মেলায় এসেছে রাজীব নূরের ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ - বই - Dainikshiksha

মেলায় এসেছে রাজীব নূরের ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’

সিদ্দিকুর রহমান খান |

যমজ ভাইদের একজনকে দেখলে যেমন আরেকজনকেও দেখা হয়েছে বলে মনে হয় তেমনি রোহিঙ্গা শব্দটি শুনলে কিংবা দেখলে অনিবার্যভাবে আমার মনে আসে ‘রহেঙ্গা’ শব্দটিও। মোটকথা ‘রোহিঙ্গা-রহেঙ্গা’ যমজ ভাই হিসেবে আমার মগজে স্থান করে নিয়েছে। চাইলেও মাথা থেকে ‘রহেঙ্গা’ শব্দটি সরাতে পারিনা। কেন আমার এমনটা হয় সেই কৈফিয়ত আমি পাঠককে দেয়ার আগে বাঙলা ভাষার চার/পাঁচটি কালজয়ী উপন্যাসের নাম করে নিই। মনীষী লেখক দেবেশ রায়ের ‘তিস্তাপাড়ের বিত্তান্ত’ কিংবা ‘মফস্বলী বিত্তান্ত’ অথবা আহমদ ছফার ‘গাভী বিত্তান্ত’। মনে আসে আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘খোয়াবনামা’ এবং অদ্বৈত মল্লবর্মনের ‘তিতাস একটি নদীর নাম’। তিস্তা নদীর নাম শুনলেই আমার মনে পড়ে তিস্তাপাড়ের বিত্তান্ত উপন্যাসের কথা। একইভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ে গণ্ডগোল অথবা উপাচার্য নিয়ে বিতর্ক শুনলেই ছফার গাভী বিত্তান্তের কথা মনে পড়ে। ইলিয়াস ভাইয়ের খোয়াবনামাটাকে মহাকাব্য মনে হয়।

পাঠক, এবারে আসল কথায় আসি। রোহিঙ্গাদের নিয়ে মাত্র দুই পৃষ্ঠায় একটি অসাধারণ ইতিহাস লিখেছিলেন প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ও পানি সম্পদমন্ত্রী এলকে সিদ্দিকী।  সাপ্তাহিক যায়যায়দিন পত্রিকায় এলকে সিদ্দিকীর নাতিদীর্ঘ লেখাটির শিরোনাম ছিলো ‘রহেঙ্গা’। প্রকাশকাল ১৯৯৭ কিংবা ৯৮ খ্রিস্টাব্দ। প্রায় ২২ বছর আগের ওই লেখায় লেখক ইঙ্গিত দিয়েছিলেন প্রাণভয়ে বাংলাদেশে চলে আসা রোহিঙ্গারা এদেশেই থেকে যাবেন। লেখাটির প্রতিটি লাইন এই সেদিনও আমার প্রায় মুখস্ত ছিলো। রোহিঙ্গা নিয়ে বাঙলা অথবা ইংরেজিতে প্রকাশিত কোনও লেখা দেখলেই আমার মনে আসতো এলকে সিদ্দিকীর ওই লেখাটির কথাই।

২০১৭ খ্রিস্টাব্দের আগস্ট-সেপ্টেম্বর মাসে গণহারে রোহিঙ্গা নিধন ও মিয়ানমার থেকে উচ্ছেদ শুরু হয়। বিদেশী গণমাধ্যমের দেশীয় ঠিকাদার থেকে শুরু করে দেশের নাম-ডাকওয়ালা সাংবাদিকরা ছুটে যান কক্সবাজারে। কিন্তু রোহিঙ্গা-স্রোতের ঠিকুজি টেকনাফে সবার আগে পৌছাঁন সমকালের রাজীব নূর।  পরে সবাই তাকে অনুসরণ করা শুরু করেন। দেখতে পাই, রোহিঙ্গাদের তথ্য, উপাত্ত ও আলোকচিত্র-ভিডিওচিত্র বিক্রি করে ডলার কামাইয়ের ধান্দায় মেতেছেন সংবাদপত্রের কার্ডধারীদের অনেকেই। দুই বাংলার বাঙালি সাংবাদিকদের কেউ সমস্যার গভীরে যাননা, আসল চিত্র তুলে ধরছেন না অথবা পারছেন না। কেউ কেউ হয়তো প্রকাশ করেন না প্রভাবশালী দূতাবাসসমূহের ‘পানীয়’ পানের দাওয়াত অথবা ভিসা পাওয়া না পাওয়ার হিসেব কষে! কিন্তু যখনই দৈনিক সমকালে শিরোনাম দেখলাম ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ তখনই মনে হলো এই তো চারণ সাংবাদিকতা। এই তো মোনাজাত উদ্দিন-নাজিমউদ্দীন মোস্তান ধাচেঁর প্রতিবেদন। এই তো সামরিক জান্তা কর্তৃক ভিটে-মাটি-দেশহীন-শেকড়হীন করে দেয়া রোহিঙ্গাদের নিয়ে শেকড় সন্ধানী সাংবাদিকতা। এই তো এ্যালেন গিনসবার্গের সাহিত্য-প্রেমিক সাংবাদিক। সমকালে প্রকাশিত আরো কয়েকটি ধারাবাহিক প্রতিবেদন গভীর মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকি। চট্টগ্রামের সন্তান এলকে সিদ্দিকীর লেখা ‘রহেঙ্গা’র সঙ্গে আমার মগজে স্থান করে নেয় জ্ঞানদায়িনী চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় মাতার সন্তান রাজীব নূরের লেখা ‘রোহিঙ্গারা আশ্রয় নিচ্ছে না আছড়ে পড়ছে’। ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ ইত্যাদি শিরোনাম।

