please click here to view dainikshiksha website

সব বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস বন্ধ কর্মবিরতিতে শিক্ষকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক | জানুয়ারি ১১, ২০১৬ - ১২:৫৯ পূর্বাহ্ণ
dainikshiksha print

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেছেন।  আজ সোমবার থেকে কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস হবে না। বেতন বৈষম্য দূরিকরণসহ ৫ দফা দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এ কর্মসূচি চলবে।

দ্রুত সময়ের মধ্যে দাবি আদায় না হলে আরও কঠোর কর্মসূচির হুমকি দিয়েছেন শিক্ষক নেতারা। ফলে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো অচল হয়ে যাচ্ছে।

শিক্ষকদের লাগাতার আন্দোলনের কারণে প্রায় সোয়া দুই লাখ শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মুখে পড়তে যাচ্ছে। আন্দোলন প্রলম্বিত হলে শিক্ষার্থীরা নতুন করে সেশনজটে পড়বে। এতে দীর্ঘায়িত হবে শিক্ষাজীবন।

শিক্ষকদের পাঁচ দফা দাবির অন্যতম হচ্ছে, অধ্যাপকদের একটি অংশকে সিনিয়র সচিবের সমান বেতনভাতা দেয়া। এছাড়া নতুন পে-স্কেলে, সপ্তমের (৭ম পে-স্কেল) আদলে সিলেকশন গ্রেড-টাইম স্কেলসহ সব সুবিধা নিশ্চিত করা, প্রভাষকের পদ অষ্টম গ্রেডে উন্নীত করা, সরকারি কর্মকর্তাদের মতোই উচ্চশিক্ষায় বিভিন্ন গবেষণা প্রকল্পে সুযোগ দেয়া এবং গাড়ি কেনা ঋণ ও রক্ষণাবেক্ষণ ভাতা দেয়ার দাবি যুক্ত হয়। এসব দাবি নিরসনে তিন ধরনের পদক্ষেপ উপেক্ষিত হয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ রোববার সিলেটের একজন জনসভায় বলেন, ‘শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানের বিষয়ে চেষ্টা চলছে। আমরা আশা করছি, দ্রুত এ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল রোববার সাংবাদিকদের বলেন, ‘অষ্টম পে-স্কেলে নানা অসঙ্গতি আছে। গত ৮ মাসের বেশি সময় ধরে শিক্ষকরা তা নিরসনের দাবি জানিয়ে আসছেন। এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে তিনটি সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু পে-স্কেলের প্রজ্ঞাপনে তার কোনো প্রতিফলন নেই। অসঙ্গতিগুলোও নিরসন করা হয়নি। এ কারণে শিক্ষকরা কঠোর আন্দোলনে যেতে বাধ্য হয়েছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘যদি দ্রুত সময়ের মধ্যে সমস্যার সমাধান করা না হয়, তাহলে আরও কঠোর কর্মসূচি দেয়ার চিন্তাভাবনাও আছে।’

বেতনভাতার ইস্যুতে দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের ইতিহাস বাংলাদেশে এই প্রথম। এ আন্দোলন অনেক দূর পর্যন্ত গড়াতে পারে। এর সঙ্গে তৃতীয় কোনো পক্ষ ভিড়ে যেতে পারে বলে অনেকেই আশংকা প্রকাশ করেন। তাদের মতে, শিক্ষক আন্দোলনকে ইস্যু করে দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। যে কারণে তারা ইস্যুটি দ্রুত নিরসনের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান।

শ্রীলংকার অভিজ্ঞতা এখন বাংলাদেশে:

এর আগে এ অঞ্চলে বেতন ভাতার দাবিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন হয়েছিল শ্রীলংকায়। ২০১১ সালের মে মাসে শুরু হয়ে ২০১২ সালের অক্টোবরে তা শেষ হয়। দাবি আদায়ের জন্য সেখানকার শিক্ষকরা টানা ৪ মাস ধর্মঘট করেন। আন্দোলনের মুখে এক পর্যায়ে ওই দেশের সরকার শিক্ষকদের দাবি মেনে নেয়। গত বছরের মে মাসে আন্দোলনের শুরু থেকেই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা শ্রীলংকার দৃষ্টান্ত দিয়ে আসছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের লাগাতার কর্মবিরতির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন করলে এমিরেটাস অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে অতীতে শিক্ষকদের ধর্মঘট হয়েছে। তবে তা রাজনৈতিক কারণে। গণতন্ত্রের দাবিতে এরশাদের পতনের জন্য শিক্ষকরা ধর্মঘট করেছেন। এর আগে স্বাধীনতা ও স্বায়ত্তশাসনের জন্য ধর্মঘট হয়েছে। কিন্তু অর্থনৈতিক কারণে এভাবে সব বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের কর্মবিরতির ঘটনা এই প্রথম।

