please click here to view dainikshiksha website

শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি

ঢাবি প্রতিনিধি | আগস্ট ৪, ২০১৭ - ৭:২৯ অপরাহ্ণ
dainikshiksha print

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গত সাড়ে আট বছরে শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি-জামায়াতপন্থী শিক্ষকদের সাদা দল।

আজ শুক্রবার সাদা দলের অধ্যাপক মো. আখতার হোসেন খান স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এই দাবি জানান সাদা দলের প্রায় ২০০ শিক্ষক।

‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাড়ে আট বছরে ৯০৭ শিক্ষক নিয়োগ, অনুগতদের নিয়োগ দিতেই অনিয়ম’ শিরোনামে আজ একটি দৈনিকে প্রকাশিত প্রতিবেদনে উদ্বেগ ও হতাশা প্রকাশ করে শিক্ষকেরা এই দাবি জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, সাদা দল থেকে বিভিন্ন সময়ে শিক্ষক নিয়োগসহ প্রশাসনের বিভিন্ন অনিয়মের বিষয়ে লিখিত ও মৌখিক প্রতিবাদ করে আসা হচ্ছে। কিন্তু প্রশাসন বরাবরই এই প্রতিবাদকে উপেক্ষা করেছে। এর ফলে পরিস্থিতি এমনই হয়েছে যে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য-সুনাম আজ প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে। প্রধান বিচারপতির প্রদত্ত এক আপিলের রায়েও বিষয়টি ওঠে এসেছে।

বিবৃতিতে শিক্ষকেরা বলেন, মেধাবী ও যোগ্য শিক্ষকেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ। উপযুক্ত শিক্ষকের ওপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও গবেষণা কার্যক্রম নির্ভর করে। কিন্তু গত কয়েক বছরে শিক্ষক নিয়োগে মেধা ও যোগ্যতাকে পাশ কাটিয়ে দলীয় অনুগত ব্যক্তিদের শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার ফলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এক দীর্ঘস্থায়ী সংকটে পড়বে। যোগ্য প্রার্থীদের বাদ দিয়ে ন্যূনতম যোগ্যতা পূরণ না করা প্রার্থীদের নিয়োগ দেওয়া কেবল আইনবিরুদ্ধ নয়, নৈতিকতা পরিপন্থী এবং অমানবিকও বটে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, অযোগ্য শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়ার ফলে যোগ্য ও মেধাবী শিক্ষকদের মধ্যেও মর্মযন্ত্রণা কাজ করে। কিছুসংখ্যক অযোগ্যদের কারণে আজ তাঁদের নিয়োগ নিয়েও কথা শুনতে হচ্ছে। অন্যদিকে যেসব মেধাবী নিয়োগবঞ্চিত হয়েছেন তাঁরা হতাশায় ভুগছেন, এমনকি অনেকে বিদেশেও পাড়ি জমিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


পাঠকের মন্তব্যঃ ১টি

  1. মুহাঃ সাইফুল্লহ বিন জাকারিয়া,পিরোজপুর মঠবাড়ীয়া.মুঠোফোনঃ01719-482639 says:

    হায়রে বাংলাদেশ শুধু তদন্ত আর তদন্ত, তদন্ত আর তদন্ত, বেশ ভাল কথা,কিন্তুু তদন্তের পরে যেগুলো বৈধতা পাওয়া যায় তার ব্যাপারে তাৎখনিক কিছু করার চিন্তা মাথায় আসেনা. যার একটি প্রমাণ. ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার. একমাত্র হাতিয়ার কম্পিউটার /আইসিটি শিক্ষক, তাদের ব্যাপারে শুধু মামলা আর মামলা .যাইহোক সর্বোপরি আপিল বিভাগ রায় দেওয়ার পর এখনও এমপিও দিতে গরিমসী কেন. জানতে চাই…………….কি আর করবো কিছু করার নাই, স্বামী বিদেশ.

আপনার মন্তব্য দিন