প্রিয় পাঠক,  যারা সাগরপাড়ের বাসিন্দা কিংবা নদী-সমূদ্রকে প্রধান উপজীব্য করে লেখা একাধিক উপন্যাস/গল্প পড়েছেন তারা কেউ কি কখনো শুনেছেন মানুষ্যসন্তান ‘রোহিঙ্গারা আশ্রয় নিচ্ছে না আছড়ে পড়ছে’ জাতীয় শব্দবন্ধ?  ঢেউয়ের মতো মানুষও কিভাবে, কখন আছড়ে পড়ে তা চমৎকারভাবে ফুটে উঠেছে রাজীব নূরের লেখায়।

পাঠক, আর তিনটি অনুচ্ছেদ পরেই লেখাটির ইতি টানার আগেই আমরা কৈফিয়তটা দিয়ে নিচ্ছি।

আখতারুজ্জামান ইলিয়াস খোয়াবনামায় হিন্দু-মুসলিম নিয়ে একটি আধূনিক ডিসকোর্স নির্মাণ করেছেন। উপন্যাসের পটভূমিতে ইংরেজ শাসনামল অর্থাৎ ওয়ারেন হেস্টিংয়ের শাসনের পরবর্তী কাল। ইংরেজদের হাতে রাজস্ব আদায়ের ভার, দেশ শাসনের ভার ঠুটো জগন্নাথ নবাবের ওপর। দুর্ভিক্ষে বাংলার এক তৃতীয়াংশ মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলো। রোহিঙ্গাদের নিয়ে রাজীব নূরের লেখায় শান্তিতে নোবেলজয়ী সুচির ভূমিকার কথা জেনে আমার মনে পড়ে খোয়াবনামায় চিত্রিত ঠুঁটো জগন্নাথ নবাবের কথা। নবাব নবাবী করে গেছেন কিন্তু দুর্ভিক্ষে মানুষ মারা গেছে। শান্তিতে পাওয়া নোবেল গলায় ঝুলিয়ে রেখেছেন সুচি অথচ হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে রোহিঙ্গারা খুন-গুম ও দেশছাড়া হয়েছেন ও হচ্ছেন।

রাজীব নূরের লেখা পড়লে আমার আরো মনে পড়ে অদ্বৈত মল্লবর্মনের ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ উপন্যাসের কথা। যেখানে লেখক খেটে খাওয়া হিন্দু-মুসলিম নরনারীদের পরিচয় গভীরভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন। একজন লেখক নিজের সমগ্র অস্তিত্বের কতখানি অংশ তারঁ রচনায় ঢুকিয়ে দিতে পারেন ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ উপন্যাসটি তার প্রমাণ। রাজীব ‍নূরের জন্ম সেই তিতাস নদীর পাড়ে। প্রাণভয়ে নাফ নদী পার হওয়া রোহিঙ্গারা শুধুই মুসলিম বলে প্রথম কয়েকদিন প্রচার পাচ্ছিল একটি বিশেষ সম্প্রদায়ের মানুষদের পরিকল্পিত প্রচার-প্রচারণায়। কিন্তু রাজীব নূর চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছেন শুধু মুসলিম নয় আছড়ে পড়া রোহিঙ্গাদের স্রোতে হিন্দুরাও রয়েছেন। হাজার বছর ধরে রোহিঙ্গাদের বাস আরাকান রাজ্যে। সেই আরাকানের মাটির তলায় সম্পদরাজি যা লিখতে গিয়ে ‘আপনা মাসে হরিনা বৈরী’ মনে করিয়ে দিয়েছেন রাজীব নূর। বাদ দেননি মিয়ানমার রাষ্ট্রের প্রচার যন্ত্রে ১৯৬২ খ্রিস্টাব্দ থেকে অনুচ্চারিত শব্দ ‘রোহিঙ্গা’ প্রসঙ্গও। সামরিক জান্তার প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ‘রোহিঙ্গা’ উচ্চারণ না করে মিয়ানমার সফরকারি পোপের ‘পোপত্ব’ নিয়েও কথা উঠেছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। রাজীব নূরের লেখায় সেই প্রসঙ্গও উঠে এসেছে।