তিনি বলেন, আপাতদৃষ্টিতে মনে হতে পারে শিক্ষকরা মর্যাদা ও বেতন-ভাতার জন্য এ আন্দোলন করছেন। কিন্তু তা নয়। এ আন্দোলনও শিক্ষারই আন্দোলন। এর সঙ্গে শিক্ষার মানের সম্পর্ক আছে। রাষ্ট্রের সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পর্ক কেমন বা রাষ্ট্র শিক্ষাকে কতটা গুরুত্ব দেয়- তার প্রতিফলন ঘটে শিক্ষককে মর্যাদা দেয়ার মধ্যদিয়ে। যদি রাষ্ট্র তা না দেয়, তবে মনে করতে হবে শিক্ষাকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে না। সমাজ শিক্ষকের মর্যাদা দেয় একভাবে। কিন্তু রাষ্ট্রকেও সেই মর্যাদা দিতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ে মানসম্মত শিক্ষা ধরে রাখার মধ্য দিয়ে দেশের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল করার বিষয় জড়িত। কেননা, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকতাকে আকর্ষণীয় না করলে মেধাবীরা শিক্ষকতায় আকৃষ্ট হবে না। মেধা চর্চা উৎসাহিত হবে না। এতে রাষ্ট্রেরই ক্ষতি হবে। তাই এ ক্ষেত্রে (সুবিধা দেয়া) সরকারের অনমনীয়তা কাম্য নয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাবেক সহসভাপতি ও সাদা দলের শিক্ষক নেতা অধ্যাপক ড. আখতার হোসেন খান এ প্রসঙ্গে বলেন, আমি ১৯৭৮ সাল থেকে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে আছি। বেতন-ভাতা ইস্যুতে সব বিশ্ববিদ্যালের শিক্ষকদের একসঙ্গে কর্মবিরতিতে যাওয়ার ঘটনা বাংলাদেশে এই প্রথম দেখলাম। শিক্ষকদের এভাবে আন্দোলনে ঠেলে দেয়ার কোনো প্রয়োজন ছিল না। একটি অ্যামিউক্যাবল সিচুয়েশন (বন্ধুত্বপূর্ণ পরিস্থিতি) ছিল। কেননা, সব বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক সমিতিতে বর্তমান সরকারের সমর্থকরাই নেতৃত্বে আছেন। আমার জানা মতে, তারা সরকার প্রধানের সঙ্গে এ বিষয়ে আলাপ-আলোচনার জন্য বারবার সময় চেয়েও পাননি। সেই সুযোগ পেলে হয়তো আজকের এ পরিস্থিতি সৃষ্টি হতো না।

ঢাবিতে পরীক্ষা চলবে:

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সর্বাত্মক কর্মবিরতি পালনের কথা ছিল। সে অনুযায়ী সব ধরনের ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ থাকার কথা। কিন্তু শিক্ষার্থীদের অনুরোধে শুধু সেমিস্টার ও কোর্স ফাইনাল পরীক্ষা নেয়া হবে। কোনো মিডটার্ম বা অন্য পরীক্ষা নেয়া হবে না। রোববার সন্ধ্যায় শিক্ষক সমিতির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক মো. এমদাদুল হক। সভা শেষে সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মাকসদু কামাল জানান, ‘শিক্ষার্থীদের অনুরোধে আমরা পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে কর্মসূচি চলাকালে নতুন কোনো পরীক্ষার তারিখ দেব না। সমস্যা সমাধান না হলে আরও কঠোর কর্মসূচি আসবে।’ তিনি আরও বলেন, এক সপ্তাহের জন্য আমরা আপাতত পরীক্ষা চালু রাখব। এর মধ্যে পরিস্থিতির উন্নতি না হলে শিক্ষকরা পরীক্ষা নেয়াও বন্ধ করে দেবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন:


আপনার মন্তব্য দিন