স্কুলের সামনে পার্কিং ভোগান্তি - বিবিধ - Dainikshiksha

স্কুলের সামনে পার্কিং ভোগান্তি

রাজন ভট্টাচার্য |

রাজধানীর বেইলি রোড, মগবাজারসহ আশপাশের এলাকায় যানজটের জন্য পরিচিত ভিকারুননিসা নূন স্কুল এ্যান্ড কলেজ। ঢাকার নামীদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের এটি একটি। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের ধানমন্ডি, বসুন্ধরা, আজিমপুরসহ চারটি ক্যাম্পাসের একটিতেও গাড়ি পার্কিংয়ের কোন ব্যবস্থা নেই। অথচ প্রায় ২০ হাজার শিক্ষার্থী এসব ক্যাম্পাসে পড়াশোনা করছে। শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার জন্য কমপক্ষে ১৫ হাজার প্রাইভেটকার প্রতিদিন যাতায়াত করে!

একই চিত্র মতিঝিল আইডিয়াল স্কুলের ক্ষেত্রে। এই প্রতিষ্ঠানে মুগদা ও বনশ্রীতে আরও দুটি শাখা রয়েছে। একটির জন্যও গাড়ি রাখার ব্যবস্থা নেই। সবচেয়ে বেশি সমস্যা তৈরি হয় মতিঝিল ক্যাম্পাসের আশপাশের রাস্তায়। সড়কের প্রায় অর্ধেক দখল করে গাড়ি রাখা হয় নিয়মিত। অথচ বলার কেউ নেই। প্রতিদিন স্কুল শুরু ও ছুটি হওয়া মানেই এই এলাকায় যানজটের আতঙ্ক। অন্তত চারঘণ্টা ভোগান্তি হয় যানজটের। আইডিয়ালের পাশে মতিঝিল মডেল, সরকারী আরও দুটি স্কুলের জন্য প্রাইভেটকারে সড়ক দখলের ভোগান্তি নিয়মিত। সরকারী হিসেবে প্রতিদিন রাজধানীর ধানমন্ডি এলাকায় ২১ হাজার গাড়ি যাতায়াত করে শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার কাজে।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নগরবাসীর ভোগান্তির অন্যতম কারণের একটি যানজট। এজন্য স্কুলগুলোকেও দায়ী করছেন তারা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যানজটের ভোগান্তি কমাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব পরিবহন (বাস) চালুর বিকল্প নেই। একটি বাসে অন্তত ৫০-৬০ যাত্রী যাতায়াতের সুযোগ পায়। অথচ ৬০ জনের জন্য প্রয়োজন ৬০টি প্রাইভেটকার।

২০১২ সাল থেকে নানা চেষ্টা ॥ রাজধানীর যানজট নিরসনে সরকার ২০০৯ সাল অগ্রাধিকার বিবেচনায় একের পর এক প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। ২০১২ সালে যানজট নিরসন করতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারী উদ্যোগে শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার জন্য বাস দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। যদিও এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়নি। আবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহনে শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছিল। এই আহ্বানে আশাবাদী হওয়ার মতো সাড়া মেলেনি।

২০১৭ সালের নবেম্বরে জাতীয় সংসদে রাজধানীসহ বিভাগীয় শহরগুলোতে যানজট নিয়ন্ত্রণ ও স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিরাপদ যাতায়াতের জন্য বিআরটিসি বাস দিতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছিলেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। মন্ত্রী এ বিষয়ে বলেন, স্কুলবাস চালুর বিষয়ে আমাদের সব ধরনের প্রস্তুতি আছে। বিআরটিসিও প্রস্তুত আছে। অভিভাবকরা রাজি হলে এখনই গাড়ি দেয়া হবে।
 
