শিক্ষার্থীরাই মূল্যায়ন করছে এসএসসির খাতা - এসএসসি/দাখিল - দৈনিকশিক্ষা

শিক্ষার্থীরাই মূল্যায়ন করছে এসএসসির খাতা

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি |

আবারো নিম্নশ্রেণির শিক্ষার্থীদের দিয়ে এসএসসি পরীক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষার খাতা মূল্যায়ন করানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে।  এর আগে কয়েকবার এমন ঘটনা ঘটলেও কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়নি ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। এর আগে আড়াই মিনিটে প্রতিটি এসএসসির খাতা দেখার ঘটনাও ঘটেছে। কিন্তু বোর্ডের একজন কর্মকর্তার বান্ধবী ছিলেন ওই পরীক্ষক তাই সব মাফ। বোর্ডের সেই কর্মকর্তা এখন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব পদে কর্মরত। 

সর্বশেষ দৈনিক শিক্ষার অনুসন্ধানে জানা যায়,  নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় ৭ম ও ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের দিয়ে চলতি এসএসসি পরীক্ষার খাতায় ওএমআর শীট পূরণ করার খবর পাওয়া গেছে। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কাঁচপুর সিন্হা স্কুল এন্ড কলেজ। গতকাল শুক্রবার সকালে ঘটনাটি দেখে ভিডিও ধারণ করেন ওই বিদ্যালয়ের একজন সহকারি শিক্ষক।

শিক্ষার্থীই মূল্যায়ন করছে এসএসসির খাতা। ছবি: সংগৃহীত

জানা গেছে, চলতি বছরের এসএসসি পরীক্ষার ‘বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্ব সভ্যতা’ বিষয়ের কয়েক বান্ডেল খাতা মূল্যায়ন করছিলেন ওই বিদ্যালয়ের ৭ম ও ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা। তাদেরকে দিয়ে একটি বোর্ড পরীক্ষার খাতার উপরে থাকা ওএমআর শীটে যে সকল ঘর পূরণ করতে হয় সেই ঘরগুলো পূরণ করাচ্ছিলেন বিদ্যালয়টির সহকারি প্রধান শিক্ষক আশরাফ উল্লাহ।


শিক্ষার্থীরা জানায়, আশরাফ উল্লাহ স্যার খাতার বৃত্তভরাট করার জন্য তাদেরকে দায়িত্ব দিয়েছেন। 

আরো জানা গেছে, শিক্ষার্থীরা এক হাতে মোবাইলে ফেসবুক চালাচ্ছে এবং অন্য হাতে ওএমআর শীট পূরণ করছে। ফলে অমনোযোগী থাকার কারণে ভুলের সম্ভানা বেশী। 
এ বিষয়ে ভিডিও ধারণকারী শিক্ষক জানান, একটি সামান্য ডিজিট পূরণে ভুল হলে একজন পরীক্ষার্থীর ফলাফল আটকে যেতে পারে। খবর পেয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মাহাবুব পারভেজ ও আলমগীর হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ঘটনার সত্যতার প্রমাণ পেয়েছেন। বিষয়টি টের পেয়ে অভিযুক্ত আশরাফ খাতাগুলো সরিয়ে নিয়ে আলমারীতে তালাবদ্ধ করেন এবং অভিভাবক সদস্যদের সামনেই ভিডিও ধারণকারী শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেন এবং তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন।

এ প্রসঙ্গে উক্ত স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আলীম জানান, বিষয়টি আমাকে অভিভাবক সদস্য ও সহকারি শিক্ষকরা জানিয়েছে। আমরা যথাযথ কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করব এবং একজন শিক্ষক হিসেবে তার কাছ থেকে আমরা এটা আশা করিনি।
এ ব্যাপারে নারায়ণগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার মো. শরিফুল ইসলাম জানান, খাতা মূল্যায়ণের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড যাচাই-বাছাই করে একজন শিক্ষককে দায়িত্ব দেন। এ ব্যাপারে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ছাড়া আমাদের কিছু করার এখতিয়ার নাই। তবে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অবহিত করব।
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের (ঢাকা) পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আমিরুল ইসলাম জানান, এটা মারাত্মক অপরাধ। এ ব্যাপারে শিক্ষকদের কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। খাতা মূল্যায়নের সময় মাথা ঠাণ্ডা রাখা এবং গোপনীয়তা রক্ষা করে একান্ত কক্ষে বসে কাজ করা। খাতা মূল্যায়নকারীর ভুলের কারণে অনেক শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়ে আত্মহত্যা করার ঘটনাও ঘটেছে। তদন্ত সাপেক্ষে অপরাধ প্রমাণিত হলে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিশ্ব এক হলেই শুধু করোনা মোকাবেলা সম্ভব : জাতিসংঘ - dainik shiksha বিশ্ব এক হলেই শুধু করোনা মোকাবেলা সম্ভব : জাতিসংঘ মহামারিতেও দপ্তরিদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ঋণের টাকা - dainik shiksha মহামারিতেও দপ্তরিদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে ঋণের টাকা মৃতদের শরীর থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ায় না : ডব্লিউএইচও - dainik shiksha মৃতদের শরীর থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ায় না : ডব্লিউএইচও সংসদ টিভিতে ক্লাসের নতুন রুটিন প্রকাশ - dainik shiksha সংসদ টিভিতে ক্লাসের নতুন রুটিন প্রকাশ সমাপনী জুনিয়র পরীক্ষা এখনই বাতিল ঘোষণা করুন - dainik shiksha সমাপনী জুনিয়র পরীক্ষা এখনই বাতিল ঘোষণা করুন জুন পর্যন্ত কিস্তি না আদায় নিশ্চিতে ৯ সদস্যের মনিটরিং সেল - dainik shiksha জুন পর্যন্ত কিস্তি না আদায় নিশ্চিতে ৯ সদস্যের মনিটরিং সেল শিক্ষকদের বৈশাখী ভাতার ২০ শতাংশ অসহায় মানুষের কল্যাণে - dainik shiksha শিক্ষকদের বৈশাখী ভাতার ২০ শতাংশ অসহায় মানুষের কল্যাণে ১০ এপ্রিল সরকারকে করোনা শনাক্তের কিট দেবে গণস্বাস্থ্য - dainik shiksha ১০ এপ্রিল সরকারকে করোনা শনাক্তের কিট দেবে গণস্বাস্থ্য ‘প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপে মানুষ নিরাপদ থাকার চেষ্টা করছে’ - dainik shiksha ‘প্রধানমন্ত্রীর গৃহীত পদক্ষেপে মানুষ নিরাপদ থাকার চেষ্টা করছে’ ছুটি বাড়ল ১১ এপ্রিল পর্যন্ত - dainik shiksha ছুটি বাড়ল ১১ এপ্রিল পর্যন্ত টিভিতে পাঠদান : সারাদেশের শিক্ষকরাই সুযোগ পাবেন - dainik shiksha টিভিতে পাঠদান : সারাদেশের শিক্ষকরাই সুযোগ পাবেন করোনা সন্দেহ হলে যা করতে হবে - dainik shiksha করোনা সন্দেহ হলে যা করতে হবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন please click here to view dainikshiksha website