‘বুয়েটে ছাত্রলীগের মারপিট নিত্যদিনের ঘটনা’ - ছাত্র-শিক্ষক রাজনীতি - দৈনিকশিক্ষা

‘বুয়েটে ছাত্রলীগের মারপিট নিত্যদিনের ঘটনা’

দৈনিকশিক্ষা ডেস্ক |

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) হলগুলোতে ছাত্রলীগ ক্যাডারদের মারপিট, মাস্তানি ছিল নিত্যদিনের ঘটনা। ছাত্রলীগের মতাদর্শের বাইরে কেউ কথা বললেই তাকে নানাভাবে হেনস্থাসহ মারপিট করা হতো। ফলে রোববার রাতে আবরার ফাহাদকে যখন বুয়েটের শের-ই বাংলা হলের ২০১১ রুমে মারধর করা হচ্ছিল- তখন সেটিকে সাধারণ ছাত্ররা নিত্যদিনের ঘটনা বলেই ধরে নিয়েছিল। ঘটনাস্থল পরির্দশনকারী ঢাকা মহানগর পুলিশের একাধিক শীর্ষ কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন। বুধবার (৯ অক্টোবর) ইত্তেফাক পত্রিকায় প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, আবরারকে তার রুম থেকে ডেকে নেয়ার পর প্রায় ৪/৫ ঘন্টা ধরে নির্যাতন চলে। কিন্তু এসময় তার আর্ত্মচিৎকার শুনে আশপাশের রুম থেকে কেউ এগিয়ে এলো না কেন? এসময় কি ছাত্রলীগ ক্যাডারারা ওই রুমের দরজা জানালা বন্ধ করে মারধর করেছে -এমন প্রশ্নের জবাবে পুলিশের ওই কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এমন প্রশ্ন আমাদের মনেও জেগেছিল। কিন্তু হলের সাধারণ ছাত্রদের কাছ থেকে এর যে জবাব পেয়েছি তা দুঃখজনক। তারা জানিয়েছে, গত কয়েক বছর ধরে ছাত্রলীগ ক্যাডাররা হলগুলোতে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। হলের বিভিন্ন রুমে তারা যখন তখন মদের আড্ডা জমাতো। পাশাপাশি তাদের মতাদর্শের বাইরে কাউকে মনে হলেই তাকে যে কোনো রুমে নিয়ে মারধর করতো। ছাত্রলীগ ক্যাডারদের ভয়ে কেউ ‘টু’ শব্দটি করতো না।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা কি জানিয়েছে, এ ব্যাপারে মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, গ্রেফতারকৃতরা আবরারকে মারধরের কথা স্বীকার করেছে। তবে তাদের একজনের ভূমিকা ছিল একেক রকমের। তাদের মধ্যে কেউ কেউ লাঠি দিয়ে প্রহার করে। কেউবা উপস্থিত থেকে মারপিটের দৃশ্য উপভোগ করে। ওই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেফতারকৃতদের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে বিস্তারিত তথ্য জানা যাবে। উল্লেখ্য, রোববার রাত তিনটার দিকে বুয়েটের শের-ই-বাংলা হলের একতলা থেকে দোতলায় ওঠার সিঁড়ির মাঝ থেকে আবরারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই রাতেই হলটির ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। ময়নাতদন্তে তার মরদেহে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

মান ধরে রাখতে না পারলে এমপিও থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী - dainik shiksha মান ধরে রাখতে না পারলে এমপিও থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী এমপিওভুক্ত হল ২ হাজার ৭৩০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - dainik shiksha এমপিওভুক্ত হল ২ হাজার ৭৩০ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এক নজরে স্কুল-কলেজ মাদরাসা কারিগরি ও বিএম এমপিওভুক্তির হিসেব - dainik shiksha এক নজরে স্কুল-কলেজ মাদরাসা কারিগরি ও বিএম এমপিওভুক্তির হিসেব এমপিওভুক্তিতে দুর্নীতি করলে কী হয়? - dainik shiksha এমপিওভুক্তিতে দুর্নীতি করলে কী হয়? প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা শিক্ষকদের, মহাসমাবেশ পণ্ড - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা শিক্ষকদের, মহাসমাবেশ পণ্ড শিক্ষক নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপের সুপরিশের তালিকা প্রস্তুত - dainik shiksha শিক্ষক নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপের সুপরিশের তালিকা প্রস্তুত ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার ফল দেখুন - dainik shiksha ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার ফল দেখুন ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত - dainik shiksha ডিগ্রি ১ম বর্ষ পরীক্ষার ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন ২৭ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন - dainik shiksha শিক্ষার এক্সক্লুসিভ ভিডিও দেখতে দৈনিক শিক্ষার ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website