শিক্ষক সংকট ও শিক্ষক বঞ্চনা - মতামত - Dainikshiksha

শিক্ষক সংকট ও শিক্ষক বঞ্চনা

অধ্যক্ষ মুজম্মিল আলী |

বেসরকারি স্কুল-কলেজে আজ চরম শিক্ষক সংকট। আশংকা হয় এসব স্কুল-কলেজ শিক্ষক সংকটে ধুকে ধুকে কখন জানি মুখ থুবড়ে মরে যায়। মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষার বেহাল দশা দেখার বুঝি কেউ নেই। শিক্ষক-কর্মচারীর মত বেসরকারি স্কুল-কলেজকেও বেদরকারি মনে করে করে আমরা একদম নিজেদের  বেদরকারি জাতি বানিয়ে ফেলেছি। এ আমাদের গোটা দেশের জন্য এক বিরাট দুর্ভাগ্য। এ অবহেলা নিঃসন্দেহে আত্মঘাতি। নিজের পায়ে  কুড়াল মারার সমান। 

'এনটিআরসিএ' এ কয় বছরে কী করেছে?  ভাবসাব দেখে মনে হয়, এরা শুধু ঘোড়ার ঘাস কাটা  আর ঘোড়ার ডিম পাড়া ছাড়া কিছু করেনি। কেন করেনি কিংবা করতে পারেনি-সে ও তো কাউকে কিছু বলেনি । জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০'র আলোকে সংস্থাটিকে বেসরকারি স্কুল-কলেজে শিক্ষক নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের মর্যাদা প্রদান করা হয়। অনেকেই আশান্বিত হয়েছিলেন। ভেবেছিলেন বেসরকারি স্কুল-কলেজে মেধাবী শিক্ষক পাওয়া যাবে। শিক্ষক সংকট দূর হবে। কিন্তু কই ? যেই লাউ সেই কদু । অবস্থা আরো খারাপের দিকে।  এনটিআরসিএ'র এখন লেজেগোবরে অবস্থা । তাদের দশা যেন 'ছেড়ে দে মা কেঁদে বাঁচি '। সেদিন দৈনিকশিক্ষায় প্রতিবেদন দেখলাম, সংসদীয় স্থায়ী কমিটি আবার আগের মতো এসএমসি ও জিবি'র মাধ্যমে নিয়োগ দেবার সুপারিশ করেছে । মানুষ সামনে এগোয় । আমরা কী পেছনে যাবো? এনটিআরসিএ'কে পিছু টেনে ধরেছে কারা সেটা দেখা দরকার । পর্যাপ্ত জনবল ও ক্ষমতা প্রদান করলে তারা নিয়োগ দিতে পারবে না কেন ?  আসলে এ সংস্থাটিকে অর্ধেক মাছ আর অর্ধেক সাপ বানিয়ে রাখা হয়েছে । এ ছাড়া তারা নিয়োগ দেবার ক্ষমতা পাবার আগে বেশ ক'টা নিবন্ধন পরীক্ষা নিয়ে নিয়েছিল । এ থেকেই তারা নিয়োগ জটের কবলে পড়ে । আবার তাদের সুপারিশকে অনেক স্কুল-কলেজের কমিটি আমলে নেয়নি। বলা যায়-পাত্তা দেয়নি। এমপিওভুক্তির ঝামেলাও থেকে যায়। সব মিলিয়ে এনটিআরসিএ আজ এক ব্যর্থ প্রতিষ্ঠানের বদনাম নিয়ে ঘরে উঠে যাবার পথে। নিয়োগ সংক্রান্ত সব ক্ষমতা এনটিআরসিএ'কে দিয়ে দিলে তাদের এভাবে ব্যর্থ হবার কথা ছিল না । 

সে যাই হোক না কেন বেসরকারি স্কুল-কলেজ  আজ শিক্ষক সংকটের চরম ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে । শিক্ষক অনুপাতে শিক্ষার্থী সংখ্যা সর্বকালের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে । গত দশ বছরে  স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীর সংখ্যা দ্বিগুণ তিন গুণ বেড়েছে । কিন্তু, জনবল কাঠামো সেই আগে যেমন আজ ও তেমন । ক' বছর থেকে জনবল কাঠামো পরিবর্তন হচ্ছে মর্মে শুনে আসছি । কিন্তু আজ ও হয়েছে বলে শুনিনি । এ জন্যে আমাদের লেখাপড়ার মরি মরি অবস্থা । 

