সরকারিকৃত স্কুল-কলেজের কী হলো? - মতামত - দৈনিকশিক্ষা

সরকারিকৃত স্কুল-কলেজের কী হলো?

অধ্যক্ষ মুজম্মিল আলী |

‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতা’ আর ‘লাল ফিতার দৌরাত্ম্যে’ দেশের গোটা শিক্ষাব্যবস্থা আটকে আছে বলে মনে হয়। তা না হলে প্রায় দু’ তিন বছর আগে দেশে এতগুলো স্কুল-কলেজ সরকারি করা হলো, অথচ আজ অবধি এদের কোনো খোজঁ-খবর নেই।

যে সকল উপজেলায় কোনো সরকারি স্কুল-কলেজ ছিল না, সে সব উপজেলায় একটি করে স্কুল ও কলেজ সরকারি করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। সরকারের এ মহৎ উদ্যোগটি মাঝপথে আটকে গেল কেন? আত্তীকরণ করতে কয় বছর সময় লাগে? সেই কবে ‘ডিড অব গিফট’ সম্পাদিত হলো? এরপর আর সময় লাগার কথা নয়। অহেতুক কারা কালক্ষেপণ করে, সেটি অনেকের জানা নেই।

‘আমলাতান্ত্রিক জটিলতা’ কিংবা ‘লাল ফিতার দৌরাত্ম্য’ সম্পর্কে যাদের ধারণা নেই, তারা হয়তো বিষয়টি বুঝে উঠতে পারে না। কিন্তু আমরা যারা দু’ চার অক্ষর লেখাপড়া করেছি, তারা অন্তত কী কারণে কি হয়-সেটি বুঝতে পারি। আমাদের যারা বোকা বানিয়ে ধোকা দিতে চায়, তাদের খুব ভালো করে চিনে রাখতে পারি।

লাল ফিতার দৌরাত্ম্যে পড়ে কত স্বপ্নের অপমৃত্যু ঘটেছে। ইতোমধ্যে কত শিক্ষক-কর্মচারী পরকালগামী হয়েছেন, কত জন অবসরে চলে গিয়েছেন এবং আগামী এক বছর কিংবা ছয় মাসে আরও কত জন অবসরে যাবেন-সে হিসেবটি এ মুহূর্তে কেউ বলতে পারে না। তবে এ কথাটি নিসংকোচে বলা যায় যে, ভগ্ন হৃদয় নিয়ে অনেক শিক্ষক-কর্মচারী প্রস্থান করেছেন যারা সরকারি হবার কাছাকাছি গিয়েও সরকারি হতে পারেননি। আগামী এক বছর কিংবা ছয় মাসে আরও অনেককে সেই দুর্ভাগ্যটিই বরণ করতে হবে। অনেকে এখন স্বপ্নের সমাধির উপর দিয়ে হাঁটেন। অনেকে স্বপ্ন নিয়ে পরপারের যাত্রী হয়েছেন। অনেকের স্বপ্নের বাতিটি দপ করে নিভে যাবার দ্বারপ্রান্তে।

আর কত স্বপ্নের অপমৃত্যু দেখে যেতে হবে কে জানে? আমরা আর স্বপ্নগুলোর মৃত্যু দেখতে চাই না। স্বপ্নের দ্রুত বাস্তবায়ন চাই। যে সব স্কুল-কলেজ সরকারি করার জন্য ‘ডিড অব গিফট’ সম্পাদিত হয়েছে, তাদের শিক্ষক-কর্মচারীদের অতি সত্বর আত্তীকরণ করে দো-টানা জীবনের অবসানটুকু ঘটিয়ে দিন। তা না হলে একদিকে সরকারের বদনাম, অন্যদিকে শিক্ষক-কর্মচারীদের কষ্ট ও হতাশা দিনে দিনে কেবল বৃদ্ধি পেতে থাকবে।

শেখ মুজিব তনয়া শেখ হাসিনার যেখানে আন্তরিকতার এতটুকু ঘাটতি নেই, সেখানে বদনামটুকু তাকে বয়ে নিয়ে যেতে হবে কেন? 
কেবল সরকারিকৃত স্কুল-কলেজের কথা বলি কেন, অতি সম্প্রতি যে সকল স্কুল-কলেজকে নতুন করে এমপিও দেবার ঘোষণা দেয়া হয়েছে, তাদের গেজেট হতে এত বিলম্ব হচ্ছে কেন? যারা এমপিও পাবার যোগ্য বলে বিবেচিত হয়েছে, তাদের এমপিও ছাড় দিতে অসুবিধা কোথায়? কাগজপত্র যাছাই বাছাই আগে করা হলো না কেন? এখন যাছাই বাছাইর নামে সময় নষ্ট করা খুবই অনভিপ্রেত। এমনিতে অনেকের ১৫-২০ বছর ধরে বেতন-ভাতা নেই। এখন যা বা এমপিও হলো, তখন অযথা যাছাই-বাছাইয়ের নামে সময় খোয়ানো কেন? এমনিতে অনেকের চাকরির বয়স শেষ হয়ে যাচ্ছে। পেনশনের সময় হয়ে গেছে। তারা দু’ আনা দু’ পয়সা সরকারি অর্থ নিয়ে বাড়ি ফিরতে চান। সে আশাটিও অনেকের অপূর্ণ থেকে যাবে। এর অভিশাপ কে বহন করবে?  যাদের হাতে লাল ফিতার ফাইল, সে অভিশাপ তাদের গ্রহণ করতে হবে। এর প্রায়শ্চিত্ত তাদেরকেই একদিন না একদিন করতে হবে।

