জবি ক্যাম্পাস ঘিরে বাড়ছে অপরাধ - বিশ্ববিদ্যালয় - Dainikshiksha

জবি ক্যাম্পাস ঘিরে বাড়ছে অপরাধ

নিজস্ব প্রতিবেদক |

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ক্যাম্পাস ঘিরে বাড়ছে নানা অপরাধের ঘটনা। বিশেষ করে ক্যাম্পাস ও এর আশপাশে বেড়েছে মাদকসেবন ও মাদক বিক্রির ঘটনা। আর মাদকসেবীদের অর্থের জোগান হচ্ছে ছিনতাই, চাঁদাবাজি এমনকি অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের মাধ্যমে। আশপাশে ঘিঞ্জি এলাকা হওয়ায় অপরাধের ‘সেফ জোন’ হয়ে উঠছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। প্রশাসনের তত্পরতা না থাকায় দিনদিন অপরাধের ঘটনা বেড়েই চলছে। এ সব ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী ও ছাত্র নেতাকর্মীদের নাম উঠে আসলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিরুদ্ধে এ সব বিষয়ে নির্লিপ্ততার অভিযোগ রয়েছে। আর এ সব অপকর্মে শীর্ষ নেতারা অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা না নিয়ে বরং দলভারী করতে ব্যস্ত। আবার যাদের বিরুদ্ধে মাদক, চাঁদাবাজি, ছিনতাই ও অপহরণের অভিযোগ ও মামলা রয়েছে তাদের বিভিন্ন সময় দুই শীর্ষ নেতার সাথে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে দেখা যায়। এমন অবস্থায় চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও কর্মচারীরা। পরিস্থিতির জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অবহেলা ও উদাসীনতাকে দায়ী করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ছোট ভাইয়ের সাথে দেখা করতে আসেন আলিফ নামে এক ব্যক্তি। এ সময় কয়েকজন মিলে তাকে বেধড়ক মারধর করতে করতে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে মোবাইল ফোনসেট ও মানিব্যাগ রেখে দেয় ছিনতাইকারীরা। পরবর্তীতে গুরুতর অবস্থায় আলিফকে পার্শ্ববর্তী একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে গত ৯ আগস্ট জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে থেকে অপহূত হন সাহেদ নামে এক দোকান কর্মচারী। অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে তার থেকে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে অপহরণকারীরা। এ নিয়ে কোতোয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে। এ সময় আটক হন জবি ছাত্রলীগের কর্মী নবম ব্যাচের গণিত বিভাগের ছাত্র রাকিবুল ইসলাম রিয়াদ ও দশম ব্যাচের ছাত্র নূর-ই-আলম নিশান। ঘটনায় তার সহযোগী হিসেবে জড়িত ছিলেন ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের অষ্টম ব্যাচের ইংরেজি বিভাগের ছাত্র মঞ্জুর আহমেদ মিলন, দশম ব্যাচের ফিন্যান্স বিভাগের মোবারক হোসেন, দশম ব্যাচের গণিত বিভাগের আকাশ এবং ১২তম ব্যাচের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সৌরভ। এনিয়ে কোতোয়ালী থানায় একটি অপহরণ মামলা রয়েছে।

এর পরদিন গত ১০ আগস্ট নাট্যকলা বিভাগ ১৩তম ব্যচের শিক্ষার্থী শফিকুলকে ক্যাম্পাসের ২য় ফটক সংলগ্ন লেগুনা স্ট্যান্ডের কাছে ডেকে নিয়ে মারধর করে দর্শন বিভাগ ১২তম ব্যাচের মেহেদী, রসায়ন বিভাগ ১৩তম ব্যাচের সম্পদ হাওলাদার, সিএসসি ১৩তম ব্যাচের সুমিত দত্ত ও আইইআর ১৩তম ব্যাচের সিমান্ত। এ সময় তার সাথে থাকা মোবাইল ও টাকা নিয়ে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। এ ঘটনায়ও দুটি মামলা কোতোয়ালী থানায় রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অপরাধ চক্রের এক সদস্য জানান, ক্যাম্পাসে ছিনতাই ও চাঁদাবাজির নেপথ্যে রয়েছে মাদকসেবন। মাদকের টাকা জোগাড় করতেই তারা ক্যাম্পাসে এ সব অপরাধ ঘটিয়ে থাকে। বিভিন্ন চক্রে বিভক্ত হয়ে তারা ক্যাম্পাসে ও তার আশপাশের এলাকায় ছিনতাই-চাঁদাবাজি ঘটায়। সার্বিক বিষয়ে জবি ছাত্রলীগের সভাপতি তরিকুল ইসলাম বলেন, অপরাধ করতে আমরা কাউকে উত্সাহিত করি না। তারপরও যদি কেউ ব্যক্তিগত অবস্থান থেকে অপরাধ করে ছাত্রলীগের নাম দেয়, আমরা তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবো।

কোতোয়ালী থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের ঘটনাগুলো আমাদের দেখার নিয়ম নেই। প্রক্টরিয়াল বডিই তাদের এ বিষয়গুলো দেখেন। তবে বিভিন্ন সময় মারামারির ঘটনায় আমাদের যেতে হয়। এ ছাড়া তেমন কিছুতে আমাদের ডাক পড়ে না।

ক্যাম্পাসে নিরাপত্তার বিষয়ে প্রক্টর নূর মোহাম্মদ বলেন, ক্যাম্পাসে যে কোনো রকমের অস্থিরতা ঠেকাতে আমরা প্রক্টরিয়াল ইউনিট কাজ করছি। তবে, যারা নিয়মিত এ সব অপরাধ করেই যাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে নানা জটিলতায় আর ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। অতিদ্রুত আমরা এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

 

সৌজন্যে: ইত্তেফাক

পেন্সিলে লেখা যাবে না স্কুল ভর্তি পরীক্ষায় - dainik shiksha পেন্সিলে লেখা যাবে না স্কুল ভর্তি পরীক্ষায় আগামী বছর সব স্কুলে একযোগে প্রাক প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ - dainik shiksha আগামী বছর সব স্কুলে একযোগে প্রাক প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ এক নজরে শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার নম্বর বিভাজন - dainik shiksha এক নজরে শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার নম্বর বিভাজন ভিকারুননিসার অডিট রিপোর্ট, শাখা খোলার কাগজপত্র চেয়েছে ঢাকা বোর্ড - dainik shiksha ভিকারুননিসার অডিট রিপোর্ট, শাখা খোলার কাগজপত্র চেয়েছে ঢাকা বোর্ড কে এই নাজনীন ফেরদৌস? - dainik shiksha কে এই নাজনীন ফেরদৌস? জাল সনদ বিক্রেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ - dainik shiksha জাল সনদ বিক্রেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষার ফল ২৪ ডিসেম্বর - dainik shiksha প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষার ফল ২৪ ডিসেম্বর নবসৃষ্ট পদে নিয়োগে ও ব্যয়ের তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয় - dainik shiksha নবসৃষ্ট পদে নিয়োগে ও ব্যয়ের তথ্য চেয়েছে মন্ত্রণালয় বিজয় দিবসে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মসূচি পালনে নির্দেশনা - dainik shiksha বিজয় দিবসে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মসূচি পালনে নির্দেশনা স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ - dainik shiksha স্টুডেন্টস কেবিনেট নির্বাচনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া - dainik shiksha জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে খোলা সব ফেসবুক পেজই ভুয়া please click here to view dainikshiksha website