শিক্ষক বঞ্চনা নিয়ে কী আর লিখবো ?  সেদিন ঢাকা শহরের ৪৮ জন স্কুল-কলেজের প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষকে নিয়ে ডিজি অফিসে সভা হলো । প্রত্যন্ত অঞ্চলের শিক্ষক-কর্মচারীরা পর্যন্ত আশা করেছিলেন, এবার অন্তত বৈশাখি ভাতা ও ইনক্রিমেন্টের একটা সুরাহা হবে। কিন্তু, এ যাত্রাও আশায় গুড়ে বালি ছিটিয়ে দেয়া হলো। ডিজি মহোদয় নাকি সবার কথা শুনেছেন ও নোট করেছেন। কোন সুসংবাদ দিতে পারেননি। বৈশাখি ভাতা তো দিলেনই না। ইনক্রিমেন্ট নেই। টাইমস্কেল ও না। এ কেমন কথা? ইনক্রিমেন্ট ও দেবেন না। টাইমস্কেলও দেবেন না। তাহলে বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীরা কী কিছুই পাবেন না?  বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের আর কত বঞ্চনা সইতে হবে কে জানে?

কল্যাণ ও অবসর সুবিধা তহবিলে অতিরিক্ত ৪শতাংশ কর্তন মেনে নিলে নাকি ৫ শতাংশ ইনক্রিমেন্ট দেয়া হবে । এটির সাথে ওটির সম্পর্ক বুঝে উঠতে পারি নাই। কল্যাণ আর অবসর সুবিধার সাথে ইনক্রিমেন্টের কী সম্পর্ক? 
অবসর ও কল্যাণ সুবিধা তহবিলে ৪শতাংশ কেন ১০শতাংশ কর্তনে ও আপত্তি নেই। এ জন্য কথা আছে । অবসরে যাবার তিন মাসের মধ্যে সব সুবিধা পরিশোধ করার নিশ্চয়তা দিন। কর্তনের টাকা শিক্ষক-কর্মচারীর নিজ নিজ হিসাবে জমা রাখুন। কর্তন বৃদ্ধি করলে সুবিধা কতটুকু বাড়াবেন তা আগেই জানিয়ে দিন। বেসরকারি বলে দেশের ৯৮শতাংশ শিক্ষক-কর্মচারীদের অনেক তো হাইকোর্ট দেখিয়েছেন। দয়া করে বন্ধ করুন। শিক্ষা বাঁচান । শিক্ষক-কর্মচারীদের বাঁচান। প্রজন্মকে রক্ষা করুন। জাতিকে বাঁচিয়ে রাখুন।

লেখক  :  অধ্যক্ষ, চরিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, কানাইঘাট, সিলেট ও দৈনিক শিক্ষার নিজস্ব সংবাদ বিশ্লেষক।  

মহাপরিচালকের চিকিৎসায় মানবিক সাহায্যের আবেদন - dainik shiksha মহাপরিচালকের চিকিৎসায় মানবিক সাহায্যের আবেদন সরকারি সুবিধা চান ৫৯ অতিক্রান্ত কলেজ শিক্ষকরা - dainik shiksha সরকারি সুবিধা চান ৫৯ অতিক্রান্ত কলেজ শিক্ষকরা সদ্য সরকারিকৃত ২৯৮ কলেজে সমন্বিত পদ সৃজনের সিদ্ধান্ত - dainik shiksha সদ্য সরকারিকৃত ২৯৮ কলেজে সমন্বিত পদ সৃজনের সিদ্ধান্ত বড় নিয়োগ আসছে প্রাক প্রাথমিকে - dainik shiksha বড় নিয়োগ আসছে প্রাক প্রাথমিকে একীভূত শিক্ষাব্যবস্থা: ৬৪ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তালিকা - dainik shiksha একীভূত শিক্ষাব্যবস্থা: ৬৪ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তালিকা একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৩০ প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha একাডেমিক স্বীকৃতি পেল ৩০ প্রতিষ্ঠান পাঠ্যসূচিতে ট্রাফিক আইন থাকা উচিত: মুহম্মদ জাফর ইকবাল - dainik shiksha পাঠ্যসূচিতে ট্রাফিক আইন থাকা উচিত: মুহম্মদ জাফর ইকবাল চলতি দায়িত্বে থাকা প্রধান শিক্ষকদের পদোন্নতি শিগগিরই - dainik shiksha চলতি দায়িত্বে থাকা প্রধান শিক্ষকদের পদোন্নতি শিগগিরই দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষায় বিজ্ঞাপন পাঠান ইমেইলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website