শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি পদের যতো কদর! - স্কুল - দৈনিকশিক্ষা

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সভাপতি পদের যতো কদর!

রাজশাহী প্রতিনিধি |

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিচালনা, আর্থিক ও প্রশাসনিক ব্যবস্থা তদারকি, লেখাপড়ার মান নিশ্চিতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণে ম্যানেজিং কমিটি (স্কুলের ক্ষেত্রে) ও গভর্নিং বডি (কলেজের ক্ষেত্রে) গঠন করা হয়। তাই প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটিতে আসতে উৎসাহী অনেকেই। অথচ কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে চলে পকেট ভারীর উৎসব। এতে শিক্ষার মান বাড়ার পরিবর্তে ওই প্রতিষ্ঠানগুলোতে আর্থিক ও প্রশাসনিক অনিয়মের বোঝা বাড়ছে। 

কি কাজ করে ম্যানেজিং কমিটি ও গভর্নিং বডি? এমন প্রশ্নের উত্তরে রাজশাহী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুস সালামের দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্বিক বিষয় দেখভাল করবে কমিটি। যেমন বিভিন্ন সমস্যার সমাধান, নিয়মিত পাঠদান, শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি, সংস্কার-নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণসহ বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করে কমিটির সভাপতিসহ অন্য সদস্যরা। আসলে শিক্ষার মান বৃদ্ধিই কমিটি গঠনের মূল উদ্দেশ্য বলে মনে করেন এই কর্তকর্তা। 

ফাইল ছবি
ফাইল ছবি

তবে, বাস্তব চিত্র আলাদা। কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সভাপতি অনেক আন্তরিক হলেও কিছু সভাপতি আর্থিক সুবিধার জন্য নানা অনিয়মের আশ্রয় নেন। 

রাজশাহী নগরীর টিকাপড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. ফৌরদস দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানায়, ‘স্কুলে জরুরি মিটিং হলে প্রধান শিক্ষক ডাকলেই আসি। এছাড়া শিক্ষাক-শিক্ষার্থীদের কোন সমস্যা হচ্ছে কিনা দেখি। শিক্ষার্থী অনুপস্থিত হলে খোঁজ খবর দেওয়া হয়। এছাড়া মা সমাবেশ করা হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, কমিটিতে আছি। তবে স্কুলে তেমন যাওয়া পড়ে না। মিটিংয়ে বিষয়ে জানালে উপস্থিত হই। তেমন সময় দিতে পারি না নিজের কাজের জন্য।  

সম্প্রতি এই ম্যানেজিং কমিটি ও গভর্নিং বডি গঠনকে কেন্দ্র করে নানা অনিয়মের কথা শোনা যায়। কখনো ঘুষ লেনদেন, কখনো পছন্দের মানুষকে পদ পাইয়ে দিতে নানা অনিয়ম। শুধু তাই নয়, ঘটে রক্তক্ষয়ী সংর্ঘষের ঘটনাও। হয় মামলাও। 

চলতি মাসের গত বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) সন্ধ্যায় বাঘায় হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটি গঠনের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ৫ জন আহত হয়েছেন। আহত জুলফিকারের স্ত্রী নাসিমা বাদি হয়ে সাবেক সভাপতি নওশাদসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। মামলায় আলমগীর হোসেন, চমৎকার হোসেনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। 

হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহ আলম দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, সকালে এডহক কমিটির মিটিং হয়। সন্ধ্যায় মারামারি। 

তবে, সাবেক সভাপতি নওশাদ আলী সংবাদিকদের জানান, তাদের আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে।  

