মন্তব্য লিখতে লগইন অথবা রেজিস্টার করুন

মন্তব্যের তালিকা

Md Rezaul karim, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯
‌শিক্ষক নি‌জে যখন কল্যাণ টাকা জমা‌তে চা‌চ্ছে না সেখা‌নে আমলা‌দে‌র এত মাথা ব্যাথা কেন বুঝ‌তে পার‌ছি না। এটা কল্যাণ না ঘোড়ার ডিম। অবস‌রের ৭/৮ বছর প‌রেও যখন কল্যাণ আর অবস‌রের টাকা পায় না সে টাকা জমা রে‌খে বোকা প‌রিচয় দেয়া আর কিছু নয়। আ‌মি বাড়‌তি কর্তন‌কে ঘৃণাভা‌রে প্রত্যাক্ষণ কর‌ছি।
md.soriful islam, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৯
অবিলম্বে ১০% কর্তন (কালো আইন বাতিল করুন) পূর্বেরটাই বহাল চাই।
মো: সুমন হোসেন, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯
১০% কর্তনের বিষয়ে শিক্ষা অধিদপ্তর বা মন্ত্রনালয়ের ওয়েব সাইটে কোন চিঠিপত্র তো পেলাম না। দৈনিক শিক্ষা ডটকমে যে চিঠি দোখানো হয়েছে তা দিয়েছে কারিগরি শিক্ষা বোর্ড। মন্ত্রনালয় বা অধিদপ্তরের পরিবর্তে বোর্ড কিভাবে চিঠি দেয় বিষয়টা আমার বোধগম্য নয়।
Md. Golzar Hossain, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯
আমাদের দেশে এখন অনেক টাকা। সরকার আমাদের মত গরীব শিক্ষক-কর্মচারিদের কাছ থেকে কেন চাদা নেবেন? আমিতো মনে করি যে ৬% কাটা হয় সেটাও বন্ধ করে সরকার মানবতার পরিচয় দিক।
মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, ২৩ জানুয়ারি, ২০১৯
সিদ্ধান্ত পরিবতনে অনুরোধ জানাচ্ছি।
Shirin, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯
কথায় আছে বিড়ালের ধমকে ছিক্কা নড়ে না। এমন ধমকে কাজ হবে না। কোমর বেধে রাস্তায় নামতে হবে।
Md shahab uddin, sukri para high school. shista ganj.habiganj Sadat habiganj, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯
আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট একটাই দাবী করার দরকার আমাদের কে জাতীয়করণ করা।তাহলেই সব সমস্যা সমাধান হবে।5% দিয়ে 10% কর্তন এটা কোন ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।কীর্তনের আদেশ স্থগিত করা হোক।
Md Afzal Alam Chowdhury, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯
এটা নিয়ে ব্যাস্ত থেকে শিক্ষকগণ জাতীয়করনের দাবী নিয়ে এগুতে না পারে, এই সুদুর প্রসারী পরিকল্পনা চলছে। নির্বাচন করিয়ে নেয়ার পর আপাতত শিক্ষকদের প্রয়োজনীয়তা ফুরিয়েছে।
Partha Sarathi Ray, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯
অতিরিক্ত ৪% কর্তনের অাদেশ প্রত্যাহার করা না হলে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলা হোক। অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘট ডাকা হোক। প্রজ্ঞাপন জারিকারী অতি উৎসাহী কর্মকর্তা নামের পাকিস্তানের প্রেতাত্মাটিকে বিচারের অওতায় অানা হোক।