মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

বেচুলাল কর্মকার, প্রধান শিক্ষক, রুবীরহাট বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়, সোনাইমুড়ী, নোয়াখালী।, ১৬ আগস্ট , ২০১৮
মো: কবির আহম্মদ ভাই, আপনার মন্তব্য সঠিক। গ্রামের গ্রামের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার সময়ই বেশি পড়ালেখা করে। তাই সিলেবাস কমিয়ে আভ্যন্তরীন পরীক্ষাই বাড়ানো এবং এই পরীক্ষার গুরুত্ব দেওয়া উচিত। পাবলিক পরীক্ষা নয়। কারণ বর্তমানে পাবলিক পরীক্ষায় নীতিনৈতিকতা হীন এক অসুস্থ প্রতিযোগিতা চলছে। যার ফলে মান সম্মত শিক্ষা হচ্ছে না। যাহা রবি ঠাকুরের কথাকে স্মরণ করিয়ে দেয় ‍"ছেলেটি বি.এ. পাশ করল কিন্ত্তু শিক্ষিত হল না"।
Md. Kobir Ahmed, ১৬ আগস্ট , ২০১৮
যদি ৫ম শ্রেণীর পাবলিক পরীক্ষা তোলে দেওয়া হয়, তা হলে শিক্ষার মান অনেক পিছিয়ে পড়বে ও গ্রামের ছাত্রদের বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হবে। কারণ, গ্রামের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার সময় লেখা পড়াটা করে বেশী, পরীক্ষা না থাকলে লেখা পড়ার প্রয়োজন নাই এটাই গ্রামের রিতি।জন নেত্রী শেখ হাসিনাতো না করে দিলেন যে ৫ম শ্রেণীর পাবলিক পরীক্ষা তোলার প্রয়োজন নাই।
বেচুলাল কর্মকার, প্রধান শিক্ষক, রুবীরহাট বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়, সোনাইমুড়ী, নোয়াখালী।, ১৫ আগস্ট , ২০১৮
মাননীয় মন্ত্রী, কোমলমতি শিশুদেরকে এই পরীক্ষার হাত থেকে রেহাই দেওয়ার সিদ্ধান্তে আপনাকে ধন্যবাদ। জে.এস.সি. পরীক্ষার বিষয় ও সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, সচিব, মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।কিন্ত্তু দূর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, চলতি শিক্ষাবর্ষে যেখানে ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা সংক্ষিপ্ত সিলবাসে চাপমুক্ত অবস্থায় পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে, সেখানে একই শিক্ষাবর্ষে ৫ম শ্রেণির কোমলমতি শিক্ষার্থীরা ব্যাপক সিলবাসে চাপযুক্ত সমাপনী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করতে হবে। তা তাদের প্রতি অবিচার ও জুলুম করার সমতুল্য। যেহেতু আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে সমাপনী পরীক্ষা থাকছেনা তাই চলতি শিক্ষাবর্ষ এর পরীক্ষা- শিক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষকদের কাছে অর্থহীন ও বিরক্তিকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমতাবস্থায় চলতি শিক্ষাবর্ষ থেকেই সমাপনী পরীক্ষা বাদ দিলে এই বিরক্তিকর পরিস্থিতির হাত থেকে রক্ষা পেত।
Abdul mosabbir, ১২ আগস্ট , ২০১৮
সসমম
Sayem, ১১ আগস্ট , ২০১৮
যদি প্রাথমিক কে ৮ম শ্রেণি পরজন্ত করা হয় তাহলে এন টি আর সি এর নিবন্ধন ধারী সকল কে নিওগ দেওয়া যেতে পারে। ফলে এন টি আর সি এর নিবন্ধন কারজক্রম টি সাথ'ক হবে।
Abdul mosabbir, ১১ আগস্ট , ২০১৮
প্রাথমিক শিক্ষাস্তর ষষ্ঠ শ্রেণি পর্যন্ত করা হোক।
Tariqulmathten, ১১ আগস্ট , ২০১৮
সকালে এক শুনি বিকালে আর এক।
MD. ABU TAYEF SARKER, ১১ আগস্ট , ২০১৮
Thanks for good decision
মোঃ শহীদুর রহমান, ১১ আগস্ট , ২০১৮
ধন্যবাদ, সঠিক সিদ্ধান্তের জন্য। সমাপনি পরীক্ষা আরো আগে বাতিল করা উচিৎ ছিল। কোমলমতি শিশুদের উপর সমাপনি পরীক্ষা একটা মস্তবড় বোঝা স্বরূপ ছিল।
MD. RAWSAN ALI, ১১ আগস্ট , ২০১৮
GOOD