শিক্ষককে তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ - বিবিধ - Dainikshiksha

শিক্ষককে তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি |

সিরাজগঞ্জে গৃহ শিক্ষককে বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে আটকে রেখে বেধড়ক পিটুনির অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের বিরুদ্ধে। পরে স্বজনদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অপহরণের ২ ঘণ্টা পর ওই শিক্ষককে উদ্ধার করে পুলিশ। 

উদ্ধারের পর ওই শিক্ষকের স্ত্রী সিরাজগঞ্জ সদর থানায় স্বামীকে অপহরণ ও মারধরের অভিযোগ করেছেন। এরপর ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিজের মেয়েকে দিয়ে যৌন হয়রানির পাল্টা অভিযোগ করান অভিযুক্ত অভিভাবক। 

শুক্রবার সন্ধ্যায় মেডিনোভা হাসপাতালের সামনে থেকে মো. আব্দুস সালাম নামে ওই শিক্ষককে অপহরণ করা হয়। তিনি জেলার কামারখন্দ উপজেলার ড. সালাম-জাহানারা ডিগ্রি কলেজের রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। পরে রাতে শহরের বড়গোলা পট্টির তালুকদার ডেন্টাল ক্লিনিকের ভেতর থেকে তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর প্রথমে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয় তাকে।

শিক্ষকের স্ত্রী সালমা খাতুন জানান, তার স্বামী তালুকদার ডেন্টাল ক্লিনিকের মালিক মোস্তাক আহম্মেদ মিঠুর মেয়ের গৃহশিক্ষক। 

তিনি বলেন, কয়েক মাসের বকেয়া টিউশন ফি পরিশোধে বারবার তাগাদা দেওয়ায় আমার স্বামীকে অপহরণ ও মারপিট করে জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ দেবার পর অপহরণকারীরা উল্টো আমার স্বামীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির মিথ্যে অভিযোগ দিয়েছে। 

তবে অভিযুক্ত অভিভাবক মোস্তাক আহম্মেদ মিঠুর দাবি, তার মেয়েকে যৌন হয়রানি করায় গৃহ শিক্ষককে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হয়েছে মাত্র। সেটি অপহরণ নয়। 

এদিকে, এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে দু’টি অভিযোগ সদর থানায় জমা পড়লেও তার একটিও শনিবার সকাল পর্যন্ত রেকর্ড হয়নি। 

ওই শিক্ষককে উদ্ধারকারী সদর থানার এসআই আলী জাহান বলেন, মোবাইল ট্র্যাকিং করে শিক্ষককে উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযোগ দুটি খতিয়ে দেখে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

ড. সালাম-জাহানারা ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল আজিজ সরকার বলেন, শিক্ষক সালাম যদি কোনো অপরাধ করেও থাকেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দেবার সামাজিক বা আইনি ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু প্রকাশ্যে অপহরণ ও মারপিট করে আটকে রেখে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেবার বিষয়টি কোনোভাবেই পাশ কাটিয়ে যাবার বিষয় নয়।

প্রাথমিক শিক্ষকরা ৩৬ হাজার টাকা বেতন পান : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী - dainik shiksha প্রাথমিক শিক্ষকরা ৩৬ হাজার টাকা বেতন পান : গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী ‘শিক্ষা প্রশাসনে জামাতীরা বহাল, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে পরীক্ষা দিতে হয়’ - dainik shiksha ‘শিক্ষা প্রশাসনে জামাতীরা বহাল, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে পরীক্ষা দিতে হয়’ প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের ফল দেখুন - dainik shiksha প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগের ফল দেখুন বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা ১৪ অক্টোবর - dainik shiksha বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা ১৪ অক্টোবর এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ - dainik shiksha এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website