সাময়িক বহিষ্কারে খুশি নন আবরারের বাবা - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

সাময়িক বহিষ্কারে খুশি নন আবরারের বাবা

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামিদের বুয়েট থেকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্তে খুশি নন তাঁর বাবা বরকত উল্লাহ। আসামিদের আজীবন বহিষ্কার চান তিনি। তবে বুয়েটের শিক্ষার্থীদের জন্য নেওয়া সিদ্ধান্তগুলোর ব্যাপারে বুয়েট কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) প্রথম আলো পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বুয়েটের উপাচার্য সাইফুল ইসলাম আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আজ শুক্রবার বৈঠকে করে যে সিদ্ধান্তগুলো জানিয়েছেন, সে বিষয়ে আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ  তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা জানান।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বুয়েট অডিটোরিয়ামে আলোচনাকালে উপাচার্য বলেন, বুয়েটে সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি থাকবে না। আবরারের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে এবং আবরার হত্যা মামলার খরচ বুয়েট কর্তৃপক্ষ বহন করবে। বিচারকাজ দ্রুত শেষ করতে সরকারকে চিঠি দেওয়া হবে। বুয়েটে র‍্যাগিং বন্ধ হবে। উপাচার্য জানান, সরকার আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতে আশ্বস্ত করেছে।

আবরারের বাবা আজ সন্ধ্যার দিকে মোবাইল ফোনে বলেন, সাময়িক বহিষ্কার কোনো সিদ্ধান্ত হতে পারে না। পরে এই বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারও হতে পারে। তাই যত দ্রুত সম্ভব হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে স্থায়ী বহিষ্কার করতে হবে।

ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে আবরারের বাবা বলেন, ‘আমার ছেলে হারিয়েছি। এর চেয়ে বড় ক্ষতি কী হতে পারে। এই ক্ষতি কোনোভাবে পূরণ হতে পারে? পারে না।’ তাঁর দাবি, দ্রুত অভিযোগপত্র দিয়ে সব আসামির ফাঁসি নিশ্চিত করতে হবে। শুধু রায় হলেই হবে না, ফাঁসিও যাতে দ্রুত কার্যকর হয় সেটাই বুয়েট কর্তৃপক্ষকে নিশ্চিত করতে হবে।

র‍্যাগিং বন্ধ, সাংগঠনিক ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়ে আবরারের বাবা বলেন, ‘আমার ছেলেকে হারানোর মধ্য দিয়ে আরও শত শত ছেলের জীবন যেন ভালো থাকে; এসব সিদ্ধান্তের জন্য উপাচার্যকে ধন্যবাদ। আর যেন কোনো বাবা-মা তাঁর সন্তানকে না হারায়।’

এদিকে শুক্রবার বাদ জুমা আবরারদের গ্রামের মসজিদে তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। আবরারের কবর জিয়ারত শেষে মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। তাতে আবরারের পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও আশপাশের গ্রামের মানুষ অংশ নেন।

৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন - dainik shiksha ৪২ শতাংশই অন্য চাকরি না পেয়ে শিক্ষকতায় এসেছেন র‌্যাগিং রোধে বিশেষ সেলের কথা বললেন শিক্ষামন্ত্রী, ইউজিসি দিল নির্দেশনা - dainik shiksha র‌্যাগিং রোধে বিশেষ সেলের কথা বললেন শিক্ষামন্ত্রী, ইউজিসি দিল নির্দেশনা ২৫ অক্টোবর থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ - dainik shiksha ২৫ অক্টোবর থেকে কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ শিক্ষার্থীদের অন্দোলনের মুখে ভিসি নাসিরের ভাতিজার পদত্যাগ - dainik shiksha শিক্ষার্থীদের অন্দোলনের মুখে ভিসি নাসিরের ভাতিজার পদত্যাগ ঢাবি ‘খ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ - dainik shiksha ঢাবি ‘খ’ ইউনিটের ফল প্রকাশ ‘প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া’ বলে তোপের মুখে পালালেন অধ্যক্ষ - dainik shiksha ‘প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া’ বলে তোপের মুখে পালালেন অধ্যক্ষ এমপিওভুক্ত হচ্ছেন আরও শতাধিক শিক্ষক - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হচ্ছেন আরও শতাধিক শিক্ষক ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website