সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূর হবে কবে? - মতামত - Dainikshiksha

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূর হবে কবে?

মুন্নাফ হোসেন |

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকগণ বেতন পান ১৫তম গ্রেডে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষকগণ ১০ম গ্রেডে বেতন পান।  আমি মনে করি প্রধানশিক্ষকদের আরো উপরে নেওয়া যায়। এতে তাদের মর্যাদা আরো বাড়বে। অন্য দিকে সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে আনলে বৈষম্য দূর হবে। সহকারী শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য দূরীকরণে অনেকদিন ধরে আন্দোলন চলে আসছে, কিন্তু তাদের আন্দোলন হালে পানি পায়নি। যৌক্তিক আন্দোলনে সরকারের উচ্চমহল সুদৃষ্টি দিলে বেতন বৈষম্য দূর করা কঠিন কাজ নয়। 

বর্তমানে এইচএসসি পাস নার্সদের ৯ম গ্রেডে বেতন দেওয়া হয়। এটি অবশ্যই সরকার প্রশংসার দাবিদার। কিন্তু স্নাতক পাস সহকারী শিক্ষকদের বেতন গ্রেড ১৫তম। এটা কেমন বৈষম্য? দেশ বর্তমানে দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। দেশ উন্নয়নের সাথে সাথে বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য। একজন সহকারী শিক্ষক যে বেতন পান তা দিয়ে সন্তানের লেখাপড়া চালিয়ে সংসার চালানো খুব কষ্টের। তাছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকাল ৯টা হতে বিকাল ৪:১৫ টা পর্যন্ত পাঠদান করানো হয়। তাই অন্য কোনো কাজ করে উপার্জন করা সম্ভব নয়। এ অবস্থায় বেতন বৃদ্ধি করা অতীব জরুরী।
অন্যদিকে কৃষি ডিপ্লোমাধারীরা এইচএসসি পাস করে বেতন পান ১০ম গ্রেডে। এতে কোনো অভিযোগ নেই, নেই কোনো কষ্ট। কষ্ট একটাই। যারা অত্যন্ত পরিশ্রম করে ছোট ছোট শিশুদের মানুষ করছেন তাদের বেলায় বেতনবৈষম্য কেন?

বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে হয়তো এমন বৈষম্য হতো না। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হলে বেতন বৈষম্য দূর করা ছাড়া উপায় নেই। শুধু উচ্চমহলের একটু সুদৃষ্টি দরকার। ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনিমার্ণে সকল স্তরে বৈষম্য দূর করা জরুরী। গণতন্ত্রের মানসকন্যা প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন যতদ্রুত সম্ভব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকদের মানউন্নয়নে ১১তম গ্রেডে বেতন দেওয়ার ব্যবস্থা করুন। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে বেতন-বৈষম্য দূর করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে এগিয়ে আসুন।

লেখক : সহকারী শিক্ষক, মমিনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ধনবাড়ী, টাঙ্গাইল।

[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন]

এমএ পাস ওসি দিচ্ছেন এসএসসি পরীক্ষা - dainik shiksha এমএ পাস ওসি দিচ্ছেন এসএসসি পরীক্ষা ভাষার জন্য মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু: শিক্ষা উপমন্ত্রী - dainik shiksha ভাষার জন্য মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু: শিক্ষা উপমন্ত্রী স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচন ১৪ মার্চ - dainik shiksha স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচন ১৪ মার্চ এমপিওভুক্তির নামে প্রতারণা, মন্ত্রণালয়ের গণবিজ্ঞপ্তি - dainik shiksha এমপিওভুক্তির নামে প্রতারণা, মন্ত্রণালয়ের গণবিজ্ঞপ্তি ফল পরিবর্তনের চার ‘গ্যারান্টিদাতা’ গ্রেফতার - dainik shiksha ফল পরিবর্তনের চার ‘গ্যারান্টিদাতা’ গ্রেফতার প্রাথমিকে সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড প্রার্থীদের ২০ শতাংশ কোটা - dainik shiksha প্রাথমিকে সায়েন্স ব্যাকগ্রাউন্ড প্রার্থীদের ২০ শতাংশ কোটা ১৮২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু - dainik shiksha ১৮২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এমপিও বন্ধের প্রক্রিয়া শুরু প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ - dainik shiksha প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১৫ মার্চ ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা - dainik shiksha ২০১৯ খ্র্রিস্টাব্দের স্কুলের ছুটির তালিকা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website