নোটিসের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, রাজধানীসহ বিভাগীয় শহরগুলোর যানজট নিয়ন্ত্রণে প্রায় সাড়ে তিন বছর আগে আমরা স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ও প্রধান শিক্ষক এবং এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ডাকি। সেখানে স্কুল-কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি, ট্রাফিক বিভাগ, বিআরটিএ চেয়ারম্যানসহ আমাদের কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক হয়। আমরা প্রস্তাব করেছিলাম, স্কুলে একক গাড়ি নিয়ে আসা একদিকে ব্যয়বহুল ও যানজট হয়, অন্যদিকে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিয়েও সমস্যা দেখা দেয়। আমাদের সেই প্রস্তাবে প্রথমে দ্বিমত না করলেও পরে কেউ রাজি হননি।

আমরা এটাও বলেছিলাম, স্কুল-কলেজের বাসগুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে। সেই বৈঠকে অনেক অভিভাবক রাজি না হয়ে বলেছিলেন, আমার গাড়ি আছে, আমার সন্তান স্কুলে যাবে আমার গাড়িতে। মনে হয়েছিল, এতে তাদের সম্মান যাবে। বিআরটিসি দোতলা বাস দিতে রাজি হয়েছিল। অভিভাবকরা রাজি না হওয়ায় সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হয়নি। শিক্ষামন্ত্রী পুলিশের পরিসংখ্যান উল্লেখ করে বলেন, শুধু ধানম-ি এলাকায় ২১ হাজার প্রাইভেটকার প্রতিদিন স্কুলের শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার কাজ করে। এতে যানজট তো হয়ই, একটা বড় সমস্যারও সৃষ্টি হচ্ছে। আমরা শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক এবং বিভাগীয় পরিচালকদের নির্দেশ দিয়েছি, নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থায় শিক্ষার্থী আনা-নেয়ার কাজ করতে। সবার সহযোগিতা পেলে এটা করা সম্ভব হবে।

আসাদগেটে গাড়ির বহর ॥ রাজধানীর আসাদগেট থেকে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত স্কুল শুরু ও ছুটির সময়ের চিত্র একেবারেই ব্যতিক্রম। আসাদগেট মোড় থেকে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত যতদূর চোখ যাবে সড়কের দু’পাশে মনে হবে প্রাইভেটকারের মার্কেট। কোথাও এক সারি, কোথায় দুই সারিতে রাখা হয় এসব গাড়ি। জানা গেছে, আসাদ গেট থেকে মোহাম্মদপুর মোড় যেতে ছয়টি স্কুল-কলেজ রয়েছে। এর কোনটিরই নিজস্ব পার্কিং ব্যবস্থা নেই। সড়কের দুইপাশে রয়েছে সেন্ট যোসেফ স্কুল, এসএফএক্স গ্রিনহেরাল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, সেন্ট জোসেফ স্কুল, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল ও দ্য পিপলস ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, আসাদগেট থেকে মোহাম্মদপুর কাঁচা বাজারের সামনে পর্যন্ত রাস্তার উভয় পাশে শত-শত গাড়ি পার্ক করে রাখা হয়। রাস্তার দুই পাশে গাড়ি পার্ক করে রাখায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। গাড়ির চালকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কোন স্কুলেরই নির্দিষ্ট পার্কিং প্লেস নেই। যে কারণে রাস্তাতেই পার্ক করতে হয়।

ডিএমপির ট্রাফিক (পশ্চিম) বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) লিটন কুমার সাহা বলেন, স্কুলের বাচ্চাদের আনা-নেয়ার জন্য এখানে গাড়ি আসে, কোন স্কুলেই পার্কিং ব্যবস্থা নেই। তাই আমরা বাচ্চাদের কথা চিন্তা করে রাস্তার দুই পাশে এক লাইনে গাড়ি পার্ক করার সুযোগ দিয়েছি। তাও বেশিক্ষণ নয় সকালে এসে নামিয়ে দিয়ে আবার দুপুরে এসে চলে যাবে। তারপরেও মাঝে মাঝে এক লাইন থেকে দুই লাইনে চলে যায় তখনই আমরা অভিযান চালাই।
 
সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ বলছে, আইনত রাস্তায় গাড়ি পার্কিং করা দণ্ডনীয় অপরাধ। তারপরেও বাস্তবতার নিরিখে অনেক সময় রাস্তায় পার্কিং সুবিধা দিতে হয়। বিশেষ করে কম গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় এই সুযোগ দেয় ট্রাফিক বিভাগ। তবে অধিক যানবাহন চলাচলকারী রাস্তায় সেই সুযোগ দেয়া উচিত না।

