটনায় উদ্বিগ্ন। আমরা মনে করি দুজনই জামায়াত নেতা। তারা সরকার বিরোধী ষড়যন্ত্র করতেই এভাবে বৈঠক করেছেন। এই মহাপরিচালকের পূর্বের কর্মকান্ডও বিতর্কিত। তাই দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।
 
মহাপরিচালকের অপসারণ দাবি করেছে বাংলাদেশ শিক্ষক ইউনিয়ন। সংগঠনের সভাপতি আবুল বাশার হাওলাদার বলেছেন, আমরা শিক্ষক সমাজ ঘটনার জন্য অবিলম্বে মহাপরিচালকের অপসারন দাবি করছি। বিষয়টি উদ্বেগের। এভাবে একজন সরকারি কর্মকর্তা জামায়াতের সঙ্গে বৈঠক করতে পারেননা। 
 
এদিকে গোপন বৈঠক করলে সরকারের বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত বলে মনে করছে মাদ্রাসা শিক্ষকদের সবচেয়ে বগ সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেসীনের মহাসচিব শাব্বির আহমদ মোমতাজী। 
তিনি বলেন,  ‘সোমবার বিকেলে দৈনিক শিক্ষায় প্রতিবেদন দেখার পর আমি মহাপরিচালকে ফোন করেছিলাম। মহাপরিচালক আমাকে বলেছেন, ‘তার দরজা সবার জন্য খোলা। জামায়াত নেতা যদি তার প্রতিষ্ঠান নিয়ে আসে তাহলে আসতেই পারেন।’
 
 
ডিগ্রি ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু আজ - dainik shiksha ডিগ্রি ভর্তির অনলাইন আবেদন শুরু আজ বৈশাখী ভাতা ও ইনক্রিমেন্ট কার্যকর জুলাই থেকেই - dainik shiksha বৈশাখী ভাতা ও ইনক্রিমেন্ট কার্যকর জুলাই থেকেই সরকারি হলো আরও ৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয় - dainik shiksha সরকারি হলো আরও ৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা - dainik shiksha ২০ হাজার টাকায় শিক্ষক নিবন্ধন সনদ বিক্রি করতেন তারা অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha অকৃতকার্য ছাত্রীকে ফের পরীক্ষায় বসতে দেয়ার নির্দেশ আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু - dainik shiksha আইডিয়াল স্কুলে ভর্তি ফরম বিতরণ শুরু নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি - dainik shiksha নির্বাচনের সঙ্গে পেছাল সরকারি স্কুলের ভর্তি শিক্ষকদের অন্ধকারে রেখে দেড় লাখ কোটি টাকার প্রকল্প! - dainik shiksha শিক্ষকদের অন্ধকারে রেখে দেড় লাখ কোটি টাকার প্রকল্প! একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৪৭ প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৪৭ প্রতিষ্ঠান দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website