মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

মোঃ আশরাফুল হক, প্রভাষক(গণিত), ১০ আগস্ট , ২০১৮
দাবি আদায় না হলে আদালতের শরণাপন্ন হওয়ার জন্য নেতৃবৃন্দের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আমরাও এই সংগ্রামের অংশ কেননা সমমানের কথা বলা হয় অথচ মাদরাসা শিক্ষাকে একটা সংকৃন্ন ও কুক্ষিগত অবস্হায় রাখার একটা হীন ষড়যন্ত্র হচ্ছে। মামলার ব্যয়ভার আমরাও বহন করব।
humayun, ০৯ আগস্ট , ২০১৮
2018 এর মাদরাসার এপিওর নীতিমালার ১১.৩ এর (খ) সংশোধন করার ন্যায্য দাবী জানাচ্ছি, সেখানে লিখা আছে ২০০৬ সাল পর্যন্ত কামিল ডিগ্রীধারীদের কে বিএড স্কেল দেওয়া হবে, আমাদের প্রশ্ন হচ্ছে, ২০০৭ সালে কামিল ডিগ্রী ধারীদের কেনো বিএড স্কেল এর অন্তভুক্ত করা হবে না? অথচ তাদেরকে ডিগ্রী,মাষ্টসের মান থেকে ও বঞ্চিত করা হলো। তাই ২০০৭ সালের কামিল ডিগ্রীধারীদের ন্যায্য দাবি মেনে নিয়ে তাদেরকে বিএড স্কেলের অন্তভূক্ত করার জন্য নীতি নির্ধারকদের কাছে অনুরোধ করছি। বাংলাদেশের চাকুরীরত সহকারী মৌলভীদের পক্ষে, ( মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর।বাংগাল পাড়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা, অষ্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ।
MD. AKRAMUL HAQUE, ০৯ আগস্ট , ২০১৮
দ্রুত বদলীর ব্যবস্থা চাই।
MD.BELAL UDDIN, ০৩ আগস্ট , ২০১৮
শুরু থেকেই মাদরাসায় সাধারণ শিক্ষকরা বৈষম্যের শিকার । ১৯৮৯ ইং সনের পূর্বে পাশ করা একজন কামিল পাশ আরবি প্রভাষকের শিক্ষাগত যোগ্যতার সমমান ছিল ডিগ্রি এবং তাদের এ সার্টিফিকেট হল মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের । অথচ তাঁরা মাস্টার ডিগ্রির স্কেল ভোগ করেছে এবং পরবর্তিতে অধ্যক্ষ হয়ে গেছে । প্রকারান্তরে সাধারণ শিক্ষকরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স -মাস্টার ডিগ্রি নিয়েও উপাধ্যক্ষ বা অধ্যক্ষ হতে পারে নাই ।বিষয়টি উচ্চ মহলের বিবেচনার দাবী রাখে ।
S M Tauhidul Islam, ০১ আগস্ট , ২০১৮
মাদরাসা শিক্ষাকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হলে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, সুপার, সহসুপার পদে জেনারেল (নন অ্যারাবিক) শিক্ষকদের নিয়োগ দান একান্ত জরুরি ।কারণ প্রশাসন চালাতে তো আরবির কোন প্রয়োজন নেই ।এমনকি এম. পি. ও ভুক্ত শিক্ষকদের সহজ শর্তে বদলির ব্যবস্থা চাই ।দ্রুত নীতিমালা সংশোধন করুন।
S M Tauhidul Islam, ০১ আগস্ট , ২০১৮
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (মাদ্রাসা) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ প্রনয়ন কারী সংশ্লিষ্ট দের ধন্যবাদ জানাই। এতে মাদরাসা শিক্ষার প্রতি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা আগ্রহী হবে। সংশোধনীর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন। আমি ও এ দাবী জানাই।
S M Tauhidul Islam, ০১ আগস্ট , ২০১৮
সকল সিনিয়র প্রভাষককে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতিসহ সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেন, ইনসাফ করুন।
Mahbubul Alam, ৩১ জুলাই, ২০১৮
মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন? মাদরাসা নীতিমালা-২০১৮ তে মাদরাসায় পড়ুয়াদের সর্ব ক্ষেত্রে প্রধান্য দেওয়া হয়েছে। যেমন-সহপ্রধান, প্রধান গ্রন্থারিক পদ। তাহলে জেনারাল শিক্ষকদের কী প্রয়োজন? নীতিমালায় প্রকাশ করুন মাদরাসায় পড়ুয়াগণই মাদরাসায় শিক্ষককতা করতে পারবে। আর সমান কথাটি উঠিয়ে দিন, যাতে মাদরাসায় পড়ুয়াগণ স্কুল/কলেজে শিক্ষককতায় না যেতে পারে। স্কুলের মৌলভী শিক্ষকের যোগ্যতা থাকলে সহপ্রধান, প্রধান হতে পারবে অথচ মাদরসার জেনরাল শিক্ষকদের যোগ্যতা থাকলে সহপ্রধান-প্রধান হতে পারনবে না। যা জনগণে কাম্য নয়? বরং যাদের যোগ্যতা আছে তাদের মূল্যায়ন করুন তাতে জনগন সকল ক্ষেত্রে সমান অধিকার পাবে।
মোঃ আবুল কাশেম, ৩১ জুলাই, ২০১৮
ইবতেদায়ী জুনিয়র শিক্ষকদের উচ্চতর স্কেলে যাওয়ার সুযোগ দেয়া হউক।বিএ এমএ পাশ করে আইএ স্কেলে বেতন। হাস্যকর বটে!