শব্দশৈলী থেকে সদ্য প্রকাশিত বইটির ভূমিকা লিখেছেন চট্টগ্রামের সন্তান আরেক বিশিষ্ট সাংবাদিক মনু ইসলাম। আমাদের কালের চারণ সাংবাদিক রাজীব নূর যত সহজ-সরল ভাষায়  ‘রোহিঙ্গা বিত্তান্ত’ অথবা ‘রোহিঙ্গানামা’ লিখেছেন ঠিক ততটাই ‍উল্টো অর্থাৎ ভারী ভারী শব্দে ভূমিকা লিখেছেন রাজীবভক্ত অথবা  মনু ইসলাম। পাঠক হয়তো বলবেন ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ কোনও উপন্যাস নয়। বইয়ের শিরোনামের নিচেই লেখা রয়েছে ‘রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সরেজমিন’ প্রতিবেদন। সরেজমিন শব্দের যদি সরল ব্যাখ্যা করি তাহলে দাঁড়ায় সর+জমিন=সরেজমিন। সর শব্দ ‍শুনলেই বাঙালির মনে প্রথমেই ভেসে ওঠে দুধের সর কথাই, এ কথা আমি হলফ করে বলতে পারি। সাধারণত সর থাকে দুধের ওপরে। তাহলে ‘সরেজমিন প্রতিবেদন’ মানে জমিনের ওপরের অংশে ঘটে যাওয়া ঘটনা নিয়ে প্রতিবেদন! কিন্তু রাজীব নূরের ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ রচনাটি সমগ্র রোহিঙ্গা তথা মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যের অধিবাসীদের শতশত বছরের কষ্টকথা ও সামরিক জান্তাদের নিষ্ঠুরতার চিত্র খুঁজতে শতহাত মাটির নিচের তথ্যও তুলে এনেছেন। সেই হিসেবে বইটির শিরোনামার অংশ ‘রোহিঙ্গাদের নিয়ে সরেজমিন প্রতিবেদন’ অংশটির প্রতীকী বিরোধীতা করলাম। শিরোনামের অংশ হতে পারতো ‘রোহিঙ্গাদের নিয়ে শেকড় সন্ধানী প্রতিবেদন’। সমকালে প্রকাশিত ধারাবাহিক প্রতিবেদনের কয়েকটি যুক্ত হতে দেখিনি এই বইয়ে। পরবর্তী সংস্করণে সেগুলো যুক্ত হবে বলে আমার বিশ্বাস।

শেখকথা হিসেবে বলতে পারি, বাংলাদেশি বাঙালি রাজীব নূর গণহত্যার শিকার হওয়া রোহিঙ্গাদের কষ্টকথার রচনার শিরোনাম দিতে গিয়ে মার্কিন কবি এ্যালেন গিনসবার্গের কাছ থেকে কিছুটা ধার করেছেন। অথবা ৭১-এ  যশোর রোডে বাঙালিদের অবস্থার সঙ্গে তুলনা করে রোহিঙ্গা সংকটের গভীরতা বোঝাতে গিনসবার্গের স্মরণাপন্ন হয়েছেন। শিরোনামটা ‘রোহিঙ্গানামা’ অথবা ‘রোহিঙ্গা বিত্তান্ত’ হলে অপর বাঙালি মনীষী লেখক আহমদ ছফাকৃত ‘গাভী বিত্তান্ত’, কিংবা দেবেশ রায়কৃত ‘তিস্তাপাড়ের বিত্তান্ত’ অথবা ‘মফস্বলী বিত্তান্ত’ অথবা আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘খোয়াবনামা’ উপন্যাসসমূহের শিরোনাম পাঠকের মনে আসতে পারতো।

শিরোনাম যাই হোক আমি আশা করি আজ থেকে একশ, দুইশ এমনকি তিনশ বছর পরেও যদি রোহিঙ্গারা নিজেদের স্বাধীন দেশ গঠন করতে পারেন তখন হয়তো তারা রাজীব নূরের ‘সেপ্টেম্বর অন টেকনাফ রোড’ বইটিকে তাদের কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসপাঠে সূচিভুক্ত করবেন। বাংলাদেশের কূটনৈতিক মিশনসমূহে বইটি পাঠানোর সুপারিশ করছি। একইসঙ্গে কূটনৈতিক ও অপরাধ বিষয়ক প্রতিবেদক  এবং নৃতাত্ত্বিক গবেষকদের জন্য অতি জরুরি।

সিদ্দিকুর রহমান খান: সম্পাদক, দৈনিক শিক্ষাডটকম।

ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় ঠেকাতে ১০ কমিটি - dainik shiksha ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় ঠেকাতে ১০ কমিটি এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ১১২৪ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন স্কুল-কলেজের ১১২৪ শিক্ষক নভেম্বরের এমপিওতেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি - dainik shiksha নভেম্বরের এমপিওতেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর - dainik shiksha ফরম পূরণে অতিরিক্ত টাকা আদায় বন্ধের নির্দেশ শিক্ষামন্ত্রীর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক সার্কুলেশন প্ল্যান তৈরির নির্দেশ - dainik shiksha শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক সার্কুলেশন প্ল্যান তৈরির নির্দেশ এমপিওভুক্ত হচ্ছেন মাদরাসার ২০৭ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন মাদরাসার ২০৭ শিক্ষক ২৮৮ তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত - dainik shiksha ২৮৮ তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website