রাবির বিতর্কিত স্মৃতিফলক, থমকে আছে নির্মাণ কাজ - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

রাবির বিতর্কিত স্মৃতিফলক, থমকে আছে নির্মাণ কাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক |

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শহীদ বুদ্ধিজীবি স্মৃতিফলকে বঙ্গবন্ধুর ছবি নিচের দিকে রেখে অসম্মানিত করা হয়েছে এমন অভিযোগ উঠার পর থেকে থমকে আছে নির্মাণ কাজ। নির্ধারিত সময়ের ৯ মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও নির্মাণ কাজ শেষ হয়নি।

তাছাড়া কবে নাগাদ শেষ হচ্ছে নির্র্মাণ কাজ সে নিয়েও সৃষ্টি হয়েছে অনিশ্চয়তার। অনেকে দাবি করছেন, ছাত্রলীগ ও স্থানীয় নেতা-কর্মীদের আন্দোলনের মুখে সিদ্ধান্তহীনতায় কাজ এগোতে পারছেন না বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তবে নির্মাণ কর্তৃপক্ষ দাবী করছেন, নতুন করে বাজেট বরাদ্দ না পাওয়ার কারণে স্মৃতিফলকের নির্মাণ কাজ শেষ করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানতে চাইলে নির্মাণ কমিটির আহবায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয় পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর সুলতান উল ইসলাম  বলেন, একসাথে বাজেট করে স্মৃতিফলকটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়নি। কাঠামো নির্মাণ ও শৈল্পিক এই দুই টি পর্যায়ে অর্থ বরাদ্দ দিয়ে কাজ হচ্ছে। এভাবে অর্থ বরাদ্দ নিয়ে কাজ শুরু হয়েছিল।

কবে নাগাদ শেষ হচ্ছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি আরো বলেন, যে পরিমাণ অর্থ স্মৃতিফলকটি নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সে অর্থ ব্যয় হয়ে গেছে। নির্মাণ কাজ শেষ করার জন্য এখনও অনেক টাকা ব্যয়ের প্রয়োজন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অর্থ বরাদ্দের বিষয়ে আবেদন করা হয়েছে সিন্ডিকেটের অনুমোদন পেলে অতিদ্রুত কাজ শেষ করা হবে।

এ বিষয়ে বাজেটে বরাদ্দ না পেলে কাজ সমাপ্ত করা সম্ভব হচ্ছে না বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে বিতর্কিত অবস্থায় পড়ে থাকা এ স্মৃতিফলকটি ভেঙ্গে নতুন করে তৈরি করতে হবে বলে দাবি জানিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এনিয়ে বছরের এপ্রিলের ১৫ তারিখে প্রথম বিক্ষোভ মিছিল করেন তারা। পরে আবারও মে মাসের ১৪ তারিখে মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি খায়রুজ্জামান লিটন, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারকে সাথে নিয়ে আবারও বিক্ষোভ করেন।

তারা বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রশ্নে বঙ্গবন্ধু সকলের উর্ধ্বে। ক্যাম্পাসে এই স্মৃতিফলকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি নিচের দিকে স্থাপন করে তাকে চরমভাবে অবমাননা করা হয়েছে। তাই বঙ্গবন্ধুকে যথাযথ সম্মান প্রদর্শনের মাধ্যমে নতুন করে স্মৃতিফলক নির্মাণের দাবি জানান তারা।

তবে নতুন করে তৈরি হবে কি হবে না সে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বা নির্মাণ কমিটির কোন সুনির্দিষ্ট বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া  বলেন, গত প্রশাসনের আমলে আমরা আন্দোলন করেছিলাম। নতুন ভিসি আসার পর আমরা বঙ্গবন্ধুর ছবি বিকৃতি নিয়ে কথা বলেছি। ভিসি আমাদের আস্বস্ত করেছেন যে বঙ্গবন্ধুকে তার সম্মানের স্থানে রেখেই স্মৃতিফলকের নির্মাণ কাজ সম্পন করা হবে।

স্মৃতিফলকের নির্মাণ কাজ থেমে থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রো-ভিসি প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা বলেন, দৃশ্যত থেমে আছে দেখালেও প্রকৃত অর্থে নির্মাণ কাজ থেমে নেই। ভিসি মহোদয়ের সাথে আলোচনা হয়েছে তিনি বিষয়টি দেখছেন। তাছাড়া অতি দ্রুত নির্মাণ কাজ শেষ করা হবে বলেও জানান তিনি।

নতুন করে নির্মাণ হবে কিনা এ বিষয়ে তিনি বলেন, যদি প্রয়োজন হয় তবে সে বিষয়ে প্রশাসন পদক্ষেপ নিবে।

জানা যায়, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিরক্ষা এবং শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গত বছরের ১০ আগস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিফলক এর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তৎকালীন উপাচার্য ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। স্মৃতিফলকটির নির্মাণ ব্যায় ধরা হয় ৬১ লাখ টাকা।

তাছাড়া স্মৃতিফলক নির্মাণ কাজ গত বছরের শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের (১৪ ডিসেম্বর) আগেই সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচন ১৪ মার্চ - dainik shiksha স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচন ১৪ মার্চ এনটিআরসিএর ভুল, আমি পরিপত্র মানি না.. (ভিডিও) - dainik shiksha এনটিআরসিএর ভুল, আমি পরিপত্র মানি না.. (ভিডিও) এমপিওভুক্তির নামে প্রতারণা, মন্ত্রণালয়ের গণবিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha এমপিওভুক্তির নামে প্রতারণা, মন্ত্রণালয়ের গণবিজ্ঞপ্তি শিক্ষকদের কোচিং করাতে দেয়া হবে না: শিক্ষামন্ত্রী - dainik shiksha শিক্ষকদের কোচিং করাতে দেয়া হবে না: শিক্ষামন্ত্রী জারির অপেক্ষায় অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ যোগ্যতার সংশোধনী - dainik shiksha জারির অপেক্ষায় অধ্যক্ষ-উপাধ্যক্ষ নিয়োগ যোগ্যতার সংশোধনী ৬০ বছরেই ছাড়তে হবে দায়িত্ব - dainik shiksha ৬০ বছরেই ছাড়তে হবে দায়িত্ব ফল পরিবর্তনের চার ‘গ্যারান্টিদাতা’ গ্রেফতার - dainik shiksha ফল পরিবর্তনের চার ‘গ্যারান্টিদাতা’ গ্রেফতার নকলের সুযোগ না দেয়ায় শিক্ষিকাকে জুতাপেটা - dainik shiksha নকলের সুযোগ না দেয়ায় শিক্ষিকাকে জুতাপেটা প্রাথমিকে সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড প্রার্থীদের ২০ শতাংশ কোটা - dainik shiksha প্রাথমিকে সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড প্রার্থীদের ২০ শতাংশ কোটা ১৮২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু - dainik shiksha ১৮২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ - dainik shiksha প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website