Md. Shohel Rana, ৩১ জুলাই, ২০১৮
নতুন নীতিমালায় বিএম কলেজ না থাকায় হতাশ কারিগরি বিএম শিক্ষক সমাজ।
ahsan ullah, ৩১ জুলাই, ২০১৮
2018 এর মাদরাসার এপিওর নীতিমালার ১১.৩ এর (খ) সংশধোন করার ন্যায্য দাবী জানাচ্ছি, সেখানে লিখা আছে ২০০৬ সাল পযান্ত কামিল ডিগ্রীধারীদের কে বিএড স্কেল দেওয়া হবে, আমাদের প্রশ্ন হচ্ছে, ২০০৭ সালে কামিল ডিগ্রী ধারীদের কেনো বিএড স্কেল এর অন্তভুক্ত করা হবে না? অথচ তাদেরকে ডিগ্রী,মাষ্টসের মান থেকে ও বঞ্চিত করা হলো। তাই ২০০৭ সালের কামিল ডিগ্রীধারীদের ন্যায্য দাবি মেনে নিয়ে তাদেরকে বিএড স্কেলের অন্তভূক্ত করার জন্য নীতি নিধারকদের কাছে অনুরুধ করছি। বাংলাদেশের চাকুরীরত সহকারী মৌলভীদের পক্ষে, (মুহাম্মদ আহছান উল্লাহ , সহকারী মৌলভী, বালুচরা হাছানিয়া আলিম মাদরাসা। নোয়াখালী।)
shafi Mahmod, ৩০ জুলাই, ২০১৮
মাদরাসা শিক্ষাকে আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হলে অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ, সুপার, সহসুপার পদে জেনারেল (নন অ্যারাবিক) শিক্ষকদের নিয়োগ দান একান্ত জরুরি ।কারণ প্রশাসন চালাতে তো আরবির কোন প্রয়োজন নেই ।এমনকি এম. পি. ও ভুক্ত শিক্ষকদের সহজ শর্তে বদলির ব্যবস্থা চাই ।
Khandker Md Abdul Mozid, ৩০ জুলাই, ২০১৮
ব্যবসায় শিক্ষা পদ সৃষ্টি করা হোক
md al mamun, ৩০ জুলাই, ২০১৮
বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ন। বিশেষ করে মাদরাসায় গ্রন্হাগারিক ও সহকারী গ্রন্হাগারিক পদের জন্য ফাজিল পাশের কথা বলা হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে এমপি ও নীতিমালা সংশোধন করার জোর দাবি জানাচ্ছি। যাতে জেনারেলরাও আবেদন করতে পারে।
md al mamun, ৩০ জুলাই, ২০১৮
বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ন। বিশেষ করে মাদরাসায় গ্রন্হাগারিক ও সহকারী গ্রন্হাগারিক পদের জন্য ফাজিল পাশের কথা বলা হয়েছে। জরুরী ভিত্তিতে এমপি ও নীতিমালা সংশোধন করার জোর দাবি জানাচ্ছি। যাতে জেনারেলরাও আবেদন করতে পারে।
Bondhon, ৩০ জুলাই, ২০১৮
বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (মাদ্রাসা) জনবল কাঠামো ও এমপিও নীতিমালা-২০১৮ প্রনয়ন কারী সংশ্লিষ্ট দের ধন্যবাদ জানাই। এতে মাদরাসা শিক্ষার প্রতি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা আগ্রহী হবে। সংশোধনীর দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মাদরাসা জেনারেল টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন। আমি এ দাবীর জোর বিরোধীতা জানাই।
আলহাজ্ব আবিয়ার রহমান, ৩০ জুলাই, ২০১৮
নতুন নীতিমালায় বিএম কলেজ না থাকায় হতাশ কারিগরি বিএম শিক্ষক সমাজ। পুরাতন নীতিমালাই তাদের সম্বল।
Md.Golam Mostofa, ৩০ জুলাই, ২০১৮
দাবি আদায় না হলে আদালতের শরনাপন্ন হওয়ার জন্য নেতৃ বৃন্দর দৃষ্টি আকর্ষন করছি। কারন সমমানের কথা বলা হয় অথচ মাদরাসা শিক্ষাকে একটা সংকৃন্ন ও কুক্ষিগত অবস্হায় রাখার একটা হীন ষড়যন্ত্র হচ্ছে।
raju, ৩০ জুলাই, ২০১৮
দ্রুত কালো নীতিমালা সংশোধন করুন।