আরেকটি বিষয়ে সামান্য আলোকপাত করে আজকের লেখাটির ইতি টানতে চাই। বিভিন্ন বেসরকারি স্কুল-কলেজে নতুন ভবন, আইসিটি ল্যাব ও বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি দিতে রাজনৈতিক তদবিরকে অগ্রাধিকার দেয়া কতটুকু যুক্তিসঙ্গত? একজন এমপি বা মন্ত্রী সুপারিশ করতেই পারেন। কিন্তু এমপি বা মন্ত্রীর সুপারিশ ছাড়া কেউ কিছু পাবে না, সেটি একেবারে কাম্য নয়। আজ অনেক যোগ্য প্রতিষ্ঠান ভবন, আইসিটি  ল্যাব কিংবা যন্ত্রপাতি কিছুই পায় না। আবার যারা অযোগ্য, তারা নেতার জোরে সব পেয়ে যায়।

আমাদের বিচার বিভাগ ও শিক্ষা বিভাগটি অন্তত প্রভাবমুক্ত না থাকলে জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো কঠিন হবে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের প্রাক্কালে মুজিববর্ষে এই হোক আমাদের অঙ্গীকার- বিচার ও শিক্ষা বিভাগকে আমরা কলুষমুক্ত রাখবই। 
সরকারিকৃত স্কুল-কলেজে অবিলম্বে যাবতীয় কার্যক্রম সরকারি হিসেবে শুরু হোক। শিক্ষক-কর্মচারীদের আগামী মাস থেকেই সরকারি নিয়মে বেতন-ভাতা প্রদান করার ব্যবস্থা নেয়া দরকার। ধৈর্যের একটা সীমা থাকে। তারা সে সীমাটি অতিক্রম করেছেন। আর ধৈর্য ধরা কঠিন।

লেখক : অধ্যক্ষ, চরিপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, কানাইঘাট, সিলেট এবং দৈনিক শিক্ষার নিজস্ব সংবাদ বিশ্লেষক।

একাদশে ভর্তির আবেদন শুধুই অনলাইনে, শুরু ১০ মে - dainik shiksha একাদশে ভর্তির আবেদন শুধুই অনলাইনে, শুরু ১০ মে আগামী বাজেট : শিক্ষা খাত পাচ্ছে সাড়ে ৩২ হাজার কোটি টাকা - dainik shiksha আগামী বাজেট : শিক্ষা খাত পাচ্ছে সাড়ে ৩২ হাজার কোটি টাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষা হবে চারটি পৃথক গুচ্ছে - dainik shiksha বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ভর্তি পরীক্ষা হবে চারটি পৃথক গুচ্ছে স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের ফেব্রুয়ারির এমপিওর চেক ছাড় - dainik shiksha স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের ফেব্রুয়ারির এমপিওর চেক ছাড় জেডিসিতে বৃত্তিপ্রাপ্ত ৯ হাজার শিক্ষার্থীর তালিকা প্রকাশ - dainik shiksha জেডিসিতে বৃত্তিপ্রাপ্ত ৯ হাজার শিক্ষার্থীর তালিকা প্রকাশ ঢাকা ‍ও সিটি কলেজ ছাত্রদের সংঘর্ষ, দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে : শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha ঢাকা ‍ও সিটি কলেজ ছাত্রদের সংঘর্ষ, দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে : শিক্ষা উপমন্ত্রী ইবতেদায়ি বৃত্তি পাওয়া সাড়ে ২২ হাজার শিক্ষার্থীর তালিকা - dainik shiksha ইবতেদায়ি বৃত্তি পাওয়া সাড়ে ২২ হাজার শিক্ষার্থীর তালিকা ব্যাংক বন্ধ হলেও আমানতের পুরো টাকা পাওয়া যাবে : কেন্দ্রীয় ব্যাংক - dainik shiksha ব্যাংক বন্ধ হলেও আমানতের পুরো টাকা পাওয়া যাবে : কেন্দ্রীয় ব্যাংক এসএসসি পর্যন্ত বিভাগ বিভাজনের দরকার নেই : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha এসএসসি পর্যন্ত বিভাগ বিভাজনের দরকার নেই : প্রধানমন্ত্রী ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমে সুদ ফের ১১ দশমিক ২৮, বাস্তবায়ন ১৭ মার্চ থেকে - dainik shiksha ডাকঘর সঞ্চয় স্কিমে সুদ ফের ১১ দশমিক ২৮, বাস্তবায়ন ১৭ মার্চ থেকে মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষা শুরু ২৮ মার্চ - dainik shiksha মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষা শুরু ২৮ মার্চ করোনা ভাইরাস : প্রাথমিক স্কুলে সচেতনতা বৃদ্ধির নির্দেশ - dainik shiksha করোনা ভাইরাস : প্রাথমিক স্কুলে সচেতনতা বৃদ্ধির নির্দেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া দৈনিক শিক্ষার আসল ফেসবুক পেজে লাইক দিন - dainik shiksha দৈনিক শিক্ষার আসল ফেসবুক পেজে লাইক দিন শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন please click here to view dainikshiksha website