রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে দুর্নীতির তদন্ত দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি - বিবিধ - Dainikshiksha

রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে দুর্নীতির তদন্ত দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি

রাজশাহী প্রতিনিধি |

রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের বর্তমান চেয়ারম্যান প্রফেসর আবুল কালাম আজাদের দুর্নীতি, দায়িত্বে অবহেলার তদন্ত এবং সৎ, যোগ্য, কর্মঠ এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থীবান্ধব চেয়ারম্যান নিয়োগের দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করেছে জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ। গতকাল দুপুর ১২ টায় রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান স্বাক্ষরিত এই স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী প্রেস ক্লাবের আজীবন সদস্য মুক্তিযোদ্ধা কলামিস্ট প্রশান্ত কুমার সাহা, সেক্টর কমান্ডার ফোরাম মহানগর সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান আলী বরজাহান, রাজশাহী প্রেস ক্লাব সভাপতি ও জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, রাজশাহী প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক আসলাম-উদ-দৌলা, জয়বাংলা পরিষদ আহ্বায়ক ও মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শফিকুজ্জামান শফিক, রাজশাহী প্রেস ক্লাবের যুগ্মসম্পাদক নূরে ইসলাম মিলন, জননেতা আতাউর রহমান স্মৃতি পরিষদ সদস্য রাজশাহী চেম্বারের সাবেক পরিচালক শফিউল আলম বুলু, সাংবাদিক কাজী রকিবউদ্দিন, আবু কাওসার মাখন, শামসুল আলম প্রমুখ। 

স্মারকলিপিতে বলা হয়, রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডে ছয় তলাবিশিষ্ট শিক্ষা বোর্ড ভবনে লিফট স্থাপনের টাকা বর্তমান চেয়ারম্যানের অবহেলার কারণে তিন তিনবার ফেরত গেছে। যার বলি হয়েছেন দেশের প্রবীণ নাগরিক একজন সম্মানিত প্রধানশিক্ষক। প্রতিনিয়ত শিক্ষকরা তার দ্বারা অসম্মান-অমর্যাদার শিকার হচ্ছেন। তিনি মাসের ৩০ দিনের মধ্যে ২৫ দিনই অফিস করেন না। সরকারি নিয়ম অনুযায়ী কোনো সরকারি কর্মকর্তা ৩ বছরের অধিক সময় ডেপুটেশনে থাকতে পারেন না।

কিন্তু রহস্যজনক কারণে বর্তমান চেয়ারম্যান সাড়ে ৪ বছরের অধিক সময় ধরে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে ডেপুটেশনে আছেন। তার বিরুদ্ধে সাড়ে ৪ কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগ দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করছে। ওই তদন্তও অজানা কারণে ৮ মাস ধরে থেমে আছে। গত ১৫ দিন আগে ৭ দিনের আল্টিমেটাম দিয়ে এক সমাবেশ থেকে বর্তমান চেয়ারম্যানকে অপসারণ করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীবান্ধব চেয়ারম্যান নিয়োগ দেয়ার জন্য শিক্ষামন্ত্রীকে আহ্বান জানানো হয়। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। 

নভেম্বরের এমপিওর সাথেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি দেয়া হতে পারে - dainik shiksha নভেম্বরের এমপিওর সাথেই ৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি দেয়া হতে পারে এমপিও বাতিল হচ্ছে ১২ শিক্ষক-কর্মচারীর - dainik shiksha এমপিও বাতিল হচ্ছে ১২ শিক্ষক-কর্মচারীর এমপিওভুক্ত হচ্ছেন কারিগরির ২২৮ শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন কারিগরির ২২৮ শিক্ষক বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha বেসরকারি স্কুলে ভর্তির নীতিমালা প্রকাশ স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী - dainik shiksha স্ত্রীর মৃত্যুতে আজীবন পেনশন পাবেন স্বামী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website