স্কুল শিক্ষকের ফতোয়ায় সমাজচ্যুত তিন পরিবার - বিবিধ - দৈনিকশিক্ষা

স্কুল শিক্ষকের ফতোয়ায় সমাজচ্যুত তিন পরিবার

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি |

ধুনট উপজেলায় হিন্দু মেয়েকে বিয়ে করার গুজব ছড়িয়ে পড়ায় স্কুল শিক্ষক সমাজপতি হতদরিদ্র তিন পরিবারকে দুই বছর ধরে সমাজচ্যুত করেছে। এ কারণে ওই তিন পরিবারের ১৪ সদস্যের ভাগ্যে এ বছরও কোরবানির মাংস জোটেনি। এ ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ভাণ্ডারবাড়ি ইউনিয়নের রঘুনাথপুর গ্রামে।

 স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের মৃত রুস্তম আলীর ছেলে আবু হানিফ, আবু বক্কার ও আবুল কালাম। এরমধ্যে আবু হানিফ প্রায় ২০ বছর একটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের অধীনে শ্রমিক সর্দার হিসেবে কাজ করে। তারই ধারাবাহিকতায় ভোলা জেলায় মেঘনা নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পে কাজ করে। সেখানে কাজ করার সময় আবু হানিফ হিন্দু এক নারী শ্রমিককে বিয়ে করেছে বলে এলাকায় গুজব ছড়িয়ে পড়ে।

এই গুজবের বিষয়টি আমলে নেন রঘুনাথপুর গ্রামের সমাজপতি বগা খোকসাহাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুল ইসলাম। তিনি একই গ্রামের আব্দুর রহমান, লুত্ফর রহমান ও গেদা মিয়াসহ অন্য মাতব্বরদের নিয়ে বৈঠক করে আবু হানিফ ও তার দুই ভাইকে সমাজচ্যুত করেন।

এ বিষয়ে আবু হানিফ বলেন, সমাজপতি আমিনুল মাস্টার আমার বিরুদ্ধে হিন্দু মেয়েকে বিয়ে করার মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সমাজচ্যুত করেছে। দুই বছর ধরে কোরবানিতে আমাদের অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হয় না। এ ছাড়া গ্রামবাসী আমাদের তিন ভাইয়ের এক বিঘা জমি দখল করে নিয়েছে। গ্রামের অন্য কোনো পরিবারের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগ করতে দেওয়া হয় না। মোট কথা স্বাধীন দেশের মাটিতে পরাধীনতার শিকলে বন্দি জীবনযাপন করছি।

সমাজপতি আমিনুল ইসলাম মাস্টার বলেন, আবু হানিফের বিরুদ্ধে হিন্দু মেয়েকে বিয়ে করার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। শুধু গ্রামবাসীর মুখে মুখে এ বিষয়টি শোনা যায়। তাই গ্রামবাসীর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাদের তিন ভাইকে সমাজচ্যুত করা হয়েছে। তবে গ্রামবাসীর নিকট ভুল স্বীকার করলেই তাদের সমাজে ফিরিয়ে নেওয়া হবে।

ভাণ্ডারবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল বলেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে শুক্রবার রাতে আমার বাড়ি থেকে মাংস নিয়ে সমাজচ্যুত তিন পরিবারকে দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া গ্রামবাসীর সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে এ বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি।

ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা বলেন, বিষয়টি জানার পর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

ডিপিএড শিক্ষকদের বেতন জটিলতার সমাধান শিগগিরই - dainik shiksha ডিপিএড শিক্ষকদের বেতন জটিলতার সমাধান শিগগিরই স্কুলছাত্রী নীলা হত্যার প্রধান আসামী মিজান গ্রেফতার - dainik shiksha স্কুলছাত্রী নীলা হত্যার প্রধান আসামী মিজান গ্রেফতার উচ্চতর গ্রেড পাওয়া এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বেতন কমবে না - dainik shiksha উচ্চতর গ্রেড পাওয়া এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের বেতন কমবে না ১ অক্টোবর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন - dainik shiksha ১ অক্টোবর পর্যন্ত সংসদ টিভিতে মাধ্যমিকের ক্লাস রুটিন এমফিল-পিএইচডি জালিয়াতিতে এগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা - dainik shiksha এমফিল-পিএইচডি জালিয়াতিতে এগিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা ফাজিল ও কামিল মাদরাসার গভর্নিং বডির মেয়াদ বৃদ্ধি - dainik shiksha ফাজিল ও কামিল মাদরাসার গভর্নিং বডির মেয়াদ বৃদ্ধি অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় - dainik shiksha অফিস সময়ে কর্মকর্তাদের বাইরে ঘোরাঘুরিতে বিরক্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় please click here to view dainikshiksha website