ট্রাফিক বিভাগের হিসাব মতে, সড়কের কম করে হলেও ৩০ শতাংশ বা তারও বেশি দখল হয়ে আছে অবৈধ পার্কিং এবং নানা ধরনের দখলদারদের হাতে। স্ট্র্যাটেজিক ট্রান্সপোর্ট প্ল্যান এসটিপির হিসাব অনুযায়ী, বর্তমানে ঢাকায় কম-বেশি ১৫ শতাংশ যাত্রী প্রাইভেট গাড়িতে যাতায়াত করেন। এ প্রাইভেট কারের দখলে থাকে ৭০ শতাংশেরও বেশি রাস্তা। বাকি ৮৫ শতাংশ যাত্রী অন্য কোন ধরনের গণপরিবহন ব্যবহার করেন। অর্থাৎ তারা গণপরিবহনের মাধ্যমে সড়কের মাত্র ৩০ শতাংশ এলাকা ব্যবহারের সুযোগ পান।

২০১২ সালে একটি বৈঠকে রাজধানীর যানজট নিরসনের অংশ হিসেবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের ব্যবহারের জন্য ১০০টি বিআরটিসির দোতলা বাস দেয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। রাজধানীর যানজট নিরসন ও পরিবহন ব্যবস্থাপনা উন্নয়নে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সঙ্গে আলোচনা করতেই এই সভা আহ্বান করা হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা যানজট নিরসনে প্রাইভেট কারের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণে আনতে অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান। পাশাপাশি অঞ্চলভিত্তিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাপ্তাহিক ছুটি কার্যকর করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নামীদামি স্কুলের পাশাপাশি এখন কিন্ডারগার্টেন স্কুলের শিক্ষার্থীদের একটি অংশ প্রাইভেটকারে যাতায়াত করে। ফলে অলি গলিতে গজিয়ে ওঠা এমন স্কুলগুলোর কারণে দিন দিন যানজটের দুর্ভোগ বাড়ছে। বাসাবো লিটিল এঞ্জেলস স্কুলের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা প্রাইভেটকার চালক আশিকুর জানান, স্কুল শুরু ও শেষ হলে গাড়ি নিয়ে আসতে হয়। সরু গলির কারণে যানজটে যত ভোগান্তি এর পুরোটাই আমাকেও পোহাতে হয়। তাছাড়া পুলিশ ও সাধারণ পথচারীদের উপদ্রব তো আছেই।

কাকরাইল উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের সামনে স্কুল শুরু ও ছুটির সময় রীতিমতো প্রাইভেটকারের মেলা বসে। অন্তত ১০ জন চালক জানিয়েছেন, এখন স্কুলের সামনে ছুটি পর্যন্ত গাড়ি নিয়ে অপেক্ষার সুযোগ নেই। ব্যস্ততম সড়ক হওয়ায় যাত্রী নামিয়ে বাসায় ফিরতে হয়। অথবা নিরিবিলি আশপাশের কোন সড়কে পার্কিং করলেও পুলিশ ধরে।

সূত্র: জনকন্ঠ

শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় - dainik shiksha শিক্ষা আইন যেন শুধু শিক্ষকদের শাসন করার জন্য না হয় হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ - dainik shiksha হঠাৎ রাজধানীর ৩ স্কুলে প্রতিমন্ত্রী, ৫ শিক্ষককে শোকজ ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের - dainik shiksha ১৩ অক্টোবরের মধ্যে দাবি আদায় না হলে কর্মবিরতির হুমকি প্রাথমিক শিক্ষকদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ - dainik shiksha প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী নিয়োগের নীতিমালা প্রকাশ এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ - dainik shiksha এইচএসসি পরীক্ষার সূচি প্রকাশ কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে - dainik shiksha কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের কবে ভর্তি পরীক্ষা, এক নজরে শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website