এর আগে ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দের ১৮ এপ্রিল তানোরের কামারগাঁ ইউপির হরিপুর দ্বিতীয় উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটি গঠন (সভাপতি) মনোনিত করাকে কেন্দ্র করে উত্তজেনা ছড়িয়ে পড়ে। জানা যায়, পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছাড়া অন্যান্য সদস্যদের অনেক আগেই নির্বাচিত করা হয়। তবে দলাদলির কারণে সভাপতি মনোনিত করা হয়েছিলো না। স্থানীয়রা জানান, সভাপতি পদে শফিকুল ইসলাম, আব্দুল লতিব ও বাশাদ প্রার্থী হয়েছিল। 

একই বছরের ৫ এপ্রিল পুঠিয়ার নন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে গোপনে ম্যানেজিং কমিটি গঠনের অভিযোগ তোলা হয়। কমিটি বাতিলের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের নিকট আবেদন করে স্কুল কমিটির সদস্য।  
জানা গেছে, বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদ ছিলো এপ্রিল মাসে ১৯ তারিখ পর্যন্ত। তবে তফশিল ঘোষণা ছাড়ায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক আফরোজ হোসেন (ছুম্মা) কাউকে না জানিয়ে গোপনে কমিটি করে রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডে জমা দিতে যায়। 

এবিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহা. জাহিদুল হক জানিয়েছিলেন, একটি আবেদন আমাদের অফিসে জমা দিয়েছে। তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এছাড়া ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দের ১২ অক্টোবর তানোরের কলমা ইউপির চন্দনকৌঠা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে অনিয়ম-দুর্নীতি করে পরিচালনা (ম্যানেজিং) কমিটি গঠনের অভিযোগ উঠে। 

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কমিটি গঠনের কলেজ শিক্ষক নেতা অধ্যক্ষ শফিকুর রহমান বাদশা দৈনিক শিক্ষাডটকমকে বলেন, দেশের সিলেট অঞ্চলে স্কুল বা কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি হন অনেকে সামাজিক মর্যাদার জন্য। আর রাজশাহীর এই অঞ্চলে অর্থিক সুবিধা, ক্ষমতা ইত্যাদি কারণে। তিনি আরও বলেন, এখনো জনপ্রতিনিধিদের সুপারিশে স্কুল বা কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি গঠন করা হয়। এখন থেকে আমাদের বেড়িয়ে আসতে হবে। শিক্ষার্থীদের ভালো অভিভাবককে এসমস্ত পদে দিলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়।  

রাজশাহী জেলা শিক্ষা অফিসার নাসির উদ্দিন দৈনিক শিক্ষাডটকমকে জানান, কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন অভিযোগ আমাদের কাছে আসে। বিধি মোতাবেক ব্যবস্থাগ্রহণ করা হয়। কমিটিতে আসার জন্য এতো আগ্রহ কেনো? এমন কথার উত্তরে তিনি বলেন, বিষয়টি তো আর জানা যায়না। তবে অনেক শিক্ষানুরাগী আসতে চায় কমিটিতে। তারা অনেক টাকা ডোনেট করেন।

ডিপিএড শিক্ষকদের বেতন জটিলতার সমাধান শিগগিরই - dainik shiksha ডিপিএড শিক্ষকদের বেতন জটিলতার সমাধান শিগগিরই স্কুলছাত্রী নীলা হত্যার প্রধান আসামী মিজান গ্রেফতার - dainik shiksha স্কুলছাত্রী নীলা হত্যার প্রধান আসামী মিজান গ্রেফতার উচ্চতর গ্রেড পাওয়া এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বেতন কমবে না - dainik shiksha উচ্চতর গ্রেড পাওয়া এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বেতন কমবে না ১ অক্টোবর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ১ অক্টোবর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন এমফিল-পিএইচডি জালিয়াতিতে এগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা - dainik shiksha এমফিল-পিএইচডি জালিয়াতিতে এগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ফাজিল ও কামিল মাদরাসার গভর্নিং বডির মেয়াদ বৃদ্ধি - dainik shiksha ফাজিল ও কামিল মাদরাসার গভর্নিং বডির মেয়াদ বৃদ্ধি অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় - dainik shiksha অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় please click here to view dainikshiksha website